বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১২:৫০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
নববধূ সেজে ঢাকা থেকে ইয়াবা কিনতে এসে পুলিশের হাতে ধরা উখিয়া ক্যাম্পে অস্ত্র ও ইয়াবাসহ দুই রোহিঙ্গা গ্রেফতার কক্সবাজারে পুলিশের উপিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার

অনিরাপদ টেকনাফের সড়ক !ফিটনেস ও লাইসেন্স বিহীন যানবাহনের ছড়াছড়ি

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৬ আগস্ট, ২০১৮
  • ২৯৫ Time View

নিউজ ডেস্কঃ-

ঢাকা থেকে শুরু করে কক্সবাজার সহ দেশের সর্বস্তরে যখন “নিরাপদ সড়ক চাই” এর দাবী উঠেছে তখন

টেকনাফের পরিবহনের মালিকগণ অনিরাপদ বা অদক্ষ ও কম বয়সি চালকদের হাতে গাড়ী তুলে দিচ্ছে।

সচেতন মহলের অভিমত, সারাদেশের ন্যায় স্কুল কলেজের ছাত্রদের ধারা অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্হিতি সৃষ্টি হওয়ার আগেই টেকনাফের পরিবহন খাতের অনিয়ম গুলোর সমাধান প্রয়োজন।

যানা যায়: উপজেলার সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের মনিটরিং না থাকার বিভিন্ন সড়ক ও অলি গলিতে রেজিষ্ট্রেশন, রুট পারমিট ও ফিটনেস বিহীনভাবে চলাচল করছে হাজার হাজার যানবাহন। পাশাপাশি এ সব গাড়ীর অধিকাংশ চালকরাই আবার শিশু নয়তো অদক্ষ ।

এসব অদক্ষ চালকের করনে প্রতিনিয়ত সড়কে আশংকাজনক হারে বেড়ে চলেছে দূর্ঘটনা ও প্রাণহানি।

অভিযোগ উঠেছে, অধিকাংশ যানবাহনের মালিক দায়িত্বরত ট্রাফিক সার্জেন্টদের সাথে আতাত করে এবং অলিখিত মাসিক চুক্তি করে বছর পর বছর টিকেয়ে রেখেছে নিজেদের পরিবহন ব্যবসা।এবং সরকারের

ট্রাফিক আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে এসব ফিটনেস বিহীন গাড়ী গুলো কম পারিশ্রামিক দিয়ে অদক্ষ অনভিজ্ঞ, অপ্রাপ্ত বয়স্ক চালকদের হাতে তুলে দে গাড়ী।

যার কারেনে সড়কে ট্রাফিক পুলিশের উপস্থিতি থাকলেও কার্যকরী পদক্ষেপ না থাকায় এসব পরিবহন সেক্টরে নৈকরাজ্য কোন দিনই বন্ধ হচ্ছে না।

অন্যদিকে , পরিবহনে সেক্টরের একশ্রেণীর দালালচক্র সড়কে কোন ধরনের দূর্ঘটনা ও প্রাণহানি গঠলেই , এসব দূর্ঘটনা ও প্রাণহানী রফদফা করতে উঠে পড়ে লাগে। ঘটনার শিকার নিহতদের পরিবার কে আইনের মারপ্যাচ বুঝিয়ে মামলা করা থেকে বিরত রাখে।

এ সুযোগে চালকরা সামান্য ভাড়ায় যাত্রী উঠানামার জন্য নিয়মিত প্রতিযোগিতা লিপ্ত থাকে। ফলে ওভারটেক, রাস্তার মাঝখানে অবৈধভাবে দীর্ঘসময় গাড়ী দাঁড় করিয়ে যাত্রী উটানামা, ধারণ মতার চেয়ে অধিক যাত্রী বহনসহ নানান কারণে প্রতিনিয়ত ঘটছে ভয়াভহ যানযট ও সড়ক দূর্ঘটনা।

গত ৪ ই এপ্রিল হ্নীলা মোচনী গেইট সংলগ্ন এলাকায় টেকনাফ একটি ডাম্পার গাড়ি যাওয়ার সময় অনুপ্রবেশকারি মোচনী নয়াপাড়ার ই-ব্লকের লালু মিয়ার মেয়ে ইসমত আরা (৪) কে ধাক্কা দিলে প্রধান সড়কে পড়ে রক্তাক্ত হয়। তাকে উদ্ধার করে পাশের একটি হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যায়।

গত মে মাসে টেকনাফ জাদিমুরা এলাকায় ডাম্পারের ধাক্কায় সিএনজি উল্টে কক্সবাজার জেলা বিএনপির সহ–সভাপতি সিরাজুল হক বিএন ও জেলা বিএনপির সদস্য সিরাজুল হক ডালিম নিহত হন।বিভিন্ন সুত্রে যানা যায়: রেজিষ্ট্রেশন, রুট পারমিট, ফিটনেস বিহীন, অদ চালক দিয়ে চলছে হাজারো মিনি বাস, মাইক্রো-হাইয়েছ, ডাম্পার, জিপ-চাঁন্দের গাড়ী, টেম্পো-ট্যাক্সি, সিএন্ডজি, মোটর সাইকেল, নছিমন (পানির মেশিনে তৈরি গাড়ী) নানান ধরনের যানবাহন। এসব যানবাহনের অধিকাংশ চালকের নেই ড্রাইভিং লাইসেন্স, নেই কোন রুট পারমিট, জানা নেই ট্রাফিক নিয়মনীতি।

তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, চলাচলকারী অধিকাংশ যানবাহনের চালকরা অদক্ষ অনভিজ্ঞ, অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় এরা ভূয়া লাইসেন্স, রুট পারমিট সংগ্রহ করে দিনের পর দিন বিভিন্ন সড়কে যানবাহন চালিয়ে যাচ্ছে। তাই তারা জানে না যানবাহন চালানোর নিয়মনীতি।এমনকি যানবাহনে চলন্ত অবস্থায় মোবাইল ফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ থাকলেও এ নিয়মের ধার ধারে না এসব অদরা, অনভিজ্ঞ, অপ্রাপ্ত বয়স্ক চালকের হাত ধরে উঠে আসে উত্তরসূরীরা। প্রথমে তারা বিভিন্ন যানবাহনের সহকারী হিসেবে কাজ নিয়ে যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়া আদায়, গাড়ী ধোয়া-মোচার কাজ করে। সুযোগ হলে গাড়ী ষ্টার্ট দিয়ে দূর্ঘটনা ঘটায় ।কোন রকম গাড়ী চালাতে পারলে পরিবহন সেক্টরের বিভিন্ন দালালদের মাধ্যমে বিআরটিসি’র কতিপয় অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজসে ভূয়া লাইসেন্স সংগ্রহ করে এসব অনিয়মের কারণে প্রতিদিন কোন না কোন সময় পথচারী ও যাত্রীরা এসব চালকদের দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, টেকনাফ উপজেলার অধিংকাংশ মিনি বাস, মাইক্রো-হাইয়েছ, ডাম্পার, জিপ-চান্দের গাড়ী, টেম্পো-ট্যাক্সি, সিএন্ডজি, মোটর সাইকেল, নছিমন-করিমন চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্সসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও অভিজ্ঞতা নেই।

এসব নিয়ন্ত্রণ করতে গেলে রাজনৈতিক লেভেলের শ্রমিক নেতাদের চাপের মুখে তা হয়ে উঠে না। এ বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপকে অবহিত করা হয়েছে বলে জানান।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH