অর্থমন্ত্রী বললেন, ১০ বছরে জিনিসপত্রের দাম বাড়েনি

।। আলোকিত নিউজ ডেস্ক ।।

গত ১০ বছরে দেশে জিনিসপত্রের দাম বাড়েনি দাবি করে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, ‘আমি দেশবাসীকে এ সুসংবাদ দিতে চাই যে, গত ১০  বছরে দেশে কোনো ধরনের জিনিসপত্রের দাম বাড়েনি। এবারও বাজেটের পর জিনিসপত্রের দাম বাড়বে না।’

সোমবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ২০১২ ভ্যাট আইন অনুযায়ী আমাদের কমিন্টমেন্ট ছিল ভ্যাটের স্তর একটি করা। কিন্তু সেটা আমরা করতে পারিনি। তবে আমরা আগামী বাজেটে ভ্যাটের স্তর ৯টি থেকে কমিয়ে ৫টিতে নামিয়ে আনবো। তবে মূল টার্গেট হচ্ছে তিন স্তরে নামিয়ে আনা। ভ্যাটের সর্বোচ্চ হারটা ১৫ শতাংশই থাকবে। নিচেরগুলো পরিবর্তন করা হবে।

তিনি বলেন, চলতি অর্থবছরে রাজস্ব আয় সব থেকে বেশি হয়েছে ভ্যাটের মাধ্যমে। আগামী বছরে তাই থাকবে আর দ্বিতীয় অবস্থানে আয়করকে রাখার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আসন্ন বাজেটে নতুন করে কোনো কর আরোপ হবে না। এটা জনগণের জন্য সুখবর।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ট্যাক্স অফিসের সংখ্যা অনেক বাড়ানো হয়েছে। বর্তমানে ২০০টি উপজেলা পর্যায়ে ট্যাক্স অফিস রয়েছে। আগামীতে প্রতিটি উপজেলায় ট্যাক্স অফিস স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এটা বাস্তবায়ন করতে হয়তো দু-তিন বছর সময় লাগবে।

সিগারেট ও মোবাইল কোম্পানিগুলোর জন্য ট্যাক্সের কোনো হেরফের হবে না জানিয়ে তিনি বলেন, এক্ষেত্রে আগেও ৪৫ শতাংশ ছিল এবারও একই পরিমাণ থাকবে। তবে ব্যাংকসহ আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সর্বোচ্চ করপোরেট ট্যাক্স হবে ৩৭ দশমিক ৫ শতাংশ।

বাজেটে রোহিঙ্গাদের জন্য বরাদ্ধের বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এবারের বাজেটে রোহিঙ্গাদের জন্য ৪শ কোটি টাকার মতো বরাদ্দ থাকছে।

তবে এবারের বাজেটে এনার্জি খাতে বেশি গুরুত্ব দেয়া হবে বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

আগামীকাল মঙ্গলবার ৫ জুন থেকে জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন শুরু হচ্ছে। ৭ জুন বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় অর্থমন্ত্রী আগামী ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের বাজেট পেশ করবেন। ৮ জুন শুক্রবার অর্থমন্ত্রী বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেবেন।

বাজেটের আকার নিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এবারের বাজেটের আকার হতে পারে ৪ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার মতো।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *