রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:১১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম

নুসরাতের কবরে ফুটন্ত গোলাপ

আলোকিত টেকনাফ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০১৯
  • ২৫ বার পঠিত

নিউজ ডেস্ক।

একটি মেয়ে দিনেদুপুরে দুর্বৃত্তদের দেওয়া আগুনে পুড়লো, বার্ন ইউনিটে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে হেরে বিদায় নিলো পৃথিবী থেকে। হ্যাঁ, সেই মেয়েটি ফেনীর নুসরাত জাহান রাফি। সেই বহুল আলোচিত মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাতের হত্যা মামলার রায় আজ বৃহস্পতিবার।

এদিকে তার কবরের ফোটা ফুলের ছবি নিয়ে এরই মধ্যে সামাজিক মাধ্যমগুলো বেশ সরব হয়েছে। ‘ফুল ফুটেছে রাফির কবরে ফেনীর আদালত থাকবে সারা দেশের মানুষের নজরে’।

এ গোলাপ বলে দিচ্ছে কী রায় হতে যাচ্ছে…এ ফুলই আজকের ইঙ্গিত বাহক`- এ ধরনের স্ট্যাটাস দিচ্ছেন অনেকে।

এমন স্ট্যাটাস এখন ফেসবুকের পাতায় পাতায়। নুসরাত জাহান রাফি হত্যার পর সব আসামি গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত দেশবাসীসহ সচেতন মানুষদের স্লোগান ছিল ‘আমার বোন কবরে খুনি কেন বাইরে’ এই প্রতিবাদী স্লোগানে উত্তেজিত ছিল দেশের সমগ্র রাজপথ।

এখন দেশের মানুষ তাকিয়ে আছেন বিচারকের আদেশের দিকে। রায় ঘোষণা করবেন ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদ।

ন্যায় বিচারের প্রত্যাশায় প্রতীক্ষার প্রহর গুণছে নুসরাতের পরিবার। সাবেক অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদ করতে গিয়ে অধ্যক্ষের অনুসারীদের দেয়া আগুনে পুড়ে জীবন দিতে হয়েছে নিপীড়নের বিরুদ্ধে প্রতিবাদকারী নুসরাতকে।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর শুনানি ও পর্যবেক্ষণ শেষে ২৪ অক্টোবর রায়ের দিন ধার্য করেন বিচারক মামুনুর রশিদ। বিচার কাজ শুরুর ৬১ কার্যদিবসে মামলাটি চূড়ান্ত রায়ের কার্যক্রম শেষ করা হয়।

নুসরাতের পরিবার ও বাদী পক্ষের আইনজীবীরা আদালতের কাছে ন্যায় বিচার প্রত্যাশা করে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।

রায়ের দিনে নুসরাতের কবরে বাঁশের বেড়ায় ফুটন্ত সাদা ও লাল গোলাপের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে গেছে।

রায়ের দিনে ফেসবুকে কবরের পাশে ফুটন্ত গোলাপের ছবি নিয়ে মহান আল্লাহর কাছে শোকরিয়া জ্ঞাপন করে কবরে নুসরাতের জন্য জান্নাত কামনা করেছেন বহু লোকে।

কেউ কেউ লেখেছেন মহান আল্লাহ ন্যায় বিচারক ও বিচার দিনের মালিক। সুতরাং নুসরাত ইহ ও পরকালে ন্যায় বিচার পাবেন।

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2016-2019 | Alokitoteknaf.com
Theme Customized By Shah Mohammad Robel