শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০২:৪৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

ইউএস-বাংলা বিমান ট্র্যাজেডি: পাইলটের দোষই যেন নেপালী তদন্তের উদ্দেশ্য।

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৪৪৭ Time View

 

পৃথিবীর শীর্ষ দশ বিপজ্জনক বিমানবন্দরের অন্যতম নেপালের ত্রিভুবন বিমানবন্দরে কয়েক দিন আগেও মুখ থুবড়ে পড়ে ছিল তার্কিশ এয়ারলাইনসের একটি এয়ারবাস।  দীর্ঘ সময় পড়ে থাকার পর নামমাত্র মূল্যে এটি বিক্রি করে দিয়েছে এয়ারলাইনস কর্তৃপক্ষ। এটিকে বিমান জাদুঘর হিসেবে ব্যবহার করার জন্য কিনেছেন এক নেপালি। ২০১৫ সালের ৪ মার্চ ল্যান্ডিয়ের সময় দুর্ঘটনায় পড়ে নতুন এই বিমানটি। নেপালের তদন্ত কমিটি এ দুর্ঘটনার জন্য দায়ী করেছে এয়ারবাসের পাইলট ও ক্রুদের। তবে নিরাপত্তা নিশ্চিতে যে ২১টি প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে তার ১২টিই ত্রিভুবন বিমানবন্দর সম্পর্কিত। পরে ২০১৬ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি নেপালের অভ্যন্তরীণ এয়ারলাইনস কাসথামানডাপের পিএসি-৭৫০ এক্সএল, ২০১৭ সালের ২৭ মে গামা এয়ারের এলইটি-৪১০, ৩০ মে নেপাল আর্মির স্কাইট্রাক এবং চলতি ২০১৮ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি তারা এয়ারের টুইন আটার বিমান বিধ্বস্তের ঘটনার তদন্ত করে সিভিল এভিয়েশন অথরিটি অব নেপাল যে প্রতিবেদন দিয়েছে তার প্রত্যেকটিতেই দায়ী করা হয়েছে দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো পাইলটকেই। এভিয়েশন নিরাপত্তার ক্ষেত্রে নিজেদের গাফিলতির কথা বার বার এড়িয়ে গেছে নেপালের সিভিল এভিয়েশন।

নেপালি পাইলট সুরাজ ভাণ্ডারি হিমালয় টাইমস পত্রিকায় কলামে  লিখেছেন, বার বার শুধু পাইলটেরই দোষ খুঁজে পায় সিভিল এভিয়েশন। এত এত অভিজ্ঞ পাইলটরা সারা বিশ্বে চালিয়ে এসে কেন নেপালেই এক্সিডেন্ট করে। এটা কি কেউ বোঝে না। আর যাই হোক পাইলটের দোষ দিয়ে নেপালের এভিয়েশন নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব নয়। পাইলট সুরাজ ভাণ্ডারি লিখেছেন, নেপালে সিরিজ বিমান দুর্ঘটনা ঘটে চলেছে। প্রত্যেকবারই তদন্ত কমিটি হয়। প্রত্যেকবারই কমিটি খুঁজে পায় ‘হিউম্যান ইরর’ (মানবসৃষ্ট সমস্যা)। তারা, গামা, নেপাল আর্মি, এমনকি তার্কিস এয়ারের ক্ষেত্রেও তাই। এসব নামকাওয়াস্তে প্রতিবেদন কখনই পাইলটদের মনে স্থান পায় না। কারণ এসব কমিটি কখনই এয়ারলাইনস ম্যানেজমেন্ট এবং এয়ারপোর্টের নিরাপত্তার বিষয়গুলো দেখতে পায় না। এদের নজরেই পাইলটের দোষ ছাড়া অন্য কিছু পড়ে না। কাঠমান্ডু পোস্ট নামে নেপালের আরেকটি গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, ইউরোপে নেপালের এভিয়েশন পুরোপুরি নিষিদ্ধ, এটা নিয়ে অনেকেই হায় হায় করেন। কিন্তু আসলে ইউরোপ কেন নিষিদ্ধ করেছে তা নিয়ে নেপালের কর্তৃপক্ষ খুব একটা কথা বলে না। কারণ ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন নেপালি এভিয়েশন নিষিদ্ধ করার প্রধান কারণ হিসেবে বলেছে, ইইউর নিরাপত্তাবিষয়ক কর্মকর্তারা নেপালের সিভিল এভিয়েশন অথরিটিকে (বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ) বিশ্বাস করে না। ‘ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এয়ার সেফটি লিস্ট’ বা নিরাপদ আকাশ ভ্রমণ তালিকায় যেসব বিপজ্জনক এয়ারলাইনস অন্তর্ভুক্ত আছে, সেগুলো বেশিরভাগই স্বল্প পরিচিত। এগুলো আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা মানদণ্ড বা সেফটি স্ট্যান্ডার্ড মেনে চলতে সক্ষম নয়। এর মধ্যে নেপালের ১৭টি এয়ারলাইনসের সবই এ তালিকায় রয়েছে। সর্বশেষ ত্রিভুবন এয়ারপোর্টে বাংলাদেশের ইউএস-বাংলার বিমান দুর্ঘটনার পর নেপালের পত্রিকা মাই রিপাবলিকের একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, দুর্ঘটনার পর এভিয়েশন ইঞ্জিনিয়ারদের দল বিধ্বস্ত বিমানের স্পটে পৌঁছাতে এক ঘণ্টা লাগিয়েছে। ইঞ্জিনিয়ারদের অনুপস্থিতিতে ফায়ার সার্ভিস ও আর্মির সদস্যরা ঠিক কীভাবে আগুন নেভানো যায় তা বুঝতেই পারছিলেন না। মাই রিপাবলিকের প্রশ্ন, জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় সার্বক্ষণিক এয়ারপোর্টে থাকার কথা এভিয়েশন ইঞ্জিনিয়ারদের একটি দল। আর ত্রিভুবন এয়ারপোর্টও খুব ছোট। এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে গাড়িতে যেতে ১০ মিনিটও লাগে না। তাহলে এভিয়েশন ইঞ্জিনিয়ারদের দলটি কি সেসময় বিমানবন্দরে ছিল না? তারা কি বাইরে থেকে এসেছে? তাহলে ত্রিভুবন এয়ারপোর্ট অথরিটি ও নেপাল সিভিল এভিয়েশন অথরিটি উদ্ধার তৎপরতায় নিজেদের কৃতিত্ব দাবি করে তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলছে কী করে?

ইউএস-বাংলার এয়ারক্রাফট বিধ্বস্ত হওয়ার আগে-পরে বিভিন্ন দফায় কাঠমান্ডু ফ্লাইট পরিচালন করা বাংলাদেশি এক পাইলটের মতে, নেপালের বিমান ব্যবস্থাপনা নিয়ে নেপালি পাইলটরা যথেষ্ট বিরক্ত। এখন দেখা যায়, ইউএস-বাংলার তদন্ত প্রতিবেদনে নেপালের অভ্যন্তরে আলোচিত এসব বিষয় উঠে আসে কিনা, নাকি তারা আগের মতোই শুধু পাইলটকে দোষারোপ করে। আইকাও-এর নিয়ম অনুসারে এপ্রিলের প্রথম ভাগে ইউএস-বাংলার বিধ্বস্তের বিষয়ে প্রাথমিক প্রতিবেদন দিতে নেপাল এভিয়েশন বাধ্য বলেও জানান এই পাইলট। জানা যায়, ভৌগোলিক কারণেই এভিয়েশনের জন্য অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ নেপাল। এভিয়েশন সেফটি নেটওয়ার্কের (এএসএন) তথ্য মোতাবেক সর্বশেষ ইউএস-বাংলার দুর্ঘটনাসহ গত আট বছরে ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে (টিআইএ) নয়টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। বৈমানিকদের মতে, কাঠমান্ডুর বিমানবন্দরে বিমান নামানোর ক্ষেত্রে পাইলদের সবসময় চ্যালেঞ্জের মুখে থাকতে হয়। সেখানে রানওয়ের একপ্রান্তের ঠিক পেছনেই পাহাড়, পাহাড় পেরোনোর পর খুব দ্রুত পাইলটকে বিমান নামাতে হয় রানওয়েতে। রানওয়ের একপাশে কিছুটা সমতল জায়গা রয়েছে, আরেক পাশে রয়েছে গভীর খাদ। যার কারণে এটি বিশ্বের ১০টি ঝুঁকিপূর্ণ বিমানবন্দরের একটি। কিন্তু এই ঝুঁকি আরও বেড়ে যায় যখন অবতরণের অনুমতির জন্য নেপালের আকাশে এয়ারক্রাফটগুলোকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঘুরতে হয়। ত্রিভুবনের কন্ট্রোল রুম থেকে যখন অপেশাদার বার্তা দেওয়া হয় এবং সব কিছু দেখেও নিজেদের পিঠ বাঁচাতে নেপালের বিমান ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ যখন চোখ ঢেকে রাখে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH