রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:০৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম

পটিয়া ট্রাফিক জোনের উদ্যোগে সচেতনতামুলক কার্যক্রমে ব্যাপক সাড়া

আলোকিত টেকনাফ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৭ নভেম্বর, ২০১৯
  • ৪৯ বার পঠিত

ডেস্ক নিউজ। 

চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া ট্রাফিক জোনের উদ্যোগে সচেতনতামুলক কার্যক্রমে ব্যাপক সাড়া মিলেছে। সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ উপলক্ষে সচেতনতা মূলক কার্যক্রম বুধবার (৬ নভেম্বর ) সকাল থেকে মহাসড়কে পটিয়া ট্রাফিক জোনের ইন্সপেক্টর (টিআই) বশিরুল ইসলামের নেতৃত্বে সার্জেন্ট, কনষ্টেবলগন এই সচেতনতামুলক কার্যক্রম চালায়।

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে চলাচলকারী যাত্রীবাহি বাস, কার, মাইক্রোবাস, ট্রাক সহ বিভিন্ন যানবাহন চালক, হেলফার ও যাত্রীদের সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ সম্পর্কে বুঝানো হয় এবং প্রচার পত্রও বিলি করা করা। বুধবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত মহাসড়কের পটিয়া জোনের বিভিন্ন স্পটে চলে এ কার্যক্রম।

পটিয়া ট্রাফিক জোনের উদ্যোগে এধরনের সচেতনামুলক কার্যক্রম জনমনে ব্যাপক সাড়া জাগানোর পাশাপাশি ট্রাফিক পুলিশের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানান।

ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) বশিরুল ইসলাম বলেন, সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এর নতুন আইনে উল্লেখযোগ্য ১৪টি বিধান রয়েছে।

সড়কে গাড়ি চালিয়ে উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে হত্যা করলে ৩০২ অনুযায়ী মৃত্যুদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

একজন চালক এই আইন সম্পর্কে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, এই আইনের ফলে চালকরা সচেতন হবেন, দুর্ঘটনা হ্রাস পাবে, অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা একেবারেই কমে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি বলেন, দুর্ঘটনা রোধে পথচারী ও যাত্রীদেরও সচেতন হওয়ার আহবান জানান তিনি।

একজন যাত্রী নতুন এই আইনকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন,গত বছর ঢাকার দুই কলেজ শিক্ষার্থী সড়কে বাস চাপায় প্রাণ হারানোর পর শিক্ষার্থীদের ব্যাপক আন্দোলনের মুখে ১৯শে সেপ্টেম্বর সড়ক পরিবহন আইন পাস করে সরকার। ১৪ মাস পর সেটা কার্যকর হল। এটা সত্যি প্রশংসার দাবী রাখে।

এক নারী যাত্রী  মনে করেন, নতুন এই আইনের ফলে মানুষ আগের চাইতে বেশি সচেতন হবে। তাহলে প্রাণহানি সহ অপ্রত্যাশিত দুর্ঘটনা কমবে।

বিধানগুলো মধ্যে আরো উল্লেখযোগ্য হচ্ছে, সড়কে বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালালে বা প্রতিযোগিতা করার ফলে দুর্ঘটনা ঘটলে তিন বছরের কারাদণ্ড অথবা তিন লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করা হবে। আদালত অর্থদণ্ডের সম্পূর্ণ বা অংশবিশেষ ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিকে দেয়ার নির্দেশ দিতে পারবে।

মোটরযান দুর্ঘটনায় কোন ব্যক্তি গুরুতর আহত বা প্রাণহানি হলে চালকের শাস্তি দেয়া হয়েছে সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের জেল ও সর্বোচ্চ পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা।

ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া মোটরযান বা গণপরিবহন চালানোর দায়ে ছয় মাসের জেল বা ২৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড দেয়া হয়েছে।

নিবন্ধন ছাড়া মোটরযান চালালে ছয় মাসের কারাদণ্ড এবং পঞ্চাশ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানার বিধান রয়েছে।

ভুয়া রেজিস্ট্রেশন নম্বর ব্যবহার এবং প্রদর্শন করলে ছয় মাস থেকে দুই বছরের কারাদণ্ড অথবা এক লাখ থেকে পাঁচ লাখ টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে।

ফিটনেসবিহীন ঝুঁকিপূর্ণ মোটরযান চালালে ছয় মাসের কারাদণ্ড বা ২৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড দেয়া হয়েছে।

ট্রাফিক সংকেত মেনে না চললে এক মাসের কারাদণ্ড বা ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড দণ্ডিত করা হবে।

সঠিক স্থানে মোটর যান পার্কিং না করলে বা নির্ধারিত স্থানে যাত্রী বা পণ্য ওঠানামা না করলে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে।

গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল ফোনে কথা বললে এক মাসের কারাদণ্ড এবং ২৫ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে।

একজন চালক প্রতিবার আইন অমান্য করলে তার পয়েন্ট বিয়োগ হবে এবং এক পর্যায়ে লাইসেন্স বাতিল হয়ে যাবে।

গণ পরিবহনে নির্ধারিত ভাড়ার চাইতে অতিরিক্ত ভাড়া, দাবী বা আদায় করলে এক মাসের কারাদণ্ড বা ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড দণ্ডিত করা হবে।

আইন অনুযায়ী ড্রাইভিং লাইসেন্সে পেতে হলে চালককে অষ্টম শ্রেনি পাস এবং চালকের সহকারীকে পঞ্চম শ্রেণি পাস হতে হবে হবে। আগে শিক্ষাগত যোগ্যতার কোন প্রয়োজন ছিল না।

গাড়ি চালানোর জন্য বয়স অন্তত ১৮ বছর হতে হবে। এই বিধান আগেও ছিল।

এছাড়া সংরক্ষিত আসনে অন্য কোনও যাত্রী বসলে এক মাসের কারাদণ্ড, অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

প্রসংগত, দেশে  চালক ও পথচারী উভয়ের জন্য কঠোর বিধান যুক্ত করে শুক্রবার থেকে কার্যকর করা হয়েছে বহুল আলোচিত ‘সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮।’

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2016-2019 | Alokitoteknaf.com
Theme Customized By Shah Mohammad Robel