শুক্র. জুলা ৩, ২০২০

আলোকিত টেকনাফ

বিশ্বজুড়ে টেকনাফের প্রতিচ্ছবি

উখিয়ায় আইসোলেশন সেন্টারে করোনাক্রান্ত এক রোহিঙ্গার মৃত্যু

১ min read

নিজস্ব প্রতিবেদক

কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের ৭১ বছরের এক বৃদ্ধ রোহিঙ্গা চিকিৎসাধীন অবস্হায় মারা গেছেন। এই প্রথম করোনা আক্রান্ত হয়ে কোন রোহিঙ্গার মৃত্যু হলো।

কক্সবাজার শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কার্যালয়ের প্রধান স্বাস্থ্য সমন্বয়কারি ডা. আবু তোহা এম আর এইচ ভুঁইয়া বলেন, সোমবার রাতে মারা যাওয়া শরণার্থী ৭১ বছরের বৃদ্ধ। তিনি সারি আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

তিনি বলেন, ১ জুন কক্সবাজার মেডিকেল ল্যাবে যে ৫ জনের করোনা পজিটিভ এসেছে তার মধ্যে একজন পজিটিভ আর অপর ৪ জন ফলোআপ রোগী। এছাড়াও এ পর্যন্ত ২৯ করোনা রোগী পজিটিভ হয়েছেন এবং ৩০ জনের অধিক আইসোলেশন (সারি) সেন্টারে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় পিসিআর ল্যাবে ২৮৩টি নমুনা পরীক্ষা হয়। এর মধ্যে ৯৬টি নমুনার ফল আসে পজিটিভ। এ মধ্যে ৫ রোহিঙ্গাও রয়েছেন।

করোনা পজিটিভ শনাক্ত হওয়া রোহিঙ্গারা হচ্ছেন উখিয়ার ক্যাম্প-৭ ব্লক-এ ইসমত আরা (১৮), ক্যাম্প-৯ বল্ক-এ ৪ এর আবু সৈয়দ (৭৪), ক্যাম্প-৬ সৈয়দ আলম (৩৬), কুতুপালং রেজিস্টার্ড ক্যাম্প ব্লক-সি সাইট-২১ ৫নং বাড়ীর আবুল করিম (৭১) এবং ক্যাম্প-৬ ব্লক-ই ৩ এর নুর জাহান (২৪)।

এছাড়া এদিন ক্যাম্পে দুটি আন্তর্জাতিক সংস্থার ডাক্তার ও স্বাস্থ্য কর্মীর করোনা পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে।

এদিকে প্রথম কোনো রোহিঙ্গা করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার খবরে শরণাথী শিবিরগুলোতে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। রোহিঙ্গা মাঝিরা জানিয়েছেন, করোনায় তাদের একজনের মৃত্যূর খবরে লোকজন ভয়ে আছে।

তাদের অভিযোগ, রোহিঙ্গাদের এ ভাইরাস কখনো ছিল না। তারা এই প্রথম এই নাম শুনেছেন। মুলত ক্যাম্পে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে আগত আন্তর্জাতিক সংস্থা ও এনজিওতে কর্মরতদের মাধ্যমে এ ভাইরাসটি তাদের মধ্যে ছড়িয়েছে। আর ক্যাম্পগুলো ঘনবসতি হওয়ায় সবচেয়ে ঝুঁকিতে এখন রোহিঙ্গারা।

তাদের মতে, ক্যাম্পগুলোতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমণ রোধে চোখে পড়ার মতো কার্যক্রম নেয়া হয়নি। কীভাবে এই ভাইরাস থেকে নিজেকে রক্ষা করা যায়, সেটি অনেকেই এখন পর্যন্ত জানে না।

আপনার মন্তব্য দিন
error: বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে এই সাইটের কোন উপাদান ব্যবহার করা সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ এবং কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ।