টেকনাফের একমাত্র শহীদ কবরস্থানটি ৪৮ বছর ধরে অবহেলিত

image-75062-1563109731.jpg

শাহ্‌ মুহাম্মদ রুবেল। 

স্বাধীনতার পর ৪৮ বছর কেটে গেছে, আজও সংরক্ষণের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি টেকনাফের একমাত্র শহীদ কবরস্থানটি। ফলে হারিয়ে যেতে বসেছে স্বাধীনতার জন্য প্রাণ দেওয়া সেই সব শহীদদের স্মৃতির শেষ চিহ্ন।

তথ্য অনুসন্ধানে জানা গেছে,১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার পুরাতন পল্লান পাড়া,হেচ্ছারখাল সদর হাস্পাতাল সংলগ্ন এলাকা, নাইট্যং পাহাড়ের পাদদেশকে মৃত্যুপুরী হিসাবে ব্যবহার করে ছিলো পাক বাহিনী।জেলার অনাচে কানাছে থেকে স্বাধীনতার পক্ষে সোচ্চার মুক্তিবাহিনীদের ধরে এনে নির্মম নির্যাতন করে হত্যা করা হতো এসব বধ্যভূমিতে।পত্যক্ষদর্শী অনেক স্থানীয় প্রবীনদের মতে তৎকালীন সময়ে এই বধ্যভূমীতে দিবা রাতে হত্যা করা হয়েছিলো অন্তত শতাধিক নিরীহ বাঙ্গালীকে।
টেকনাফের মুক্তিযুদ্ধ সংগঠক মরহুম মাষ্টার হাজী আব্দুস শুক্কুরের সাথে কথা বলে জানাগেছে,চকরিয়া কাকারার বীর মুক্তিযুদ্ধা শহীদ আব্দুল হামিদের মৃতদেহ স্বাধীনতা লগ্নে তার স্বজনরা এই বধ্যভূমি থেকে শনাক্ত করে নিয়ে গিয়েছিল।দেশ দখলদার মুক্ত হওয়ার পর ১৯৭১ সালের ১৮ই ডিসেম্বর ক্যাপ্টেন বিজয় সিং এর নেতৃত্বে মিত্রবাহিনী টেকনাফ আগমনের পরবর্তী মুক্তিযুদ্ধারা মিত্রবাহিনীর সহায়তায় ঐতিহাসিক এই বধ্যভূমিটি আবিস্কার করে ২৮ জন বীর মুক্তিযুদ্ধার ছিন্নভিন্ন দেহাবশেষ  উদ্ধার করে পৌর কবরস্থান সংলগ্ন ঈদগাহ মাঠে সমাহিত করে ছিলো।সেক্টর কমান্ডার ফোরাম টেকনাফ উপজেলা শাখার সেক্রেটারী মোজাম্মল হক জানান,তার উদ্যোগে স্বাধীনতার ১০ বছর পর ১৯৮১ সালে টেকনাফ অলিয়াবাদ বিত্তহীন সমবায় সমিতির উদ্যোগে এই শহীদ কবরস্থানের পাকা স্তম্ভ গুলো নির্মান করে চারপাশে পাকা বাউন্ডারী দ্বারা ৩টি স্তম্ভ নির্মান করা হয়ে ছিলো।যা এখনো কালের স্বাক্ষী হিসেবে অনেকটা ভঙ্গুর অবস্থায় দাড়িঁয়ে আছে।সেই থেকে কোন ব্যক্তি বা সরকারী প্রতিষ্টান এই কবরস্থানটি রক্ষায় এগিয়ে আসেনি।উলটো দিকে অভিযোগ রয়েছে টেকনাফ পৌরসভার মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী এক প্যানেল মেয়র পৌর ঈদগাঁহ ময়দান সংস্কারের সময় বিভিন্ন অযুহাতে এই স্তম্ভ গুলো ভেঙ্গেফেলার চেষ্টা করলে স্থানীদের বাঁধার মুখে তা বিফল হয়েছে।
বিষয়টি নিয়ে কক্সবাজার জেলা সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের সেক্রেটারী কমরেড গিয়াস উদ্দীন জানান,শহীদ কবরস্থানটি ইতিমধ্যে জেলার একটি প্রতিনিধি দল পরিদর্শন করেছে।আগামী প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানাতে এটি রক্ষনাবেক্ষন জরুরী।বিষয়টি জেলা প্রশাসককে অবগত করা হবে।মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস ধরে রাখতে এই শহীদ বেদীটি স্থায়ীভাবে সংস্কারে সরকারের সংশ্লিষ্টদের এগিয়ে আসার জরুরী বলে মনে করেন তিনি।অন্যতায় এটি ইতিহাস থেকে মুচে যেতে সময় লাগবেনা বেশী দিন।

সরেজমিনে দেখা যায়, দীর্ঘদিন অযত্ন আর অবহেলায় পড়ে আছে অরক্ষিত শহীদ কবরস্থানটি। সেখানে রয়েছে গরু-ছাগলের অবাধ বিচরণ। এছাড়াও মুক্তিযুদ্ধের সময় নিহতদের স্মৃতিবিজড়িত স্থানটির সংরক্ষণ না করায় নতুন প্রজন্মের কাছে অগোচরেই রয়ে গেছে এ অঞ্চলের শহীদদের আত্মত্যাগের ইতিহাস।

 

আপনার মন্তব্য দিন

Share this post

scroll to top