আমার পোষ্ট মর্টেম

kolom1.jpg
মঙ্গলবার, জুন ৩০, ২০১৫

:: হেদায়েতুল ইসলাম বাবু ::

সাংবাদিক। শব্দটির সাথে প্রায় সব বয়স ও শ্রেণী পেশার মানুষের পরিচয় আছে। অনেকটা আস্থার জায়গা থেকেই এখনো যেকোন বিপদ আপদে, সমস্যা সঙ্কটে মানুষের ভরসা সাংবাদিক। আবার, সাংবাদিকদের নিয়ে প্রশ্নেরও শেষ নেই। কি শিক্ষিত, কি অশিক্ষিত অনেকের মুখেই সাংবাদিকদের সম্পর্কে নানা রকম মন্তব্য ও কটুক্তি শুনেছি। বিশেষ করে সাংবাদিকদের কেউ কেউ কটুক্তি করে সাংঘাতিকও বলে থাকেন। সাংবাদিক, সাংঘাতিক, আর এই পেশাকে ঘিরে ক্ষোভ, বিক্ষোভ, ভালোবাসা এসব বিষয় তুলে ধরতেই এই আলোচনা।

আমি বলছি জেলা শহর বা উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিক বন্ধুদের কথা। প্রথমে বলতে চাই একজন মানুষ যে, সাংবাদিক হিসেবে গড়ে উঠবে তার জন্য পর্যাপ্ত আয়োজন কি আমার জেলায় আছে? কে, কেন, কিভাবে, সাংবাদিকতার সাথে সম্পৃক্ত হবে। তারও কি সুনির্দিষ্ট কোন নীতিমালা আছে। জেলা শহরতো দুরের কথা জাতীয় পর্যায়েও এধরনের কোন নীতিমালা আছে বলে আমার জানা নেই। অন্যদিকে একজন সাংবাদিক কিভাবে তার জীবন-জীবিকা নির্বাহ করবেন তারও কোন নিশ্চয়তা নেই (কয়েকটি গনমাধ্যম ছাড়া)। কথায় কথায় রাষ্ট্রযন্ত্র, সুশীল সমাজ এমনকি সাংবাদিক নেতারাও বলে থাকেন যে, সাংবাদিকরা জাতির বিবেক, সমাজের দর্পণ। পেশাগত ভিত্তি যদি দূর্বল হয় তাহলে সেই বিবেক যে অন্ধ হবে না তার গ্যারান্টি কে দেবে? হাত-পা-বেধে যেমন কেউ সাঁতরাতে পারে না, তেমনি হাত পা বাধা সাংবাদিকদের কাছ থেকে সমাজের মানুষের প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির সমন্বয় ঘটবে না এটাই স্বাভাবিক।

জেলা পর্যায়ে স্থানীয় পত্রিকা গুলোর কথাই ধরা যাক। এসব পত্রিকায় যারা কাজ করছেন তাদের না আছে নিয়োগ পত্র, না আছে বেতন ভাতা। একটি আইডি কার্ড ছাড়া তাদের কাছে আর কিছুই নেই। এমনও শুনেছি ও দেখেছি কোন বেতন ভাতা বা নিয়োগ পত্র ছাড়াই কেবল একটি আইডি কার্ডের জন্য পত্রিকা কর্তৃপক্ষকে খুশি করে সাংবাদিকতায় নাম লেখাতে। প্রতিষ্ঠানিক শিক্ষা, অন্যান্য যোগ্যতা আছে কিনা এসব ক্ষেত্রে তাও বিবেচ্য নয়।

তাহলে যেখানে না আছে জীবন-জীবিকার নিশ্চয়তা, না আছে আর্থিক স্বচ্ছলতা, তারপরও সেখানে সাংবাদিক হওয়ার জন্য আমরা হুমড়ি খেয়ে পড়ি কেন? নানা-অনিয়মের মধ্য দিয়ে নিয়মনীতির কথা বলার জন্য যাদের দায়িত্ব দেয়া হয়, তারা সাংবাদিক হবেন, নাকি সাংঘাতিক হবেন সেই বিচারের দায়িত্ব আপনাদের উপর ছেড়ে দিলাম।

এবার রাজধানী ঢাকা থেকে প্রকাশিত-প্রচারিত বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা, টেলিভিশন ও অনলাইন মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকদের কথা বলতে চাই। এসব গনমাধ্যমে জেলা প্রতিনিধি হিসেবে যারা দায়িত্ব পালন করছেন, তাদের মধ্যে হাতে গোনা কয়েকজন ছাড়া বাকীরা বেতন ভাতা তো দুরের কথা সম্মানী ভাতাও পান কিনা তা আমার জানা নেই। না পাওয়াদের দলের কেউ কেউ বিজ্ঞাপন বিলের সামান্য কমিশন পান। বাকীরা জীবিকার সন্ধান করতে খুঁজে নেন সাংঘাতিকতার পথ। প্রশ্নটা এখানেই যারা কিছুই পান না কিন্তু সাংবাদিকতার তালিকায় নাম লিখিয়েছেন তাদের কাছে সৎ সাংবাদিকতা প্রত্যাশা করা অন্যায় হবে কি না।

