সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০১:১৩ পূর্বাহ্ন

ব্যর্থতার শেষ প্রান্তেই সফলতার সুচনা

আলোকিত টেকনাফ
  • আপডেট সময় বুধবার, ২৬ জুন, ২০১৯
  • ১৫ বার পঠিত

মিজানুর রহমান মিজান, টেকনাফ::বৈচিত্র্যের জন্যই পৃথিবী এত সুন্দর। শীতের জমাট কুয়াশা আছে বলেই ধূসর মেঘ কেটে রূপালী আকাশে সূর্যের ঝলমলে হাসি আমাদের প্রাণ ছুঁয়ে যায়। কিন্তু একটি ক্ষেত্রে এই বৈচিত্র্য আমাদের কারো কাম্য নয়- আমরা কেউ ব্যর্থ হতে চাই না! পৃথিবীতে সাড়ে সাতশো কোটির বেশি মানুষ আমরা সবাই চাই সফল হতে।

কিন্তু চাওয়া এবং পাওয়ার মাঝে একটা পাহাড়সম দেয়াল আছে, সেই দেয়াল পেরিয়ে বিজয়নিশান উড়িয়ে দিতে পারে এমন মানুষ কমই আছে। সেজন্যই ক্লাসে প্রথম হয় একজনই, বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয় একটি দলই, পাহাড়ের চূড়ায় পৌঁছাতে পারে খুব অল্প কিছু মানুষ। বাকিদের সারাটি জীবন কেটে যায় সাফল্যের মরীচিকার সন্ধানে, নাগালের বাইরে থেকে যায় সোনার হরিণ।

কেউ বলে সবই ভাগ্যের খেলা, কেউ দোহাই দেয় মেধা, সুযোগ, সম্ভাবনার। আসলেই কি তাই? একটু লক্ষ্য করলে দেখতে পাবে একজন সফল আর ব্যর্থ মানুষের চিন্তা-ভাবনা, অভ্যাস, কাজের ধরণে ছোট ছোট অনেকগুলো পার্থক্য রয়েছে। দিনের শেষে এই ক্ষুদ্র পার্থক্যগুলোই গড়ে দেয় যত ব্যবধান।আমরা সবাই স্বপ্ন দেখি জীবনে বড় হবো। কেউ হয়তো শুধু স্বপ্ন দেখি, কেউ হয়তো স্বপ্নটাকে ছোয়ার জন্য আরাম আয়েশ ত্যাগ করে রাতদিন খাটি। কিন্তু দেখা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই আমরা সফল হইনা। যখন ব্যার্থ হই তখন দেখা যায় আর পুনরায় পরিশ্রম করবার মত সময় নেই। ডুবে যেতে হয় হতাশায়। ব্যার্থতা আর হতাশা তখন আমাদের সব উদ্যম নষ্ট করে দেয়। না এখানেই সব শেষ নয়।

যেখান থেকে শেষ সেখান থেকে শুরু করে দেখুন।

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকন এর কথা সবাই জানি। আজকে শুধু তার দৃষ্টান্ত থেকে ব্যার্থতা একটি মানুষের কিভাবে সফলতায় রুপ নেয় সেই শিক্ষা নিতে পারি।ব্যর্থতাকে কিভাবে জয়ে পরিনত করতে হয়, নতুন করে শুরু করতে হয়, একবার হারিয়েছি বলে সব শেষ হয়ে গিয়েছে এটাই শেষ কথা নয়। একবার না পারিলে দেখো শতবার কথাটা যে সত্য সেটার সার্থকতা এখানেই। আজ আমরা হলে হয়তো হাল ছেড়ে দিতাম। বলতাম এসব আমার জন্য নয়। কিন্তু না তিনি ছিলেন আব্রাহাম লিংকন, অতি দরিদ্র অবস্থা থেকেই অসম্ভব স্বপ্নকে ছুয়েছিলেন। হয়েছিলেন আমেরিকার সর্বকালের সেরা প্রেসিডেন্ট। আমেরিকার গৃহযুদ্ধ ঠেকিয়েছিলেন, সাদা কালোর বিভেদ দুর করেছিলেন, সংকটময় মুহুর্তে আবির্ভাব হয়েছিলেন আমেরিকার ত্রাতা হিসেবে। কোয়ান্টাম মেথডের মতে পারবোনা বললেই আর পারবেননা। শুধু একবার পারবো বললেই অনেক কিছু সফল করা সম্ভব।পারবোনা বললে দেখবেন অনেক না পারার অজুহাত চলে আসবে।এটা সেটা বলবেন, হয়তো অজুহাত দেখাবেন, আপনি গরীব ঘরে জন্মেছেন, আপনি বস্তিতে জন্মেছেন, আপনার বাবার টাকা নেই, আপনি কালো, আপনি বেটে, আপনি পড়াশোনাই ভালোনা, আপনি নিচু জাতে জন্মেছেন। থাক আর বলবোনা। এবার দেখুন আপনার এসব অজুহাত কিছুনা। আপনি শুধু খুজে বের করুন আপনার প্রতিভা কিসে, কোনটা করতে ভালো লাগে, আর করুন নির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে পরিশ্রম। আর সব থেকে বড় কথা আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি। আমাদের মা বাবারা ছেলেকে কি বানাবেন জিজ্ঞাসা করলে সেই মান্ধাতা আমলের উত্তর, ডাক্তার বা ইন্জিনিয়ার, বোধ হয় জগতে এ ছাড়া আর পেশা নেই। আর কোন পথ নেই। A+ না পেলে তুমি ফিনিসড এটাই শিখানো হচ্ছে।মনে রাখতে হবে যেখানে ব্যার্থতার সমাপ্তি সেখান থেকেই সফলতার সুচনা হয়।ব্যার্থতার শেষ প্রান্তেই সফলতার সুচনাঃ
আমাদের একটা কথা মনে রাখতে হবে সবার আগে। কোন কাজ করার আগে একবার দুবার নয় প্রয়োজনে হাজার বার ভাবুন। কাজ শুরু করার পর ভাবলে তা দিয়ে খুব বেশী উপকৃত হওয়া যাবেনা। কারন তখন সময় আপনার সাথে ভাল ব্যবহার করার সুযোগ তৈরী করে দিবে না। ফুটা নৌকা নিয়ে নদী পার হতে পারবেন হয়ত কিন্তু পানি সেচার জন্য আপনাকে সময় তো বেশী ব্যয় করতেই হবে। সেই সাথে ঝুঁকি তো থাকবেই যে কোন মূহুর্তে ডুবে যাওয়ার।

আমাদের অজ্ঞতার সবচেয়ে বড় একটা জায়গা আমরা কারো কাছে ছোট হতে জানি না। নিজেকে জ্ঞানী ভেবে বড় হওয়ার জন্য প্রানান্তকর প্রচেষ্টা সবসময় থাকেই। এটা আরও একটা বড় ভুল। কারও কাছ থেকে কিছু নিতে হলে আপনাকে তার কাছে বিনয়ী হয়েই নিতে হবে। আর তার সাথে যদি আপনার লাভ হয় তবে আপনি ছোট হলে কি এমন ক্ষতি? জীবনে বড় হওয়ার একটা ছোট্ট কবচ দিব সকলের জন্য যদি মনে রাখা যায় তবে সাফল্য পাওয়ার জন্য সহজ হয়ে যাবে। খুবই পরিচিত কথা বড় যদি হতে চাও তবে ছোট হও আগে।

শুরু করার পর পিছনে ফেরার চিন্তা করার দরকার নাই। এগিয়ে চলতে থাকুন। আর একটা কথা পারেন তো নিজেকে নিজে প্রতিদিন অন্তত দিনে দশ বার বলে শোনান। আমি পারব। আমার দ্বারা যে কোন কঠিন কাজই করা সম্ভব। আমি হার মানার পাত্র না। আমি জিততে জানি। আমি পারব। আর কাজ করতে গিয়ে বিফল হলে অথবা ধৈর্য্য হারা হয়ে হতাশা আপনার পিছু নিলে নিজেকে বলুন যারা জীবনে বিফল হয়েছে তারা এইখানে এসেই থেমে গেছে। আমি এখনে নয় টার্গেটের শেষেই থামব। এই আত্মবিশ্বাস টুকুই আপনাকে নিয়ে যাবে সাফল্যের শীর্ষে। আপনি পাখা মেলবেন আকাশেরও ওপারে।

লেখকঃ মিজানুর রহমান মিজান
সম্পাদকঃ ডেইলি টেকনাফ ডটকম

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2016-2019 | Alokitoteknaf.com
Theme Customized By Shah Mohammad Robel