বাড়িআলোকিত টেকনাফইয়াবা ব্যবসায়ী জিসান ও শাহ আলমের রমরমা ইয়াবা বানিজ্য!

ইয়াবা ব্যবসায়ী জিসান ও শাহ আলমের রমরমা ইয়াবা বানিজ্য!

বিশেষ প্রতিনিধি:-

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আটক করতে প্রশাসন সম্ভাব্য স্থান গুলোতে হানা দিয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত।তবে গভীর জলের মাছ হয়ে গোপনে হোন্ডির টাকায় ইয়াবা ব্যবসা করে রাতারাতি কোটিপতি বনেগেছে কিছু লোকজন।তারই ধারাবাহিকতায় জিসান সহ তাদের পরিবারটি সিন্ডিকেট করে রমরমা ইয়াবা বানিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে দিব্বি।বিভিন্ন সময় ইয়াবা ডন জিসান দু’ভগ্নিপতি তাহের এবং আব্দুল্লাহ আইনের আওতায় আসলেও হোন্ডি ব্যবসায়ী শাহ আলম রয়েছে প্রশাসনের নাগালের বাহিরে।সংশ্লিষ্ট প্রশাসন চক্রটিকে আইনের আওতায় আনার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছে।

অনুসন্ধানে জানাগেছে,উপজেলার সদর ইউনিয়নের ডেইলপাড়া এলাকার মৃত আবুল কাশেমের পুত্র শাহ আলমের ভগ্নিপতি তাহের শুরুর দিকে স্থানীয় ইয়াবা ব্যবসায়ীদের ডিপ ফ্রিজ(পায়ুপথে) ইয়াবা চালান পাচারের মধ্যদিয়ে ২০১১ সালের দিকে ইয়াবার লাল দুনিয়ায় প্রবেশ করে।এক পর্যায়ে ২০১২ সালের দিকে ইয়াবা সহ আইন শৃংক্ষলা বাহিনীর হাতে আটক হয়ে আইনের ফাঁক গলে বেড়িয়ে আসে।পরবর্তিতে তার হাত ধরে শালক জিসান ইয়াবা জগতে প্রবেশ করে।২০১৩ সালের দিকে ভগ্নিপতি আব্দুল্লাহ সহ কক্সবাজার থেকে ইয়াবাসহ আটক হয়ে দীর্ঘ দিন হাজত বাস করে।জেল থেকে বেড়িয়ে নাটের গুরু প্রবাসী শাহ আলমের পৃষ্টপোষকতায় আবার ইয়াবা ব্যবসা শুরু করে।

কে এই শাহ আলম?
স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে,বিগত ৭বছর আগেও বেকার যুবক হিসেবে পরিচিত ছিলো এই শাহ আলম।ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় বিদেশ পাড়িজমালেও শুরুর দিকে আর্থিক ভাবে তেমনে কোন স্বচ্ছলতা আসেনি তার।কিন্তু মাত্র ৫/৭ বছরে কাড়ি কাড়ি টাকার মালিক ও টেকনাফ ডেইল পাড়া সহ বিভিন্ন এলাকায় অন্তত ৫ কোটি টাকা মূল্যের নামে বেনামে ২০ কানি সম্পত্তি, কক্সবাজার নুনিয়ার ছড়ায় নির্মানাধিন দালান সহ জেলার বিভিন্ন এলাকায় কোটি টাকার জায়গা সম্পত্তির মালিক বনে স্থানীয় ভাবে আলোচনায় আসে।দ্বীর্ঘ সময় দুবাই অবস্থান করার মুখোশে তার মূল ব্যবসা ছিলো বাংলাদেশ কেন্দ্রিক।এবিষয়ে শাহ আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে ইয়াবা এবং হুন্ডির বিষয়টি অস্বীকার করেন।তবে কোটি কোটি টাকা কোন ব্যাংকের মাধ্যমে বাংলাদেশে আনাহয়েছে তার কোন উত্তর দিতে পারেনি।

প্রতিবেশীদেরদের সাথে আলাপকালে জানা গেছে, তার ভাই জিসানের মাধ্যমে ইয়াবা ব্যবসায় টাকা বিনিয়োগ করে দুবাই বসে ব্যবসা নিয়ন্ত্রন করতো।সে ব্যবসায় স্থানীয় ভাবে তার ভাই জিসান ভগ্নিপতি তাহের,আব্দুল্লাহ তিনজন মিলে এলাকার বেকার যুবক ও রোহিঙ্গা নারীদের ব্যবহার করে ঢাকা চট্টগ্রাম ইয়াবা পাচার করে আসছিলো।গতবছর শাহ আলমের আপন মামা কবির আহমদ জিসান ও শাহ আলমের ইয়াবার চালান নিয়ে কক্সবাজার থেকে আটক হয়ে বর্তমান কারাগারে রয়েছে বলে জানিয়েছে সূত্রটি।

প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিতে জিসান ইয়াবার সিংহ ভাগ টাকা বিভিন্ন কৌশলে দুবাই পাচার করে দিত।আবার সেই টাকা শাহ আলম দুবাই থেকে প্রবাসী রিয়াজ উদ্দীন নামের এক হুন্ডি ব্যবসায়ীর মাধ্যমে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিতো।এভাবে চক্রটি দ্বীর্ঘদিন ধরে প্রশাসনের চোখ ফাকি দিয়ে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে আসছে।অপরদিকে ইয়াবার টাকায় অন্ধ হয়ে জমিসংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে শফিক নামের এক যুবক কে নারী ঘটিত একটি বিষয়ে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে ঘায়েল করার জন্য স্থানীয় বিভিন্ন পত্রিকায় স্বরব প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে এই সহোদর।এব্যাপারে জিসানের সাথে আলাপ করতে চাইলে সাংবাদিক পরিচয় পাওয়ার পর লাইন কেটে দিলে ফোনে যোগাযোগ স্থাপন করা সম্ভব হয়নি।

টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ বাবু রঞ্জিত কুমার বড়ুয়া মাদক ব্যবসায়ীদের ব্যাপারে কোন ছাড় নেই দাবীকরে জানান,এই চক্রটি দীর্ঘদিন ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত রয়েছে।তাছাড়া আত্বগুপনে থাকার কারনে এদের আইনের আওতায় আনা সম্ভব হচ্ছেনা।তবে তাদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

ইয়াবা ব্যবসা রোধে এসব চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আইনের আওতায় আনা না গেলে সরকারের মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনার মিশন বাস্তবায়ন কিছুতেই সম্ভব না।তাই স্থানীয়রা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন।

RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments