রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:০৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম

চিন্তার বিকৃতিঃ দায় কার?

আলোকিত টেকনাফ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৭ নভেম্বর, ২০১৯
  • ১২৯ বার পঠিত

|| ফারুক আজিজ ||

দিনদিন আমাদের চিন্তার জগত এতোটা বিকৃত হয়ে যাবে কেউ কি ভেবেছি কখনো? মানুষের মস্তিস্ক কতোটা বিকৃত হলে নিকৃষ্ট ও গর্হিত কাজ করে? আমরা শুধু সরল দৃষ্টি দিয়ে প্রত্যেক কিছুর বিবেচনা করি অথচ শুরু কিভাবে তা নিয়ে কয়জন-ই বা চিন্তাবকরি? কেনো সমাজের এতো অবনমন ও অবনতি তা কি একবারও ভেবে দেখেছি? তা কি একদিনে এসেছে? আল্লাহ মানুষকে পশুর চেয়ে আলাদা করেছেন শুধু আকল তথা জ্ঞানের মাধ্যমে। আমরা সেই জ্ঞানকে যখন ব্যবহার করি বিকৃত মস্তিস্কে ও পশুর কাজে বা নিজের স্বার্থে তখন আমাদের মান সম্মান নেমে যায় পশুর চেয়েও নিম্নে।

এই অপরাধ হওয়ার প্রথম ও প্রধান কারণ হলো সঠিক ভাবে ধর্ম না বুঝা এবং ভালো মানুষের পোশাকে মানুষেকে ধোকা দিয়ে মানুষের আস্থা অর্জন করে ক্ষমতার দোহায় দিয়ে ও টাকার লোভে পেলে নিজের স্বার্থ সিদ্ধির জন্যে পশুর চেয়ে নিকৃষ্ট কাজ করতেও দ্বিধাবোধ করে না। যেনো আইয়ামে জাহেলিয়াতের পূনঃচর্চা। যখন আমরা সুস্থ মস্তিস্ক নিয়ে বেড়ে না ওঠি, মা বোন, ভাই বাবা আমাদের কাছে নিরেট মানুষ ছাড়া কেউ নয়; অথচ তারা-ই আমাদের আবেগ, সম্মান ও স্নেহের মোহনা।

এই অপরাধের আরেকটি প্রধান কারণ হলো পারিবারিক শিক্ষার অভাব। যে পরিবার ভালো ও খারাপ কী তা শিক্ষা দেয় না সেই পরিবারে খারাপকেও খারাপ ভাবা হয় না। পশুর মতো যৌনতার চর্চা যেখানে খারাপ ভাবা হয় না, সেখানে মানুষ আর পশুর বসবাস সমান নয় কি? যেখানে শুধু কয়েক মিনিটের ফুর্তির জন্যে নিজের সর্বস্ব বিকিয়ে দেয়ার জন্যে মানুষ ভাবে না সেখানে মানুষের বসবাস আদৌ কি যোগ্য?

আমরা প্রতিটি ঘটনায় কোন এক পক্ষকে দোষ দিই। কারণ আমরা জানি, ক্ষমতা ও টাকা যেদিকে সেই দিকে আমাদের রায় হয়ে যায়। একবারও কি ভেবেছি বেশির ভাগ কাজে দুই পক্ষের সমর্থনে হয়ে ওঠে বা লোভী শ্রেণীর লালায় অন্যরা পরাজিত! এই সামান্য ফুর্তির ঘটনায় দুইটি পরিবার নয় শুধু; দুইটি বংশও নষ্ট হয়। এই দুই মানুষের চেহারা দেখানো কতোটা কষ্টের ও লজ্জার তা কি ভাবি আমরা? আমরা যে অপরাধে জড়াচ্ছি, একবারও কি ভেবেছি, আমাদেরও মেয়ে আছে আমাদেরও বউ আছে, আমাদেরও মা আছে!

স্মার্টফোন আমাদের যা দিয়েছে তার চেয়ে হাজারগুণ কেড়ে নিয়েছে আমাদের জীবন থেকে। ভেবেছি, দূরে থাকি_ প্রবাসে থাকি তাই স্ত্রীকে স্মার্টফোন দিতে হবে! মেয়ে বিড় হয়েছে তাকে স্মার্টফোন দিতে হবে! ছেলে বড় হয়েছে তাই তাকে স্মার্টফোন দিতে-ই হবে! কখনো কি ভেবেছি স্মার্টফোন ব্যবহার করার যোগ্য কি তার হয়েছে! শুধু স্মার্টফোন কেনো, সাধারণ ফোনও ব্যবহার করার যোগ্যতা কি তার হয়েছে তা কি কখনো ভেবে দেখেছি? মনে করি, মোবাইল তো মোবাইল৷ ব্যবহারে এতো বিধিনিষেধ কেনো থাকবে? আচ্ছা, চিন্তা করুন তো, যে কেউ কি সব কিছু ব্যবহারের যোগ্যতা রাখে? তলোয়ার ব্যবহারের জন্যে তলোয়ারের সঠিক চালনা জানতে হয়। নতুবা সেই তলোয়ার নিয়ে অপরকে আঘাত করে বা সেই তলোয়ার নিজেকে হত্যার অনুঘটক হয়। কারণ সে তো তলোয়ার চালনা জানে না।

তৃতীয়পক্ষ, আমরা যারা মানুষের দোষকে শোধরানোর বিপরীতে প্রচারকে হাতিয়ার হিসেবে নিই তারাও কি ভালো? নিশ্চয় নই। কারণ আমি অন্যের দোষ গোপন করলে আল্লাহ আমার দোষ গোপন করবে। তার সঠিক অর্থ হলো, শোধরানো ছাড়া কোনভাবেই অন্যের দোষ নিয়ে অনলাইন ও অফলাইনে প্রচারও বিকৃত মস্তিস্কের কাজ। এখন প্রশ্ন হলো, শোধরানো কার কাজ? সামাজিকভাবে হলে পাড়া মহল্লার সঠিক ও সুস্থ মস্তিস্কসম্পন্ন মুরব্বির কাজ ও রাষ্ট্রীয়ভাবে প্রশাসনের কাজ৷ তো আমরা? আমাদের কাজ হলো, কোন ঘটনাকে কেন্দ্রকে নয়; বরং সবসময় সমাজে সচেতনামূলক কাজ করে মানুষকে অপরাধ ও অন্যায় কাজ থেকে বিরত থাকার জন্যে সাহায্য করা।

মোটকথা, সঠিকভাবে ধর্মের ও রাষ্ট্রের বিধিনিষেধ যদি আমরা পালন করি এবং আল্লাহর ভয় যদি মানুষের মনে সৃষ্টি করতে পারি তাহলে পরিবার ও সমাজ সঠিক পথে চলবে অন্যথায় আইয়ামে জাহেলিয়াতের সূচনা হতে বেশি সময়ের অপেক্ষা করতে হবে না। আসুন, সুস্থ চিন্তা করি, মা বোনকে সঠিক পথে পরিচালিত করি। নিজেকে সঠিক পথে পরিচালিত করি। প্রতিটি ছেলেদের সবসময় চিন্তা করা উচিত, প্রতিটি বালিকার মতো আমারও একটি মেয়ে আছে, প্রতিটি মেয়ের মতো আমারও একটা বোন আছে আর প্রতিটি মহিলার মতো আমারও একটা মা আছে।

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2016-2019 | Alokitoteknaf.com
Theme Customized By Shah Mohammad Robel