সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৬:৪৪ পূর্বাহ্ন

উখিয়া রোহিঙ্গা শিবিরমুখী তিন পাকিস্তানি নাগরিককে ধরে ঢাকায় প্রেরণ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৯ মে, ২০১৮
  • ৩৪৬ Time View

কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ-

কক্সবাজার বিমানবন্দর থেকে গত সোমবার সন্ধ্যায় আটক করা তিন পাকিস্তানি নাগরিককে গতকাল মঙ্গলবার সকালে ঢাকায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। তিন পাকিস্তানিকে কক্সবাজারে দেখভাল করার দায়িত্বে থাকা মারকাজুল মুসলেমিন নামের একটি এনজিওর প্রতিষ্ঠাতা মুফতি রিয়াজ উদ্দিন খান নামের এক ব্যক্তিসহ পাঁচজনকে আটক করা হয়েছিল। জিজ্ঞাসাবাদের পর গতকাল তাঁদের ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।

কক্সবাজার পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত সোমবারই ঢাকা থেকে বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইটে কক্সবাজার আসেন ওই পাকিস্তানিরা। আটক করার পর তাঁদের গোয়েন্দা পুলিশের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পাকিস্তানিরা হচ্ছেন মোহাম্মদ আরশাদ (৫০), আসাদ-উর-রশিদ (২৭) ও শহীদ হাফিজ (৪৫)। তাঁদের মধ্যে প্রথম দুজন হংকংয়ের নাগরিকত্ব নিয়েছেন।

কক্সবাজার বিমানবন্দরে বিদেশি নাগরিকদের বিশেষ সেবায় নিয়োজিত পুলিশ পরিদর্শক মনিরুল ইসলাম জানান, আটক পাকিস্তানি এই তিন নাগরিক পাকিস্তান থেকে সরাসরি ঢাকায় না এসে প্রথমে হংকংয়ে যান। ওখান থেকে তাঁরা গত রবিবার ঢাকায় পৌঁছেন। এরপর তাঁরা এক মাসের ট্যুরিস্ট ভিসা সংগ্রহ করেন। সোমবারই তাঁরা ঢাকা থেকে কক্সবাজার চলে আসেন।

পুলিশ জানায়, প্রথমে জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা বিভিন্ন রকমের বিভ্রান্তিকর তথ্য দেন। তাঁরা বলেন, কক্সবাজারে আত্মীয়ের বাড়ি রয়েছে। বাস্তবে এ রকম সঠিক ঠিকানা পুলিশকে জানাতে পারেননি তাঁরা। পরে পুলিশকে জানানো হয়, তাঁরা রোহিঙ্গা শিবির দেখতে এসেছেন। তাঁদের কথাবার্তা সন্দেহজনক হওয়ায় তাঁদের ক্যাম্পের দিকে যেতে দেয়নি পুলিশ। খবর ,কালের কন্ঠের

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার ড. এ কে এম ইকবাল হোসেন জানান, আটক পাকিস্তানিদের গতকাল সকালেই কক্সবাজার থেকে ঢাকায় নভোএয়ার বিমানে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। কক্সবাজার বিমানবন্দরে সোমবার সন্ধ্যায় পাকিস্তানি তিন নাগরিককে বহন করার জন্য একটি অ্যাম্বুল্যান্স নিয়ে হাজির হয়েছিলেন মুফতি রিয়াজ উদ্দিন খান নামের একজন মাওলানা। পুলিশ সেই অ্যাম্বুল্যান্সসহ মুফতি ও অন্য চারজনকে আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদ করে।

খুলনার খানজাহান আলী থানার শিরোমণি এলাকার খান মতিয়ার রহমানের ছেলে মুফতি রিয়াজ উদ্দিন খান মারকাজুল মুসলেমিন নামের একটি এনজিওর প্রতিষ্ঠাতা। তাঁকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাকিস্তানিদের রাখাসহ তাঁদের দেখভাল করার জন্য সফরসঙ্গী হিসেবে ঠিক করা হয়।

গোয়েন্দা কর্মীরা জানিয়েছেন, তাঁরা পাকিস্তানি নাগরিকদের রোহিঙ্গা শিবিরে আসা-যাওয়ার বিষয়টি তদন্ত করে দেখছেন। অভিযোগ রয়েছে, কুতুপালং রোহিঙ্গা শিবিরে প্রায়ই রোহিঙ্গাদের মধ্যে নগদ টাকা বিলি করে পাকিস্তানি নাগরিকরা।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH