রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৩:২১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর

আমরা নিজেরা কতটুকু সচেতন?

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২১ জুলাই, ২০১৮
  • ৩৪১ Time View

সাইফুল ইসলাম।—-

টেকনাফ ডিগ্রী কলেজের এইচ এস সি পরীক্ষার ফলাফল বিপর্যয় নিয়ে অনেক আলোচনা ও সমালোচনা হচ্ছে। যা কিন্তু স্বাভাবিক। প্রত্যাশা অনুযায়ী ফলাফল না হলে ভিন্ন ভিন্ন প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হবে। এটাই বাস্তবতা। এখন প্রশ্ন হচ্ছে তবে এই অস্বাভাবিক ফলাফল বিপর্যয়ের জন্য শুধু কী কলেজ কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষকরাই দায়ী?

যারা অভিভাবক রয়েছে তাঁদের উপর কী আংশিক দায় বর্তায় না? আমাদের অভিভাবকরা কী কখনো কলেজে গিয়ে তাঁর সন্তানকে কী পাঠ পড়ানো হচ্ছে এবং তাঁর সন্তান কী নিয়মিত কলেজে যায় এগুলো দেখে ? নাকী বাড়ী থেকে কলেজে যাবার নাম ধরে কলেজ ফাঁকি দিচ্ছে অথবা অন্য কোথাও আড্ডায় মত্ত রয়েছে। কখনো কী অভিভাবকরা কলেজে গিয়ে উঁকি মেরে দেখে?

আর এখন রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের কারণে টেকনাফ উপজেলায় বিভিন্ন দেশি ও বিদেশি এনজিওর ছড়াছড়ি। এই সকল এনজিওতে লোভনীয় বেতনের চাকরির প্রলোভনে পড়ে বিভিন্ন বিদ্যালয়,মাদ্রাসা ও কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন তদবির ও কৌশলের মাধ্যমে সেসব এনজিওতে ঢুকে পড়ছে। তারা কী জানেনা এই চাকরিগুলি ক্ষণস্হায়ী? রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তন কার্যক্রম শুরু হওয়ার সাথে সাথে এনজিও গুলো তাঁদের কার্যক্রম ও গুটিয়ে নেবে। তখন তাঁদের কী হবে? সাময়িক লাভের আশায় লেখাপড়া বাদ দিয়ে,ক্লাস বাদ দিয়ে আমরা চাকরি করে যাচ্ছি। আমাদের আসল কাজ বাদ দিয়ে নকলের পেছনে ছুটছি।

আর আমরা অভিভাবকরা সচেতন হওয়া সত্ত্বেও আমাদের স্কুল ও কলেজ পড়ুয়া সন্তানদের এই সকল অস্হায়ী চাকরিতে যোগদানের ক্ষেত্রে নিরবতা পালন করছি। অথচ ভালো ভাবে পড়ালেখা সম্পন্ন করতে পারলে একজন ছাত্রের যেকোন সরকারি অথবা বেসরকারি পর্যায়ের চাকরি পেতে তেমন অসুবিধা হয়না। অল্প বয়সে টাকার মোহ আমাদের স্কুল ও কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের আসলটা গ্রাস করে নিচ্ছে।

এই জন্য অভিভাবকের পাশাপাশি এনজিও সংস্হাগুলো দায় এড়াতে পারেনা। একজন দশম শ্রেণি পড়ুয়া শিক্ষার্থী যখন চাকরির জন্য ডিগ্রী পাশের ভুয়া সার্টিফিকেট বানিয়ে সিভি তৈরি করে এনজিওতে জমা দেয় তখন এনজিওগুলো কোন ধরনের যাচাই না করে তাঁদের নিয়োগ দিয়ে দেয়। এতে ঐ শিক্ষার্থী সাময়িক লাভবান হলেও ভবিষৎ কিন্তু অনিশ্চয়তায় পড়ে যায়। তাই সময় থাকতে সকল অভিভাবকদেরকে তাঁদের সন্তানদের ব্যাপারে আরো বেশি দায়িত্ববান ও সতেচন হতে হবে। পাশাপাশি স্কুল ও কলেজের ব্যবস্হপনা কমিটি ও শিক্ষকদের আরো বেশি আন্তরিক হতে হবে অন্যথায় এই ফল বিপর্যয় চলমান থাকলে টেকনাফের শিক্ষা মান দিন দিন অন্ধকারে পর্যবসিত হবে।

লেখক-

মাষ্টার সাইফুল ইসলাম

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH