বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:২১ অপরাহ্ন

ভারত ‘পঞ্চম প্রজন্মের যুদ্ধ’ শুরু করেছে : পাকিস্তান

আলোকিত টেকনাফ
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট, ২০১৯
  • ৬৪ বার পঠিত

 আন্তর্জাতিক ডেস্ক:-

ভারত তাদের বিরুদ্ধে ‘পঞ্চম প্রজন্মের যুদ্ধ’ চালিয়েছে বলে অভিযোগ আনে পাকিস্তান। বর্ষার এই মৌসুমে কাশ্মীর নিয়ে যখন দেশদ্বয় যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে, সোমবার (১৯ আগস্ট) ঠিক তখন নয়াদিল্লি কোনো পূর্ব নোটিশ ছাড়াই একটি বাঁধ থেকে পানি ছেড়ে দেয়, যা পাকিস্তান সীমান্তজুড়ে বন্যার কারণ হতে পারে বলে অভিযোগ করে ইসলামাবাদ।

তবে, ভারত এই দাবি অস্বীকার করে বলেছে যে, দুদেশের মধ্যে একটি পানিচুক্তির শর্ত অনুসারে তারা সোমবার গভীর রাতে অতিরিক্ত পানি ছাড়ার বিষয়ে পাকিস্তানকে জানিয়েছিল, যখন তারা সীমানা ছাড়িয়ে একটি নির্দিষ্ট দ্বার পেরিয়েছিল।

ভারত শাসিত কাশ্মীরের বিশেষ অধিকার প্রত্যাহার করার জন্য চলতি মাসে ভারতের গৃহীত পদক্ষেপের জেরে প্রতিবেশীদ্বয়ের মধ্যে উত্তেজনা চরম পর্যায়ে রয়েছে। ক্ষুব্ধ পাকিস্তান ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের বিরুদ্ধে ভারতের সঙ্গে তাদের পরিবহন ও বাণিজ্য সংযোগ বন্ধ করে দিয়েছে এবং বহিষ্কার করেছে ইসলামাবাদস্থ ভারতের রাষ্ট্রদূতকে। বৈশ্বিক দরবারে ভারতের বিরুদ্ধে যখন কূটনৈতিক যুদ্ধে ব্যস্ত পাকিস্তান, ঠিক তখন ভারত তখন বাঁধ উন্মুক্ত করে দিল, যার অতিরিক্ত পানি পাকিস্তানকে প্লাবিত করবে।

ভারত থেকে পাকিস্তানে প্রবাহিত সুতলেজ নদীতে অপ্রত্যাশিতভাবে জল ছেড়ে দিয়ে নয়াদিল্লির দীর্ঘকালীন চুক্তি ভঙ্গ করার একটি প্রচেষ্টা বলে ইসলামাবাদ অভিযোগ করে। পাকিস্তান সরকারের পানি এবং বিদ্যুৎ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (ওয়াপদা) চেয়ারম্যান মুজাম্মিল হুসেন রয়টার্সকে বলেন, ‘তারা আমাদের কূটনৈতিকভাবে বিচ্ছিন্ন করার চেষ্টার পরে, অর্থনৈতিকভাবে শ্বাসরোধ করার চেষ্টা করে এবার আমাদের পানীয় সম্পদকে গলা টিপে হত্যার চেষ্টা করছে- এবং এই পানি স্বয়ংক্রিয়ভাবে অর্থনীতি, কৃষি এবং সেচের ওপর প্রভাব ফেলবে।’

হুসেন বলেন, ভারত তার উঁচু অবস্থানের সুবিধাকে এবার ‘পঞ্চম প্রজন্মের যুদ্ধ’ চালানোর জন্য ব্যবহার করছে। ভারতের ফেডারেল পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় সোমবার গভীর রাতে রয়টার্সকে জানায় যে, চুক্তির আওতায় এমন একটি পরিস্থিতিতে অগ্রিম তথ্য দেয়া দরকার যখন ‘জলাশয় এবং বন্যার প্রবাহ থেকে অতি মাত্রায় পানি ছাড়া হয়’ যা অন্য পক্ষের ক্ষতিসাধন করতে পারে।

চলতি বন্যা মৌসুমে ভারতের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত এ জাতীয় কোনো ব্যতিক্রমী পানি নির্গমন হতে দেখা যায়নি। ভারতের মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, স্থানীয় সময় ৭টার দিকে সুতলেজ নদীর প্রবাহ উচ্চ বন্যার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছেছে এবং তাই পাকিস্তানের কাছে জানানো হয়েছিল। মন্ত্রণালয় তার বিবৃতিতে জানিয়েছে চুক্তির প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধতার কথা জানায়।

পাকিস্তানের জরুরি কর্তৃপক্ষ সোমবার পাঞ্জাব রাজ্যের কয়েকটি এলাকায় সামান্য বন্যার প্রস্তুতি নিচ্ছিল, জল প্রবাহের অপ্রত্যাশিত বৃদ্ধির ফলস্বরূপ, যদিও এটি এখনও হয়েছে কি না তা পরিষ্কার নয়। পাঞ্জাব প্রাদেশিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের (পিডিএমএ) মহাপরিচালক খুররাম শাহজেদ রয়টার্সকে বলেন, ‘ভারত পানি ছেড়ে দেয়ার বিষয়ে পাকিস্তানের সঙ্গে আগে কোনো যোগাযোগ করেনি।’

ভারত ও পাকিস্তান দীর্ঘদিন ধরে জলের সংস্থান নিয়ে বিতর্ক চালিয়ে আসছে। সিন্ধু নদী এবং তার বিভক্ত শাখা প্রশমনকারী দেশগুলো নিয়ে- যা পাকিস্তানের ৮০ শতাংশ সেচযুক্ত কৃষির ওপর নির্ভরশীল- দেশগুলোর মধ্যে বিশ্বব্যাংকের মধ্যস্থতায় সিন্ধু জল চুক্তি নামে পরিচিত একটি চুক্তি রয়েছে।

ফেব্রুয়ারিতে কাশ্মীরে পাকিস্তান-ভিত্তিক জঙ্গি গোষ্ঠীর আত্মঘাতী বোমা হামলায় ৪০ জন ভারতীয় আধাসামরিক বাহিনির সদস্যকে হত্যা করার পরে পাকিস্তানের সাথে অতিরিক্ত জল ভাগাভাগি বন্ধ করার হুমকি দিয়েছিল উজানে অবস্থিত ভারত। ‘ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ‘খুব স্পষ্টভাবে হুমকি দিয়েছিলেন যে তিনি পাকিস্তানে জল বন্ধ করতে পারবেন। তিনি চুক্তি ব্যাপারে কোনো চিন্তা করেন না’ বলে জানান হুসেইন।

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2016-2019 | Alokitoteknaf.com
Theme Customized By Shah Mohammad Robel