You cannot copy content of this page

টেকনাফ থানা পুলিশের তালিকাভুক্ত মোস্ট ওয়ান্টেড আসামি রাহেলা, আবুল বশর ও আবু দাউদ সিন্ডিকেট অধরা

Coxsbazar-pict-15.05.2019.jpg

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন—-

॥ শাহজাহান চৌধুরী শাহীন,আলোকিত টেকনাফ ॥

কক্সবাজারের সীমান্তবর্তী টেকনাফ থানা পুলিশের তালিকাভুক্ত মোস্ট ওয়ান্টেড আসামি রাহেলা আকতার (৪২)। দীর্ঘদিন ধরে মাদক বিক্রেতাদের বিশাল সিন্ডিকেটের নেতৃত্ব দেয়ায় তার খ্যাতি হয় ‘মাদক স¤্রাজ্ঞী’। বিভিন্ন থানায় তার নামে মাদকের বেশ কয়েকটি মামলা আছে। টেকনাফ থানাতেই আছে মাদক, হত্যা, অস্ত্র সহ তিনটি মামলা। রাহেলা সাম্প্রতিক সময়ে কক্সবাজার জেলার সব চেয়ে নৃশংস নারী গ্যাংস্টার।

জেলার মাদক কারবারী পুরুষদের পাশাপাশি সব থেকে ভয়ানক নামগুলির তালিকায় এই নারীর নাম এসেছে। এছাড়াও তার সিন্ডিকেট সদস্য আবু দাউদ ও আবুল বশরের বিরুদ্ধে রয়েছে ৪টি করে মামলা। এসব মামলায় রাহেলাসহ আবুল বশর ও আবু দাউদ সিন্ডিকেট সদস্যদেরকে গ্রেফতারে প্রায় দুই তিনমাস ধরে হন্যে হয়ে খুঁজছে পুলিশ। কিন্তু অভিনব কৌশল অবলম্বন করে তারা গ্রেফতার এড়িয়ে যায় বারবার। একাধিক দায়িত্বশীল সুত্রে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, রাহেলা আকতার। তিনি সীমান্তবর্তী টেকনাফ বাহারছড়ার কুখ্যাত মাফিয়া আবু দাউদের বোন। ১৯৭৮ সালে জন্ম এই রাহেলা আকতারকে মাফিয়া সা¤্রাজ্যের ‘সিস্টার অব দাউদ’ নামেও ডাকা হচ্ছে। ইন্টারন্যাশনাল মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহিমের পরিবারকেও হারমানায় এই পরিবারটিকে। জীবনের শুরুতে এই কালো চুলের নারী খুবই ধার্মিক ছিলেন। বাহারছড়া ইউনিয়নের নিজ গ্রাম উত্তরশীল খালী থেকে একই এলাকার শামলাপুর গ্রামে বিয়ের একমাসের মাথায় ভেঙ্গে যায় রাহেলার প্রথম সংসার।

এরপর মায়ের সঙ্গে একাকী ভাবে বাহারছড়ার উত্তর শীলখালী গ্রামে বাস করতেন। রাজাকারের বংশোদ্ভোত তার বাবাও একাধিক বিয়ে করায় তাদের সন্তানেরা অনিয়ন্ত্রিত জীবন যাপন শুরু করেন বলে জানায় এলাকাবাসি। পরে রাহেলা নিজেই দ্বিতীয় বিয়ে করেন নোয়াখালী নান্নু নামের এক ব্যবসায়ীকে। কিন্তু পরবর্তীকালে তিনি হয়ে উঠেন ভয়ঙ্কর মাফিয়া। দ্বিতীয় বিয়েও ঠিকেনি বেশিদিন। এছাড়াও ফেনীর হাজারী নামের এ প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তির সাথে তার ছিল অবাধ মেলা মেশা।

অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, তার ভাই মাদক স¤্রাট আবু দাউদ জীবনের অধিকাংশ সময় জেলেই বন্দি ছিলেন। জেলবন্দি থাকা অবস্থায় মাদক চোরাচালান ব্যবসার দায়িত্ব নেয় রাহেলা। ঢাকা জেল থেকে আবু দাউদ যে নির্দেশ এবং পরামর্শ দিতেন তা অক্ষরে অক্ষরে পালন করতেন রাহেলা। সাত বছরের অধিক সময় ধরে গৃহবধুর আড়ালে ভাইয়ের মাদক সাম্রাজ্যে ভাইয়েরই নির্দেশে নিভৃতে কাজ করে গেছেন এই নারী। রাহেলা ও দাউদকে ইয়াবা ব্যবসায় জড়ান একই এলাকার ইয়াবা ডন আবুল বশর আবুইল্ল্যা।

ঘনিষ্ট সুত্রে জানা গেছে, ভাই দাউদের ইয়াবা ব্যবসার দায়-দায়িত্ব নিষ্ঠাভরে পালন করার কারণে জেলে থেকেও দাউদ তার মাদক সা¤্রাজ্যকে অক্ষুন্ন রাখতে সক্ষম হয়েছিলেন। পুলিশের সন্দেহ, রাহেলা সে সময় থেকেই এই মাদক ব্যবসা শক্ত হাতে ধরতে না পারলে এই মাদক ব্যবসা ভেঙে পড়ত। রাহেলা ও তার ভাই আবু দাউদ উত্তর শীলখালী গ্রামের স্থানীয় মো. সোনালী মেম্বারের বাড়ি পাশে সহ বিভিন্ন স্থানে জমি কিনেছে। সেই পাহাড়ি জমিতে নির্মিত ঘরকে মাদক আর নারীর জলসা ঘর বানিয়েছিল দাউদ। এছাড়াও সেখানে ব্যাপক হারে পাহাড় কাটা হয়েছে। ঘরনির্মাণ করে সেখানেই আড়ালে চলতো চোরাচালান ব্যবসা। দামী গাড়ি আর বিলাসবহুল বাসা নিয়ে বছরের পর বছর ফেরারী জীবন তাদের।

পুলিশের একটি সুত্র অনুযায়ী, রাহেলা তার সহযোগিদের সাথে বন্দুক যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে মানুষ হত্যা, পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় অংশ নেন। সর্বশেষ, চলতি বছর পুলিশের দায়ের করা তিন মামলায় আসামী হন রাহেলা আকতার, তার ভাই আবু দাউদ ও তাদের গড ফাদার আবুল বশর আবুইল্ল্যা।

টেকনাফ থানা পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, তাদের বিরুদ্ধে টেকনাফ থানা পুলিশ বাদি হয়ে পৃথক ৩টি মামলা দায়ের করেন। মামলাগুলো যথাক্রমে টেকনাফ থানার মামলা নং-৮৫/১৯, জিআর-২১৪, থানার মামলা নং-৮৬/১৯, জিআর-২১৫ ও থানার মামলা নং- ৮৭/১৯,জিআর-২১৬। তাং-৩০/০৩/২০১৯।

পুলিশ অ্যাসল্ট, হত্যা, ইয়াবা ও অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় দায়েরকৃত এই তিনটি মামলায় এজাহার নামীয় ১২ নং আসামী হচ্ছে টেকনাফ থানাধীন বাহারছড়া ইউনিয়নের উত্তর শিলখালী এলাকা মৃত আক্কল আলীর ছেলে মাদক ব্যবসায়ী আবুল বশর প্রকাশ আবুইল্ল্যা। মামলার ১৩ নং আসামী হচ্ছে একই এলাকার মাসুদুর রহমানের ছেলে আবু দাউদ ও তার বোন ১৯ নং আসামী ইয়াবা স¤্রাজ্ঞী রাহেলা আকতার। গত ২০১৪ সালে ইয়াবার একটি চালান নিয়ে ঢাকা মিরপুর থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন আবু দাউদ। তার বিরুদ্ধে মিরপুর থানা পুলিশ বাদী হয়ে মিরপুর থানা মামলা নং- ১৩/১৪, জিআর মামলা নং-২৫৩/১৪ দায়ের করেন। এই মামলায় দীর্ঘদিন জেল খাটেন ইয়াবা ব্যবসায়ী আবু দাউদ। এছাড়াও আবু দাউদ বিভিন্ন থানায় আটকও হন। তাদের গডফাদার আবুল বশরের বিরুদ্ধে মুস্তাফিজুর রহমান নামের এক আওয়ামী লীগ নেতাকে প্রকাশ্যে নির্মম ভাবে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় টেকনাফ থানার মামলা নং-১/১৬, জিআর, ১/২০১৬ইং রয়েছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, বর্তমান সময়ে টেকনাফের অতিপরিচিত ও আলোচিত একটি নাম মাদক চোরাচালানী রাহেলা। বয়স ৪০/৪২। মাদক ব্যবসার কারণে ভেঙ্গে অন্তত ৪ টি সংসার। ভাঙ্গলে নতুন করে গড়ার সমস্যা ছিলনা তার। সর্বশেষ দেশের ১নং ইয়াবা কিং সাইফুল করিমের এক নিকটাত্মীয় হিনো ট্রাক চালক ও মালিক ইয়াবা কারবারী ইমাম হোসেনকে বিয়ে করে ইয়াবা ব্যবসায় হিরোইন বনে যায় রাহেলা। ইমাম হোসনের আপন ভাগিনা হচ্ছে টেকনাফে বন্দুক যুদ্ধে নিহত বাহাদুর আর আলোচিত ইয়াবা ডন ব্ল্যাক সিদ্দিক হচ্ছে সেই ইমাম হোসনের ভাগ্নী জামাই। বেশির ভাগ ইয়াবা ইমাম হোসনের হিনো ট্রাক যোগেই দেশের বিভিন্ন স্থানে পাচার করতো রাহেলা। অর্থ বিত্তের কারণে সর্বশেষ ইমামের সাথে বিয়েও ভেঙ্গেছে তার। এখন প্রতি মাসে বিলাস বহুল বাস কিংবা বিমানে ইয়াবা নিয়ে ঢাকায় যাওয়া আসা করেন বলে সুত্রে প্রকাশ।

একটি নির্ভরযোগ্য সুত্র মতে, পুলিশে ধরপাকড় থেকে বাঁচার কৌশল হিসেবে রাহেলা কক্সবাজার শহরে ভাড়া বাসায় অবস্থান করে সিটি কলেজ এলাকায় জমি কিনে বিশাল ঘরও নির্মাণ কাজ অব্যাহত রেখেছে। রাহেলাকে ধরার জন্য শহরের এই ভাড়া বাসায় একাধিকবার অভিযান চালিয়েছে পুলিশ।

সুত্র মতে, এখন বেশির ভাগ সময় ঢাকা ওয়ারি জয় কালি মন্দির এলাকায় থাকেন তার ভাই আবু দাউদ। সেই মুলত ঢাকায় অবস্থান করেই পুরো ইয়াবা ব্যবসা নিয়ন্ত্রন করেন। ইয়াবা ব্যবসা আড়ালে করতে শহরতলি লিংক রোড হোসেন মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় হেনিম্যান হোমিও মিশন নামে একটি চেম্বার খুলেছে। সেখানে কোনদিন রোগী যায়নি। হোমিও চিকিৎসক আর ইয়াবা পাচারের সুবিধার্তে চেম্বারের নাম দিয়ে মুলত লিংক রোড বাস স্টেশন থেকে বিভিন্ন বাস যোগে ইয়াবা পাচার করছে বলে একাধিক সুত্রে প্রকাশ।

একটি সুত্র জানিয়েছেন, তার সিন্ডিকেটের মুল গডফাদার আবুল বশর আবুইল্ল্যা। তাদের নেটওয়ার্ক সারাদেশ ব্যাপী বিস্তৃত। গত বছর আবুল বশরের ইয়াবার চালান নিয়ে নেত্রকোনায় গিয়ে পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে নিহত হন আবুইল্ল্যার স্ত্রীর বড় ভাই ইসমাঈল ও উসমান। রাহেলা, আবু দাউদ ও আবুল বশর আবুইল্ল্যার বিরুদ্ধে মাদক, হত্যাসহ ৪টি করে মামলা থাকলেও তারা কিন্তু নির্ভয়ে চালিয়ে যাচ্ছে ইয়াবা ব্যবসা। এই ইয়াবা কারবারী চক্রের র‌্যাকেটটা এতো বড় যে এটা বন্ধ করা প্রায় অসম্ভব। প্রতিদিন ইয়াবা ব্যবসায়ী মরার পরেও বন্ধ কিন্তু হয়নি ইয়াবা ব্যবসা

সচেতন মহলের মতে, কারা মারা যাছে? ড্রাগস ডিলার না স্মাগলার? তারা রিসেলার। কিন্তু তাদের হেড কে? তাদের যারা হেড তাদের কিছু হচ্ছে না। আজকে একজন সরে গেলে কাল আরেকজন তৈরি হচ্ছে।

স্থানীয় সুত্র জানিয়েছেন, যে কোনো প্রতিষ্ঠিত ইয়াবা চোরাকারবারিরা রাহেলাকে লুফে নিতে সর্বদা তৈরি। তবে ড্রাগ দুনিয়ার বাইরে তার আর কিছুতেই বিশ্বাস নেই। রাহেলা সাম্প্রতিক সময়ে কক্সবাজার জেলার সব চেয়ে নৃশংস নারী গ্যাংস্টার। জেলার মাদক কারবারী পুরুষদের পাশাপাশি সব থেকে ভয়ানক নামগুলির তালিকায় তার নাম এসেছে। পুলিশের দেয়া তথ্য থেকে জানা যায়, , রাহেলার বয়স ৪০/৪২ হলেও ২৪ বছরের তরুণীর মতো বায়োগ্রাফি বেশ আকর্ষণীয়। ২০১৩ সালে অসৎসঙ্গে পড়ে এই ব্যবসায় তার হাতেখড়ি হয়। আরেক মাদক স¤্রাট একই এলাকার বাসিন্দা আবুল বশর আবুইল্ল্যার হাত ধরে তারা ভাই বোনের উত্থান ঘটে। মাত্র পাঁচ বছরের মাথায় ২০১৮ সালেই দিব্যি বনে যান মাফিয়া কুইন নামেই।

একটি দায়িত্বশীল সুত্র জানায়, কক্সবাজার শহরে একটি রাজনৈতিক দলের সহযোগী সংগঠনের কয়েকজন নারী নেত্রিও তার সাথে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত ছিল। ওইসব নারী নেত্রিদের সাথে বিভিন্ন সরকারী তার অবাধ বিচরণ ছিল বেশ কিছুদিন। মেজাজি মাথা ও সুন্দর চেহারার জন্য মাদক সাম্রাজ্যের সম্রাজ্ঞী হতে তার বেশি দেরি হয়নি।

টেকনাফ থানা পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, এই মাদক ব্যবসায়ী রাহেলার বিরুদ্ধে পুলিশের দায়েরকৃত তিনটি মামলায় আপাতত রাহেলা পলাতক। তাকেসহ আবু দাউদ ও আবু বশরকে ধরার জন্য পুলিশ একাধিকবার অভিযান চালিয়েছে। কিন্তু বরাবর পালিয়ে রক্ষা পায় তারা। সর্বশেষ যৌথ বাহিনীও আবু বশরের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাকে ধরতে পারেনি।

এব্যাপারে কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন বিপিএম এর সাথে যোযোগ করা হলে তিনি বলেন, মাদক ব্যবসায়ী যারাই হোক তাদের রক্ষা নেই। মাদক মামলার আসামী ও মাদক ব্যবসায়ীদের ধরার জন্য পুলিশী তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তিনি।

আপনার মন্তব্য দিন

Share this post

scroll to top