You cannot copy content of this page

মাহে রমজান ইবাদত বন্দেগীরের মাধ্যমে জাহান্নাম থেকে পানাহ লাভের মাস- আল্লামা আব্দুল হালিম বোখারী

received_2317449101647158.jpeg
তাহের নঈম, ডুবাই থেকে।
মাহে রমজান সিয়াম সাধনা, আত্বশুদ্ধির ও কুরআন নাজিলের মাস।এই বরকতের মাসের রোজা পালন জান্নাত লাভের একটি মাধ্যম। নাবীয়ে করিম (সঃ) বলেছেন, যে ব্যক্তি আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের প্রতি ঈমান আনল, সলাত কায়েম করল, যাকাত আদায় করল, রমজান মাসে সিয়াম পালন করার বিনিময়ে আল্লাহর ওপর সে বান্দার অধিকার হলো তাকে জান্নাতে প্রবেশ করিয়ে দেয়া। ইসলামের পাঁচটি রুকনের একটি রুকন হল সিয়াম। আর এই সিয়াম পালন করা হয় রমজান মাসেই।তাই এই বরকতময় মাসে নিজেকে ইবাদতে আত্মনিয়োগ কারা সকল মুসলিমদের কর্তব্য।(২৪মে) শুক্রবার সংযুক্ত আরব আমিরাত শারজাহ, আল নামাত টাইপিং সেন্টার কর্তৃক আয়োজিত ইফতার মাহফিলে জামিয়া ইসলামিয়া পটিয়ার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আব্দুল হালিম বোখারী সাহেব এ কথা বলেছেন।
মাহফিলে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে দৈনিক কক্সবাজার ৭১ পত্রিকার সহ সম্পাদক সাংবাদিক মাওলানা মুহাম্মদ তাহের নঈম বলেন,আল্লাহ তা’আলা বলেন : হে মুমিনগণ! তোমাদের ওপর সিয়াম ফরজ  করা হয়েছে, যেমন ফরয করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তীদের ওপর। যাতে তোমরা মুত্তাকী হতে পার। রমজান মাসে জান্নাতের দরজাগুলো খুলে দেয়া হয় এবং জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়। হাদীসে এসেছে “যখন রমজান আসে তখন জান্নাতের দরজাগুলো খুলে দেয়া হয় আর জাহা্ন্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেয়া হয় এবং শয়তানদের আবদ্ধ করা হয়”। আর এজন্যই এ মাসে মানুষ ধর্ম-কর্ম ও নেক আমলের দিকে অধিক তৎপর হয় এবং মসজিদের মুসল্লীদের ভীড় অধিকতর হয়। তিনি মুমিন মুসলমানদের উদ্দেশ্যে বলেন,এ রমজান মাসের লাইলাতুল কদরের এক রাতের ইবাদত অপরাপর এক হাজার মাসের ইবাদতের চেয়েও বেশি উত্তম। অর্থাৎ ৮৩ বছর ৪ মাসের ইবাদতের চেয়েও বেশি সাওয়াব হয় এ মাসের ঐ এক রজনীর ইবাদতে। আল্লাহ তা’আলা বলেন, “কদরের একরাতের ইবাদত হাজার মাসের চেয়েও উত্তম। এ রাতে ফেরেশতা আর রূহ (জিবরীল আঃ) তাদের রব্ব-এর অনুমতিক্রমে প্রত্যেক কাজে দুনিয়ায় অবতীর্ণ হয়। (এ রাতে বিরাজ করে) শান্তি আর শান্তি— তা ফযর উদয় হওয়া পর্যন্ত থাকে” (সূরা ক্বদর : ৪-৫)। নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, এ মাসে এমন একটি রাত রয়েছে যা হাজার রাতের চেয়ে শ্রেষ্ঠ। যে ব্যক্তি এর কল্যাণ থেকে বঞ্চিত হল সে মূলতঃ সকল কল্যাণ থেকেই বঞ্চিত হল। এ পুরো মাস জুড়ে দু’আ কবূল হয়। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “এ রমজান মাসে প্রত্যেক মুসলমান আল্লাহর সমীপে যে দু’আই করে থাকে—তা মঞ্জুর হয়ে যায়। মাহে রমাযানে প্রতিরাত ও দিনের বেলায় বহু মানুষকে আল্লাহ তা’আলা জাহান্নাম থেকে মুক্তির ঘোষণা দিয়ে থাকেন এবং প্রতিটি রাত ও দিনের বেলায় প্রত্যেক মুসলিমের দু’আ— মুনাজাত কবূল করা হয়ে থাকে। এ মাস জাহান্নাম থেকে মুক্তি লাভের মাস। আসুন, সকলেই আল্লাহ তাআলার কাছে ইহকাল পরকালের কল্যান কামনা করি।গতকাল জুমাবার ২৪মে শারজাহ আবু শাগারাহ মেগা শপিং মল সংলগ্ন আল নামাত টাইপিং সেন্টারের নিজস্ব হলরুমে অনুষ্টিত উক্ত ইফতার মাহফিলে ইফতার পূর্ব আলোচনা সভায় পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত করেন মাওঃ নাঈমুল হাছান।এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন- আল নামাত টাইপিং সেন্টারের এমডি মোঃ জাফর আলম মাও. ওবায়দুল্লাহ, মাও.  নজিব উল্লাহ, মাও. নুরুল আলম,মাও. তারেক বিন ফকির, মাও. নুরুল আমিন, মাও.মোঃ ইউসুফ বিন জাফর প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।এছাড়া ইফতার মাহফিলে আমিরাতের বসবাসরত বিভিন্ন পেশাজীবি প্রবাসীরা উপস্থিত ছিলেন।
আপনার মন্তব্য দিন

Share this post

scroll to top