সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৬:০৭ পূর্বাহ্ন

ওরিয়নকে শৈবাল হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত বহাল

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ৩৮৪ Time View

পর্যটন মন্ত্রণালয়ে পর্যালোচনা সভায় পর্যটন মোটেল শৈবালের ১৩৫ একর জমি ওরিয়ন গ্রুপকে হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত বহাল রাখা হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের এই হটকারি সিদ্ধান্তে ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছে কক্সবাজারের মানুষ।
জানা গেছে, কক্সবাজারের ঐতিহ্যবাহি পর্যটন মোটেল শৈবালের ১৩৫ একর জমি মাত্র ৬০ কোটি টাকায় ওরিয়ন গ্রুপকে দীর্ঘমেয়াদি লিজ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়। এরই মধ্যে শৈবালের লিজ ঠেকাতে কক্সবাজারবাসী ব্যাপক আন্দোলন গড়ে তুলে। সম্প্রতি প্রকল্পটি চুড়ান্তভাবে অনুমোদনের জন্য প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে গেলে সেখান থেকে পুণরায় পর্যালোচনার জন্য পর্যটন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। এরই অংশ হিসেবে গতকাল রোববার পর্যটন মন্ত্রণালয়ে পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী একেএম শাহজাহান কামাল। ওই পর্যালোচনা সভায় পর্যটন শৈবালের ১৩৫ একর জমি ৫০ বছরের জন্য ওরিয়ন গ্রুপকে হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত বহাল রাখা হয়। তবে এর জন্য পাঁচটি শর্ত জুড়ে দেওয়া হয় ওরিয়ন গ্রুপকে।
শর্ত গুলো হলো- শৈবালের ওই ১৩৫ একর জমিতে ৭তলার বেশি বহুতল ভবন নির্মাণ করা যাবে না, প্রকল্পে যেসব জনবল নিয়োগ করা হবে তারমধ্যে ২০ শতাংশ কক্সবাজারের স্থানীয়দের নিতে হবে, শৈবালের সামনের (রাস্তার পাশের অংশে) ৩০০ ফিটের মধ্যে কোন ধরণের স্থাপনা নির্মাণ করা যাবে না, প্রতি সপ্তাহে একদিন কক্সবাজারের স্থানীয় জনগণের জন্য ওরিয়নের সকল স্থাপনা উন্মুক্ত রাখতে হবে এবং প্রকল্পের উন্নয়ন কাজ করতে গিয়ে একটি ঝাউগাছও কাটা যাবে না।
পর্যটন মন্ত্রণালয় সুত্র জানায়, পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশীপ (পিপিপি) এর মাধ্যমে ‘কক্সবাজার পর্যটন ও বিনোদন উন্নয়ন’ নামে একটি প্রকল্পের আওতায় ৫০ বছরের জন্য ওরিয়ন গ্রুপকে শৈবালের ১৩৫ একর জমি স্থাপনা নির্মাণের মাধ্যমে উন্নয়ন করতে দেয়া হলেও জমির মালিক থাকবে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন (বিপিসি)। নির্ধারিত সময় ৫০ বছর পার হওয়ার পর চুক্তি নবায়ন না হলে ওরিয়ন গ্রুপের কাছ থেকে ওই জমি নিয়ে নিবে পর্যটন কর্পোরেশন।
এ প্রকল্পের আওতায় ওরিয়ন গ্রুপ সেখানে নির্মাণ করবে পাঁচ তারকা মানের হোটেল, ১৮ হুল বিশিষ্ট গলফ কোর্স, বিনোদন পার্ক, অত্যাধুনিক একটি মিনি সিনেমা হলসহ নানা স্থাপনা।
পর্যালোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমল, বেসামরিক বিমান প?রিবহন ও পর্যটন মন্ত্রনালয়ের সচিব এস এম গোলাম ফারুক, সিভিল এভিয়েশনের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. নাঈম হাসান, পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান খান কবীর, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের পরিচালক মো. শামীম আলম, ওরিয়ন গ্রুপের ওবায়দুল করিম, প্রকল্প পরিচালক লে. জেনারেল (অব.) সাব্বির আহমেদ, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (কউক) চেয়ারম্যান লে. কর্ণেল (অব.) ফোরকান আহমেদ, কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট খালেদ মাহমুদসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।
