নিজস্ব প্রতিবেদক।

অবশেষে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের ১০ম সম্মেলন অনুষ্টিত হচ্ছে। নতুন পুরাতন মিলিয়ে মোট প্রার্থী হচ্ছে ৩৩ জন। এদের অধিকাংশ নতুন মুখ। অধিকাংশ প্রার্থীদের বিরুদ্ধে মাদক সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ থাকলেও কালো টাকার প্রভাব মুক্ত একেবারে তৃনমূল থেকে উঠে আসা স্বচ্চ ও যোগ্য নেতৃত্বের আশাবাদী তৃনমূল কর্মীরা।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) পৌর শহরের দ্বীপ প্লাজা প্রাঙ্গনে অনুষ্টিত হবে সম্মেলনের প্রথম অধিবেশন। উদ্বোধক থাকবেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসাইন। জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। সভাপতিত্ব করবেন টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ। তবে দ্বিতীয় অধিবেশনের স্থান সম্পর্কে আনুষ্টানিক কোন সিদ্ধান্ত জানা যায়নি।

টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সূত্র মতে, ৬১ সদস্য বিশিষ্ট উপজেলা কমিটির আওতাধীন ৬টি ইউনিয়ন, ১টি পৌরসভা ও ২৪টি ইউনিট কমিটি রয়েছে। সবমিলিয়ে এবারে কাউন্সিলর রয়েছে মোট ১০৫ জন।

জেলা ছাত্রলীগের দায়িত্বশীল সূত্র মতে এবারে মোট ৩৩ জন বায়োডাটা জমা দিয়েছেন। তাদের মধ্যে সভাপতি পদে- সাইফুল ইসলাম মুন্না, তারেক মাহমুদ রনি, হামিদুর রহিম, জিয়া উদ্দীন, আনোয়ারুল ইসলাম সিফাত, মোহাম্মদ রফিক, রুহুল আমিন, নাসির উদ্দীন অপর জনের নাম জানা যায়নি। সাধারণ সম্পাদক পদে আব্দুল বাসেত, সাইফুল ইসলাম, মো. শাহীন, রিসাত, তারেক মাহমুদ নূর, আরিফ মোহাম্মদ আনাছসহ মোট ২৪ জন প্রার্থী।

উপজেলা ছাত্রলীগের তৃনমূল নেতা কর্মীরা জানান, এবারে সভাপতি পদে চূড়ান্ত লড়াই হবে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম মুন্না ও সাবেক জেলা ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক তারেক মাহমুদ রনির মধ্যে। অপর দিকে সাধারণ সম্পাদক পদে চূড়ান্ত লড়াই হবে আব্দুল বাসেত, সাইফুল ইসলাম, মো. শাহীন, মোহাম্মদ আনাছসহ তিন জনের মধ্যে।

তবে মূহুর্থে চট্টগ্রাম মহসিন কলেজের ছাত্র মোহাম্মদ আনাছ এই পর্যন্ত তৃনমূল নেতা কর্মীদের মধ্যে নিজের স্বচ্চতা ও যোগ্যতা দিয়ে আস্থা অর্জন করেছেন। তাদের দাবী যতো প্রার্থী আছেন তাদের মধ্যে আপাতত তার বিরুদ্ধে কোন মাদক সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তাছাড়া পারিবারিক ঐতিহ্যের কারনে সে কালো টাকার প্রভাব মুক্ত থাকবে বলে আশাবাদী।

বর্তমান সভাপতি সুলতান মাহমুদ ‘বার্তা বাজার’কে জানান, সংগঠনের গঠনতন্ত্র মেনেই সরাসরি ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে কাউন্সিল অনুষ্টিত হোক সেটাই প্রত্যাশা।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন জানান, গঠনতন্ত্র অনুযায়ী অছাত্র, মাদক সংশ্লিষ্ট, বিবাহিত ও ২৯ বছরের উর্ধ্বে কেউ ছাত্রলীগের দায়িত্বে আসতে পারবেনা। জেলা ছাত্রলীগ সম্পূর্ণ ভাবে কালো টাকার প্রভাব মুক্ত, সুতরাং তৃনমূল থেকে উঠে আসা কর্মীদের প্রধান্য দেয়া হবে।

সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী মোহাম্মদ আনাছ জানান, আমার যোগ্যতা বিবেচনা করে কাউন্সিলররা আমাকে মূল্যায়ন করবে। নেতৃত্বে আসলে টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগকে মাদক ও সন্ত্রাস মুক্ত রাখার রেখে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য কাজ করবো। পাশাপাশি উপজেলার ছাত্রসমাজের অধিকার আদায়ের জন্য কাজ করে যাবো।