|| শ. ম. দীদার ||
———————-

-ক্যামন আছো তুমি? এত্তোদিন পর আচমকা!
-হ্যাঁ ভালো। তুমি?
এই একটি প্রশ্নে বুকের ভেতরটা ক্যামোন ধড়ফড় করে ওঠে
মস্তিষ্কের তাঁরগুলো ঠাস ঠাস করে ছিঁড়ে যাবার উপক্রম
শিরাগুলোয় রক্ত জমাট স্থিমিত সঞ্চালন প্রক্রিয়া
চোখের জমিন ক্যামন ভারী হয়ে আসে
উত্তরের আড়ালে প্রশ্ন রেখে তবুও বলতে হয় অস্ফুট চীৎকারে
হ্যাঁ ভালো আছি আমি, খুব ভালো
যেমন হাসির আড়ালে থেকে যায় দীর্ঘকালের নীরবতা
-তোমার স্বামী- সংসার- বাচ্চা- কাচ্চা?
-খুব সুখেই আছি। ভুলেও টের পাই না তোমার অনুপস্থিতি।
-তোমার কথাই বোলো। তোমার সংসার?
নাকি আগের মতই অগোছালো।
এ প্রশ্নের উত্তরে নীরবতা মানেই দীর্ঘ একাকীত্বের পাথর কালো অন্ধকারকে
দীর্ঘায়িত হতে দেওয়া। কী লাভ তাতে?
এখন বেশ গুছিয়ে অযত্ন অবহেলাকে হাতের মুঠোয় পুষতে শেখা হয়ে গেছে
যত্নের সাথে একলা থাকাকে সাজিয়ে নিয়ে
গাল বাড়িয়ে চড় খাওয়া রপ্ত হয়ে গেছে।
আজকাল খুব আয়েশ করেই তাই বলা যায়-
-না। তা হবে কেন?
কী ব্যাপার, তুমি অমন হাঁপাচ্ছ কেন? বুকটা কী তোমার ধড়ফড় করছে?
কাউকে খুজছ? চল ওইখানটাই বসি।
-উফ বড্ড দেরী হয়ে গেল। রাস্তায় যা জ্যাম! ড্রাইভ করতেই ইচ্ছে করে না।
যাই। দেখা হবে হ্যাঁ।

একজোড়া তৃতীয় হাত খুইয়ে নিল হাতের মুঠোয় গুঁজে থাকা হাতজোড়া
যেমন করে আজ থেকে কুড়ি বছর আগে ছু মেরে খুবলে নিয়েছিল বুকের একপাশ

একাকীত্বের পাথর কালো রাতগুলো দীর্ঘায়িত হচ্ছে
কুড়ি বছর পরেও কেউ কেউ একা থাকে এই শহরে।

——————————————————————————–

শ. ম. দীদার
প্রোটেকশন অ্যান্ড ইনক্লুশান অ্যাডভাইজার, হেল্পএইজ ইন্টারন্যাশনাল
এবং
সহযোগী সম্পাদক- আলোকিত টেকনাফ ডটকম

প্রকাশকালঃ  ০৩ রা জুলাই, ২০১১ বিকাল ৩:১০

উৎসঃ-  এখনো কেউ কেউ একা থাকে এই শহরে