বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০১:২৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
মরিচ্যা যৌথ চেকপোষ্ট ইয়াবাসহ নারী মাদক কারবারি আটক দাম বাড়াতে পচানো হচ্ছে হাজার হাজার বস্তা পেঁয়াজ! কক্সবাজার শহরকে মাদক ও সন্ত্রাস মুক্ত করতে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সহযোগীতা চাইলেন নবাগত ওসি শাহজাহান রিসোর্টের ১১৭ নম্বর কক্ষে ইয়াবা নিয়ে ধরা খেল দুইজন কক্সবাজার শহরকে শতভাগ মাদকমুক্ত করার ঘোষণা দেন নবাগত ওসি শাহজাহান কবির চলচ্চিত্রের উন্নয়নে কাজ করতে শেষ সুযোগ চান ইলিয়াস কোবরা কক্সবাজার ৭১’এ প্রকাশিত সংবাদের একাংশের প্রতিবাদ কক্সবাজার ৭১’এ প্রকাশিত সংবাদের একাংশের প্রতিবাদ নতুন সরকারি কোয়ার্টারে গ্যাস সংযোগ নয়: প্রধানমন্ত্রী ইতিহাস গড়া হলো না বাংলাদেশের

চট্টগ্রামে কমিউনিটি পুলিশিংয়ে বিএনপি-জামায়াতের লোক, দাবি আওয়ামী লীগ সাংসদের

আলোকিত টেকনাফ
  • আপডেট সময় রবিবার, ৩০ জুন, ২০১৯
  • ১১ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক।

চট্টগ্রাম মহানগরীর কমিউনিটি পুলিশিংয়ে বিএনপি জামায়াতের লোকজন ঢুকে পড়েছে বলে তথ্য দিয়েছেন চট্টগ্রাম ১০ আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ডা. আফসারুল আমীন। কমিউনিটি পুলিশিংয়ের এক সভায় বিষয়টি নিয়ে তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এ সময় মঞ্চে উপস্থিত শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বিষয়টি দেখার জন্য সিএমপি কমিশনারকে অনুরোধ জানান।

বৃস্পতিবার (২৭ জুন) বিকেল চারটায় নগরীর জিইসি কনভেনশন সেন্টারে মহানগর কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশে এসব তথ্য উঠে আসে। এ সময় চট্টগ্রাম-১০ সংসদীয় আসনের সংসদ সদস্য ডা. আফসারুল আমিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমার সংসদীয় আসনে আটটি ওয়ার্ড। অথচ আমার দলের ওয়ার্ড সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকরা জানেন না কমিউনিটি পুলিশিংয়ের কমিটি কার সঙ্গে আলোচনা করে গঠন করা হয়েছে। একাধিক ওয়ার্ড কমিটির নেতৃত্বে জ্বালাও-পোড়াও আন্দোলনে সম্পৃক্ত জামায়াত-বিএনপির লোক রয়েছে। অথচ সরকার চালায় আওয়ামী লীগ। পুলিশও চালায় আওয়ামী লীগ।’

আফসারুল আমীনের এ অভিযোগের পর মঞ্চে উপস্থিত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও শিক্ষা উপমন্ত্রী তাদের বক্তব্যে বিষয়টি সতর্কতার সাথে দেখার জন্য সিএমপি কমিশনার মাহবুবর রহমানকে নির্দেশ দেন।

চট্টগ্রাম মহানগর কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সমাবেশ উপলক্ষে র‌্যালি
চট্টগ্রাম মহানগর কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সমাবেশ উপলক্ষে র‌্যালি

সিএমপি কমিশনার মাহবুবর রহমানের সভাপতিত্বে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। বিশেষ অতিথি ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। মূখ্য আলোচক ছিলেন বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. জাবেদ পাটোয়ারী। এছাড়াও সাংসদ ডা. আফসারুল আমিন চৌধুরী এবং এমএ লতিফ, সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। কমিউনিটি পুলিশিং নগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক অহিদ সিরাজ চৌধুরী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘টেকসই উন্নয়নের জন্য টেকসই নিরাপত্তা পূর্বশর্ত। জনগণের জান-মালের নিরাপত্তার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনা পুলিশের পাশাপাশি শিল্পাঞ্চল পুলিশ, ট্যুরিস্ট পুলিশ, নৌ পুলিশ প্রতিষ্ঠা করেছে। মামলার তদন্ত নিখুঁত হওয়ার জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) প্রতিষ্ঠা করেছে। আপনারা ফেনীর নুসরাতের মামলা তদন্তে পিবিআইয়ের ভূমিকা দেখেছেন।’

শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান নওফেল বলেন, ‘দলের জন্য রাজপথে ভূমিকা রাখা নেতা-কর্মীদের আমি চিনি। কিন্তু ক্ষমতার সুবিধাভোগী অনেকেই এখন দলে ভিড়েছে। এসে আমার আপনার পাশে দাঁড়িয়ে সেলফি তোলে। প্রশংসা করে বক্তব্য দেয়। তাদের চিনি না। তাদের পরিচয়ও জানি না। এ ব্যাপারে আপনারা সতর্ক থাকবেন। জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ, মাদক যেন সমাজে না থাকে।’

পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, ‘লন্ডন পুলিশের ‘জনতাই পুলিশ, পুলিশই জনতা’—স্লোগানটি আমরা আমাদের কমিউনিটি পুলিশিংয়ে ব্যবহার করছি। এতে পুলিশিং কার্যক্রমে জনগণ ব্যাপকভাবে অংশ নিচ্ছে। প্রায় এক হাজার নাগরিকের বিপরীতে মাত্র একজন পুলিশ রয়েছে। অথচ উন্নত বিশ্বে দুই থেকে আড়াইশ নাগরিকের জন্য একজন পুলিশ। তাই কমিউনিটি পুলিশিংয়ের মাধ্যমে জনগণকে আরো বেশি সেবা দিতে আমাদের এই পদক্ষেপ। ‘জনগণের চোখ মানে পুলিশের চোখ, জনগণের হাত মানে পুলিশের হাত’—এই নীতিতে আমার বিশ্বাস জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাসবাদ, দূর্নীতি নির্মূল সহজ হবে।’

সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেন, ‘সরকার চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধু শিল্পাঞ্চল বাস্তবায়ন করছেন। চট্টগ্রাম বন্দরের যে অর্থনৈতিক গুরুত্ব তা বলে শেষ করা যাবে না। এই নগরীকে যদি নিরাপদ নগরী গড়া যায় তবে বিদেশি বিনিয়োগ আরো বৃদ্ধি পাবে। জাতীয় অর্থনীতিতে চট্টগ্রাম আরো বেশি ভূমিকা রাখবে। তাই বাসযোগ্য ও নিরাপদ নগর গড়তে কমিউনিটি পুলিশিংকে শুধু আনুষ্ঠানিকতায় সীমাবদ্ধ না থেকে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে।’

সভাপতির বক্তব্যে সিএমপি কমিশনার মাহবুবর রহমান বলেন, ‘আমি দায়িত্ব নিয়েছি এক বছর হলো। এর মাঝে ঘটা কোনও ঘটনা অনুদঘাটিত নেই। পুলিশ পেশাদারিত্বের সাথে নগরবাসীকে সেবা দিয়ে যাচ্ছে। কমিউনিটি পুলিশিংয়ের মাধ্যমে এই নগরী জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ, দুর্নীতিমুক্ত হবে।’

সমাবেশে পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক, সিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) এবং কমিউনিটি পুলিশিং নগর শাখার মূখ্য সমন্বয়ক আমেনা বেগম, চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার, সিএমপির উপ-কমিশনারবৃন্দ এবং কমিউনিটি পুলিশিংয়ের নগর, ১৬টি থানা ও ৪১টি ওয়ার্ডের নেতৃবন্দ ছাড়াও সকল সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

সমাবেশের আগে দামপাড়ার পুনাক ভবনের সামনে অস্থায়ী মঞ্চে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ উপলক্ষ্যে আয়োজিত র‌্যালি উদ্বোধন করেন অতিথিবৃন্দ। র‌্যালিটি ওয়াসা মোড় থেকে জিইসি কনভেনশনে গিয়ে শেষ হলে সমাবেশ শুরু হয়।

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2016-2019 | Alokitoteknaf.com
Theme Customized By Shah Mohammad Robel