সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০১:০৮ পূর্বাহ্ন

শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য অবৈধ: হাইকোর্ট

আলোকিত টেকনাফ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ১৬ বার পঠিত

আদালত রায় দিয়েছে স্কুল-কলেজের শিক্ষকরা কোনো ধরনের কোচিং বাণিজ্য করতে পারবে না।

আমিনুল ইসলাম মল্লিক:-

দেশের সরকারি-বেসরকারি স্কুল-কলেজের শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য অবৈধ ঘোষণা করে রায় দিয়েছে হাইকোর্ট। পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধ নীতিমালা-২০১২কে বৈধ ঘোষণা করেছে আদালত।

৭ ফেব্রুয়ারি, বৃহস্পতিবার সরকারের ওই নীতিমালা নিয়ে কয়েকটি পাঁচটি পৃথক রিটের চূড়ান্ত শুনানির পর বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাই কোর্ট বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এই রায় দেয়।

আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মোখলেছুর রহমান। রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার তানিয়া আমীর ও মো. নাসিরুদ্দিন।

এ রায়ের ফলে সরকারি-বেসরকারি স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি ‘শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধ নীতিমালা-২০১২’ কার্যকর হচ্ছে বলে মোখলেছুর রহমান জানান।

তবে রায়ের বিষয়টি নিয়ে প্রিয়.কমকে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, ‘আদালত রায় দিয়েছে সরকারি স্কুল-কলেজের শিক্ষকরা কোনো ধরনের কোচিং বাণিজ্য করতে পারবে না। কিন্তু বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের ক্ষেত্রে এ নিয়ম প্রযোজ্য হবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজের শিক্ষকদের কোচিং নিয়ে দুদক যে তদন্ত করেছে, সেটাকে হাইকোর্ট এখতিয়ার বহির্ভূত বলেছে। যেহেতু সেটি একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, তাই সরকারি কর্মচারীদের জন্য নীতিমালা তাদের জন্য প্রযোজ্য হবে না।’

আদালত রায়ে বলা হয়েছে, দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত বড় বড় রাঘববোয়ালদের ধরে এনে ছেড়ে দিয়ে শুধু দুর্বলদের নিয়ে দুদক ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। যেখানে ব্যাংকের হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট হয়ে যাচ্ছে, সেখানে প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষকরা স্কুলে যাচ্ছেন কি যাচ্ছেন না, তা নিয়ে তারা ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। ছোট দুর্নীতির আগে বড় বড় দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়া প্রয়োজন। তবেই দুর্নীতি নির্মূল করা সম্ভব হবে।

রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে, কোচিং বাণিজ্য অনুসন্ধান এবং তদন্ত করার এখতিয়ার দুদকের রয়েছে। তবে দুর্নীতি দমন কমিশনের একটি অগ্রধিকার তালিকা থাকতে হবে, কোন বিষয়ে কমিশন তদন্ত বা অনুসন্ধান করা হবে। কারণ দুদকের পর্যাপ্ত জনবল নেই। কাস্টমস হাউজ, ব্যাংক, বন্দর, ভূমি অফিসের দুর্নীতির বিষয়ে ক্ষুদ্র পরিসরে তদন্ত বা অনুসন্ধানে দুদকের সুযোগ নেই। বরং এসব খাতে গুরুতর দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। অগ্রাধিকারভিত্তিতে এ ধরনের অভিযোগে নজর দিতে হবে।

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2016-2019 | Alokitoteknaf.com
Theme Customized By Shah Mohammad Robel