মঙ্গল. আগ ৪, ২০২০

আলোকিত টেকনাফ

বিশ্বজুড়ে টেকনাফের প্রতিচ্ছবি

অ-মানুষের চেয়ে মানুষের সংখ্যাই বেশি সেটাই প্রমান করল টেকনাফের “মারোত” ও “ডাক্তার”

১ min read

শরীফ আজাদ

টেকনাফের সাবরাং রাস্তায় পড়ে থাকা দেলোয়ারা বেগম নামে এক মানুষিক রোগির জীবন বাচাল টেকনাফের মারোত সদস্যা ও ডাক্তার। রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখে হাসপাতালে নিয়ে যায় মারোতের সভাপতি অাবু সুফিয়ান,পরে ডাক্তার এনামুল হক ও শুভন দাশের নিবিড় পরিচর্যায় বেছে গেলেন মানুষিক রোগি দেলোয়ারা।

জানাযায়, মারোতের সহ- সভাপতি ঝন্টু বড়ুয়া গত ২৬ অক্টোবর টেকনাফের সাবরাং বাজার থেকে অসুস্থ অবস্হায় টেকনাফ সদর হাতপাতালে নিয়ে যায় সভাপতি অাবু- সুফিয়ানের সহযোগিতায়। পরে ডাক্তারা তার চিকিৎসা দিয়ে তাকে সুস্হ করে তুলে।

দেলোয়ারার সব আছে। তবে এতিম এই মহিলা। চারটি আপন ভাই তাকে দুই বেলা দু-মোটু ভাত দিতে পারে না। তাইতো তিন বছর রাস্তায় পড়ে থেকে বৃষ্টিতে ভিঁজে রোদ্রে পুঁড়ে ২০০ কিলোমিটার পথ পায়ে হেটে রাউজান থেকে টেকনাফ চলে আসে। ঠিকমত খেতে না পেরে। থাকতে না পেরে মানষিক অঘাত পেয়ে সে আজ অসুস্হ।

টেকনাফ এসে অসুস্হ হয়ে পড়লে মানসিক রোগীদের তহবিল (মারোতের) এর সদ্যসরা তাকে টেকনাফ হাসপাতালে ভর্তি করেন। নিজেদের উদ্যোগে তাকে রক্ত দিয়ে চিকিৎসার মধ্যদিয়ে জীবন বাচানোর চেষ্টা করে। বতমানে সে আগের ছেয়ে অনেক সুস্হ আছে।

কর্তব্যরত চিকিৎসক এনামুল হক জানান, তাকে যখন নিয়ে অাসে তখন তার শরির থেকে দুর্গন্ধ বের হচ্ছিল। হাসপাতালের রুগিরা বিব্রত বোধ করছিল। তার পরেও মারোতের সদস্যের সহযোগিতার তাকে সুস্হ করার সম্ভব হয়েছে। তাকে রক্ত দিয়ে বাচাতে হয়েছে। সে এখন সুস্হ অাছে।

টেকনাফের মারোত সভাপতি আবু সুফিয়ান জানান, আমরা আমাদের মারোত কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি বাবু ঝুন্টু বড়ুয়ার মাধ্যমে তার ঠিকানা বের করতে সক্ষম হই। তার পরিবারের লোকজন এর সাথে যোগাযোগ করি। তবে দুঃখের বিষয় দেলোয়ারা বেগমের চার ভাই আবু, আব্দুর রহিম, আবু বক্করের পিতা কমল অাহাম্মদ,গ্রাম-কদল পুর আমির পাড়া,আতর আলী পন্ডিতের বাড়ী,পো-মধ্যম কদল পুর থানা- রাউজান,জেলা- চট্রগ্রাম কে খবর দেবার পর তারা তাকে বাড়ি নিতে রাজি হচ্ছে না। আমি ধিক্ষার জানাই সেই ভাই রুপি অমানুষদের।

ঝন্টু বড়ুয়া বলেন, আমি রাউজান এলাকার এমপি মহোদয়, উপজেলা চেয়ারম্যান, কদলপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সহ প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করিছি। যারা এই মহিলাকে অসহায় অবস্থায় রেখে নিজেরা আরামে জীবন কাটাচ্ছে তাদের উপযুক্ত শাস্তি দাবি করেছি।

আপনার মন্তব্য দিন
error: বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে এই সাইটের কোন উপাদান ব্যবহার করা সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ এবং কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ।