সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:৫৬ পূর্বাহ্ন

ইয়াবা ঠেকাতে টেকনাফে হচ্ছে বিশেষ জোন

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৫ জুন, ২০১৮
  • ৩৯৪ Time View

ম সাহাদাত হোসেন পরশ,সমকাল :-

দেশজুড়ে চলছে মাদকবিরোধী অভিযান। এ জন্য প্রশংসার সঙ্গে সমালোচনাও কুড়াতে হচ্ছে প্রশাসনকে। তবে সুস্থ ও সুন্দর প্রজন্মের স্বার্থে মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছে সরকার। এই নীতি বাস্তবায়নে প্রধান দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। শুরু থেকে প্রতিষ্ঠানটি মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করে যাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে তাদের সফলতা-ব্যর্থতা দুই-ই আছে। বিশেষ করে মারণনেশা ইয়াবার ব্যবসা কেন নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না এবং দিনকে দিন মাদকসেবীর সংখ্যা কেন বেড়ে যাচ্ছে, তা নিয়ে প্রশ্ন আছে। জীবনের জন্য হুমকি- এমন সব মাদকদ্রব্যের বেশির ভাগই দেশের বাইরের। সেগুলোর প্রবেশ ঠেকানোই মাদক নিয়ন্ত্রণের প্রধান চ্যালেঞ্জ। প্রশ্ন আছে- এ ক্ষেত্রে অগ্রগতি কতদূর। এমন কিছু জরুরি প্রশ্ন ও মাদক নিয়ন্ত্রণের বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত নিয়ে সমকালকে বিশেষ সাক্ষাৎকার দিয়েছেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক জামাল উদ্দীন আহমেদ। মাদক নিয়ন্ত্রণের সর্বশেষ অবস্থা জানালেন তিনি।

সমকাল :মাদক নিয়ন্ত্রণে আগামী এক বছরে কী কী বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে?

জামাল উদ্দীন :প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছেন। আমরা সেই নীতি বাস্তবায়নে কাজ করছি। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর বহুমুখী কার্যক্রম শুরু করেছে। জনবল বাড়ানোর প্রক্রিয়া চলছে। আধুনিক যন্ত্রপাতির সমন্বয় করা হবে।

সমকাল :মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মীদের হাতে অস্ত্র নেই। এভাবে মাদক ব্যবসায়ীদের প্রতিরোধ করা সম্ভব কি?

জামাল উদ্দীন :আগামী এক বছরে ওয়াকিটকি সংযোজন থেকে শুরু করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের নেটওয়ার্ক বাড়ানো হবে। এটা সত্যি, আমাদের কর্মীদের হাতে অস্ত্র নেই। মাদক

ব্যবসায়ীদের মোকাবেলায় এটি বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ। তবে কর্মীদের হাতে অস্ত্র দেওয়া হলে কাজ করা আরও সহজ হতো। সরকারের কাছে প্রস্তাব দেওয়া আছে। বিশেষ করে ক্ষুদ্রাস্ত্রও যদি দেওয়া হয়, তাহলে কর্মীরা আরও বেশি ঝুঁকি নিতে আগ্রহী হবেন।

সমকাল :ইয়াবা এখন সবচেয়ে ভয়ঙ্কর নেশা। এটা ঠেকাতে আপনাদের চ্যালেঞ্জ কোথায়?

জামাল উদ্দীন :ইয়াবা বহন সহজ বলে এটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। লাভও বেশি। ফলে মাদক ব্যবসায়ীরা এর প্রতি বেশি আগ্রহী। তবে ইয়াবা কারবারিদের বিরুদ্ধে কঠোর অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তাদের আইনের আওতায় আনতে সব ধরনের কার্যক্রম চলছে।

সমকাল :ইয়াবার উৎসমূলে যথেষ্ট প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা না নিয়ে অভ্যন্তরীণ অভিযানের সফলতা নিয়ে জনমনে সন্দেহ আছে। আপনার মন্তব্য কী?

জামাল উদ্দীন :যখন অভিযান পরিচালিত হয়, তখন তা হয় সর্বাত্মক। মাদকের উৎসমূল টেকনাফে ইয়াবা প্রতিরোধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর একটি বিশেষ ইউনিট গঠন করেছে। টেকনাফে ইয়াবাবিরোধী বিশেষ জোন প্রতিষ্ঠা করতে সরকারের কাছে আমরা প্রস্তাব পাঠিয়েছি। এটা হলে সেখানে মাদকবিরোধী কার্যক্রমে আরও গতি আসবে। নজরদারি বাড়াতে বড় সংখ্যায় লোকবল নিয়োগের কথা বলেছি। তবে টেকনাফে মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে। গত এক বছরে মাদকের সঙ্গে জড়িত সাড়ে ১২ হাজার ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সমকাল :গ্রেফতারের পর প্রায় ৬০ শতাংশ আসামি ছাড়া পাচ্ছে। এর কারণ কী?

জামাল উদ্দীন :অনেকে জামিনে ছাড়া পাচ্ছে, এটা বাস্তবতা। জামিন দেওয়ার এখতিয়ার আদালতের। এমনও নজির আছে- কোনো মাদক ব্যবসায়ীকে ১৮-২০ বার গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা কারাগারে ঢুকছে আর বের হচ্ছে। এ অবস্থায় মাদক নিয়ন্ত্রণে সবাইকে সমানভাবে এগিয়ে আসা উচিত। এক্ষেত্রে প্রসিকিউশন থেকে শুরু করে সংশ্নিষ্ট সবার সমানভাবে দায়িত্বশীল হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। মাদক ব্যবসায়ীরা যাতে কোনোভাবে ছাড় না পান- এ জন্য সবাইকে জনমুখী সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

সমকাল :অভিযোগ আছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিপ্তরের কিছু সদস্য নিজেরাই মাদকের সঙ্গে জড়িয়ে যাচ্ছেন। তাদের ব্যাপারে আপনার কী বার্তা থাকবে?

জামাল উদ্দীন :এ ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি। মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কোনো কর্মী যদি মাদক ব্যবসায়ীদের প্রশ্রয় দেন বা দায়িত্বে অবহেলা করেন, সে ক্ষেত্রে বিন্দুমাত্র ছাড় দিচ্ছি না। এরই মধ্যে আমরাই আমাদের কর্মীকে গ্রেফতার করে আইনের কাছে সোপর্দ করেছি। কারও কারও বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা রয়েছে। শৃঙ্খলা বিচ্যুতদের বিরুদ্ধে আমরা সর্বদা তৎপর। সমকাল :সবার জানা, মিয়ানমার থেকে ইয়াবা আসছে। এটি প্রতিরোধে আমাদের কূটনৈতিক ব্যর্থতা রয়েছে কি-না।

জামাল উদ্দীন :রাষ্ট্র হিসেবে ইয়াবার বিরুদ্ধে মিয়ানমার সক্রিয়। বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে। তবে সব সময় প্রত্যাশা পূরণ হচ্ছে না। মিয়ানমার কোনো বৈঠকে ইয়াবা সমস্যা নিয়ে দ্বিমত পোষণ করেনি। যদিও বাস্তবে তাদের সদিচ্ছা খুব বেশি দৃশ্যমান নয়। তবে তাদের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলাপ-আলোচনা অব্যাহত রয়েছে। এরই মধ্যে ইয়াঙ্গুনে আমাদের টিম মিয়ানমারের সঙ্গে বৈঠক করেছে। আশা ছিল তাদের দিক থেকে আরও তৎপরতা থাকবে। তা না হলেও এখনও আমাদের প্রত্যাশা রয়েছে, ভালো প্রতিবেশীর মতো আচরণ করবে মিয়ানমার। বাংলাদেশে ইয়াবা পাচার রোধে কার্যকর পদক্ষেপ নেবে।

সমকাল :মাদকের বিরুদ্ধে অভিযানের পাশাপাশি মাদকের পথ থেকে ফেরত আসাদের পুনর্বাসনে কী উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে?

জামাল উদ্দীন :আপনারা জেনে খুশি হবেন, বেসরকারি উদ্যোক্তাদের মাধ্যমে বহুসংখ্যক মাদক নিরাময় কেন্দ্র গড়ে তোলার পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। দেশে এখন বেসরকারি মাদক নিরাময় কেন্দ্র ২৩৪টি। নিরাময় কেন্দ্রের লাইসেন্স দেওয়ার প্রক্রিয়া সহজ করা হয়েছে। সরকারিভাবে যে চারটি নিরাময় কেন্দ্র রয়েছে, সেখানকার ৫০ শয্যাকে ১০০ শয্যায় উন্নীত করা হয়েছে। অল্পদিনের মধ্যে তা আড়াইশ’ শয্যায় উন্নীত করা হবে। প্রত্যেকটি বিভাগীয় শহরে সরকারি পর্যায়ে ২০০ শয্যার মাদক নিরাময় কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে। এ ব্যাপারে একটি প্রকল্প প্রস্তাব প্রণয়ন করা হয়েছে। ২৭টি জেলায় কোনো মাদক নিরাময় কেন্দ্র নেই। বেসরকারি উদ্যোক্তা ও এনজিওকে উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা করছি সেখানে মাদক নিরাময় কেন্দ্র স্থাপনে এগিয়ে আসতে। সরকারিভাবেও আগামীতে সেখানে মাদক নিরাময় কেন্দ্র গড়ে তোলার চেষ্টা করা হবে।

সমকাল :মাদকাসক্তদের পুনর্বাসনে সরকার কী ব্যবস্থা নিচ্ছে?

জামাল উদ্দীন : যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে মাদকাসক্তদের টেকসই প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ও এক্ষেত্রে অবদান রাখার জন্য এগিয়ে আসবে। এরই মধ্যে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। সহজ শর্তে ঋণ দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। যাতে মাদকাসক্ত ও মাদক ব্যবসায়ীরা বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ পায়। দেশে এখন যারা মাদকাসক্ত, তাদের অধিকাংশের বয়স ১৫-৩৫ বছরের মধ্যে। মাদকাসক্তদের মধ্যে ৬০ শতাংশ ইয়াবায় আসক্ত।

সমকাল :দেশে মাদক-সংশ্নিষ্ট ব্যক্তির সংখ্যা কত?

জামাল উদ্দীন : দেশে মাদকসেবীর পরিসংখ্যান নিরূপণে এখনও সমন্বিত কোনো জরিপ হয়নি। তবে এ ব্যাপারে দেশব্যাপী একটি পরিসংখ্যানের কাজ চলছে। সেটা শেষ হওয়ার আগে নিশ্চিত করে বলা যাবে না দেশে মাদকসেবীর সংখ্যা কত। তবে বেসরকারি পর্যায়ে যারা এসব নিয়ে কাজ করছেন, তাদের অনুমান দেশে মাদকসেবীর সংখ্যা ৭০ লাখ। আমরা তাদের কথার সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করি না।

সমকাল : মাদকবিরোধী অভিযানে ‘বন্দুকযুদ্ধ’ সম্পর্কে আপনার অভিমত কী?

জামাল উদ্দীন : আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে যখন সন্ত্রাসীরা আক্রমণ করে, তখন আত্মরক্ষার্থে অপরিহার্য ক্ষেত্রে সংশ্নিষ্টরা বন্দুকের ব্যবহার করেন। বিশ্বের অনেক দেশে মাদকের সমস্যা ছিল। অভিন্ন পদ্ধতিতে তারা এ সমস্যা মোকাবেলা করেছে। কলম্বিয়া, মেক্সিকো, মালয়েশিয়া সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড একটি নির্দিষ্ট পদ্ধতিতে মাদক নিয়ন্ত্রণ করেছে।

সমকাল :দেশে মাদক ব্যবসায়ীর সংখ্যা কত?

জামাল উদ্দীন :আমরা মাদকের তালিকা হালনাগাদ করি। তবে মাদক ব্যবসায়ীর সঠিক সংখ্যা নিরূপণ কঠিন। কারণ কেউ ব্যবসায় ঢোকে, কেউ ছেড়ে দেয়। সময়ের প্রেক্ষাপটে এ তালিকা গুরুত্ব পায়।

সমকাল :তালিকা তৈরির ভুল প্রক্রিয়ায় কেউ মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে চিহ্নিত হওয়ার ঝুঁকি থাকে কি-না। কক্সবাজারে একরামুলের ক্ষেত্রে তার পরিবার এমন অভিযোগ তুলেছে।

জামাল উদ্দীন : যারা মাদক ব্যবসায়ী, অবশ্যই তারা তালিকাভুক্ত হয়। আর একরামুলের বিষয়টি নিয়ে তদন্ত হচ্ছে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH