বিলীনের পথে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত সৈকতের ঝাউ বাগান

75058_1563108346.jpg

শাহ্‌ মুহাম্মদ রুবেল। 

বিলীনের পথে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত সমুদ্র সৈকতের ঝাউ বাগানগুলো। বিভিন্ন সময়ের প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও ঢেউয়ের তোড়ে হারিয়ে যাচ্ছে ঝাউ বাগানগুলো।

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের তীর ঘেঁষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে ১৯৭২ থেকে ১৯৭৩ সালে ২০০ হেক্টর জমিতে গড়ে উঠেছিল নয়নাভিরাম ঝাউবিথী। এই ঝাউবিথী একসময় এসে পর্যটকদের বিশ্রাম ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগের স্থানে রূপ নেয়।

অথচ বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের মনোরম সৌন্দর্য বৃদ্ধির পাশাপাশি প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে উপকূলবাসীদের রক্ষা করে আসছিল বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত সমুদ্র পাড়ের ঝাউ বাগান। উপকূলবাসীর রক্ষা ও সৌন্দর্য বর্ধনকারী ঝাউবাগান বর্তমানে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ায় ঢেউয়ের ধাক্কায় সৈকতে ভাঙন তীব্র হয়েছে।

সমুদ্রের জোয়ারের আগ্রাসী ভাঙনে বিলীন হতে বসেছে দৃষ্টিনন্দন এ ঝাউবিথী। আর গত কয়েক বছরে ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস, পূর্ণিমা ও অমাবস্যার জোয়ারে বিলীন হয়ে গেছে প্রায় সাড়ে ৫ লক্ষাধিক ঝাউগাছ। পাশাপাশি কিছু ঝাউগাছ কাঠ চোরচক্রও কেটে নিয়ে যাচ্ছে।

১২ জুলাই (শুক্রবার) সরেজমিন সৈকতের ডায়াবেটিক, সুগন্ধা, শৈবাল ও লাবণী পয়েন্টে গিয়ে দেখা গেছে, একের পর এক সাগরের বালিয়াড়িতে উপড়ে পড়ে আছে লম্বা লম্বা ঝাউগাছ। বিশেষ করে প্রবল জোয়ারের পানিতে সৈকতের ঝাউগাছের গোঁড়া থেকে বালি সরে যাওয়ায় গাছগুলোর এ অবস্থা হয়েছে। আর এ দিকে বনবিভাগের কোনো নজরদারি না থাকার কারণে গাছগুলো রাতের অন্ধকারে আবার অনেক সময় দিনে-দুপুরেও কেটে নিয়ে যাচ্ছে স্থানীয়রা।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী তয়ন কুমার ত্রিপুরা জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্দেশনায় ইতোমধ্যে আমরা কাজ শুরু করে দিয়েছি। আশা করি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত সৈকতের অবশিষ্ট ঝাউ বাগান আমরা রক্ষা করতে পারব।

সমুদ্র সৈকতের সৌন্দর্যময় প্রায় ৫ কিলোমিটার ঝাউবাগান এরই মধ্যে বিলীন হয়ে গেছে। এতে করে হুমকির মুখে পড়েছে কক্সবাজার শহর। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত এই ঝাউবাগান রক্ষা এবং নতুন করে রোপণে সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে এমনটাই প্রত্যাশা কক্সবাজারবাসীর।

আপনার মন্তব্য দিন

Share this post

scroll to top