আবার পাওয়া বা না পাওয়ার দলের অনেকেই সাংবাদিকতায় আবির্ভূত হয়েছেন রাতারাতি। তাদের প্রয়োজন কেবল সাংবাদিকতার সস্তা পরিচয় আর প্রভাব। আবার, কাউকে একসাথে একাধিক পত্রিকা, টেলিভিশন, অনলাইন সাংবাদিকতার পাশাপাশি সাংবাদিকতার বাইরের পেশাতেও দেখা যায়।

এখন আসা যাক জেলা পর্যায়ে যারা পত্রিকাগুলোর মালিক তাদের কাছে। বিভিন্ন এনজিও, ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদ পত্রিকার ডিক্লারেশন নিয়ে কেউ নিয়মিত আবার কেউ অনিয়মিত পত্রিকা প্রকাশ করছেন। তারাও কখনো সাংবাদিকদের এসব বিষয় নিয়ে ভাবার প্রয়োজন মনে করেন না। কারন তাদের নিজ নিজ উদ্দেশ্য হাসিল হলে তারা আর কোন কিছু ভাবার প্রয়োজন আছে বলে সম্ভবত মনে করেন না।

কেননা এই মানুষ গুলো যদি এসব বিষয় নিয়ে ভাবতেন তাহলে একেকটি পত্রিকা হতে পারতো সাংবাদিকতার বিদ্যাপীঠ। তা না হয়ে কোন কোন সময় আমরা লক্ষ্য করি। সৎ সাংবাদিকতার বদলে এসব জায়গা হলুদ সাংবাদিকতার সূতিকাগারের দায়িত্ব পালন করছে। অন্যদিকে জাতীয় পর্যায়ের সংবাদপত্র টেলিভিশনগুলো এখন ব্যবসায়ীদের কব্জায়। কেননা একজন পেশাদার সাংবাদিক ইচ্ছে করলেই কোটি কোটি টাকা বিনিয়োগ করে একটি পত্রিকা বা টেলিভিশনের মালিক হতে পারেন না। যার ফলে ব্যবসায়ীদের দ্বারা ব্যবসায়ীদের স্বার্থই কেবল রক্ষা করা সম্ভব, সাংবাদিকদের নয়।

মিডিয়া গুলোতে কর্মরত জেলা পর্যায়ের সাংবাদিকদের জন্য উন্নত ক্যামেরা, আধুনিক প্রযুক্তি, উন্নত ইন্টারনেট কানেকশন এখন খুবই জরুরী। তাছাড়া সংবাদ পরিবেশনের দৌড় প্রতিযাগিতায় টেকা সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে সময় টেলিভিশন ছাড়া অন্য গনমাধ্যমগুলোকে এখনো জেলা বা মফস্বল নিয়ে ভাবতে দেখিনি।

এছাড়া সাংবাদিকদের স্বার্থ রক্ষায় সাংবাদিকদের সংগঠনগুলোর যে ভূমিকা পালন করার কথা তারাও অজ্ঞাত কারনে নীরব। বছর বছর কেবল এসব সংগঠনের ইলেকশন/সিকেশন হয়। সাংবাদিক নেতাদের পরিবর্তন হয়। কিন্তু সাংবাদিকদের অধিকার উপেক্ষিত থেকে যায় বছরের পর বছর। ভাগ্যে জোটে কেবল নির্যাতন, বঞ্চনা, লাঞ্ছনা আর কটুক্তি।

এজন্য সমাজের বাস্তবতা তুলে ধরার দায়িত্বপ্রাপ্ত এই মানুষদের জন্য এক ধরনের নিয়মনীতি এখন সময়ের দাবী। তা না হলে আমরা যেমন ভালো সাংবাদিক পাবো না। তেমনি রাষ্ট্র ভুল ত্র“টি শোধরানোর সুযোগও পাবে না।

আমরা যদি এখনই এসব বিষয় নিয়ে না ভাবি, তাহলে আগামী দিনে সৎ, মেধাবী প্রজন্ম এই পেশা থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে কিনা সেটিও ভাবার বিষয়।

লেখক: সংবাদকর্মী, সময় টেলিভিশন, গাইবান্ধা।

আপনার মন্তব্য দিন

Share this post

scroll to top