বৈঠক শেষে মুঠোফোনে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমানের সাথে কথা বলেন এ প্রতিবেদক। তিনি বলেন, ‘শর্ত সাপেক্ষে ওরিয়ন গ্রুপকে পর্যটন শৈবালের ১৩৫ একর জমি বুঝিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত বহাল রাখা হয়েছে। তবে কখন নাগাদ এই বিষয়ে চুক্তি হবে সেটি তিনি অবগত নন’।
বৈঠক শেষে কউক চেয়ারম্যান লে. কর্ণেল (অব.) ফোরকান আহমেদ মুঠোফোনে জানান, সম্প্রতি পর্যটন শৈবাল ওরিয়ন গ্রুপের কাছে হস্তান্তর না করতে কক্সবাজারে মানববন্ধন বিক্ষোভসহ নানা আন্দোলন গড়ে তুলেছে কক্সবাজারের মানুষ। সভায় তিনি সেই বিষয়টি তুলে ধরেছেন। কক্সবাজারের জনগণ ওরিয়ন গ্রুপকে হোটেল শৈবাল কিছুতেই হস্তান্তর করতে দেবে না বলে যে হুঁশিয়ারি করা হয়েছে সেটিও তিনি সভায় উল্লেখ করেছেন।
ফোরকান আহমদ আরও বলেন, বিষয় গুলো শোনার পর আগামী ২৩ জানুয়ারী কক্সবাজার সফরে আসার কথা বলেছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী। এই বিষয় নিয়ে তিনি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে স্থানীয়দের সাথে বৈঠক করবেন। স্থানীয়দের মতামত নেওয়ার পরই মন্ত্রী চুক্তির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়েছেন।
এবিষয়ে জানতে কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমলের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু তিনি ফোন ধরেননি।
বির্তকিত ওরিয়ন গ্রুপকে মাত্র ৬০ কোটি টাকায় শৈবালের সমস্ত সম্পত্তি হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত বহাল রাখার খবরে জনমনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। সরকারি এই প্রতিষ্ঠানটি অদক্ষ ওরিয়ন গ্রুপকে হস্তান্তর করা হলে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিরূপ প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন কক্সবাজারের স্থানীয় নাগরিক সমাজ।
জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা বলেন, ‘কক্সবাজারকে কোনোভাবেই বিক্রি করতে দেয়া হবে না। হোটেল শৈবাল রক্ষায় আমরা আজকালের মধ্যেই পর্যটনমন্ত্রীর সাথে কথা বলবো। প্রয়োজন হলে প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাবো। আমরা জানি প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারের পক্ষে। আমাদের বিশ্বাস, প্রধানমন্ত্রী হোটেল শৈবালকে বিক্রি হতে দেবেন না।’
জেলা জাসদের সভাপতি নঈমুল হক চৌধুরী টুটুল বলেন, ‘পর্যটন শৈবাল কক্সবাজারবাসীর শ্বাস-প্রশ্বাসের স্থান। এটি আমাদের অমূল্য সম্পদ। পর্যটন মন্ত্রণালয় ও পর্যটন করপোরেশনের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা প্রধানমন্ত্রীকে ভুল বুঝিয়ে এটি বিক্রি করে দেয়ার পাঁয়তারা করছে। এই প্রক্রিয়ার সাথে কক্সবাজারের কিছু রাঘববোয়ালও জড়িত। কিন্তু শরীরের এক বিন্দু রক্ত থাকতে আমরা তা হবে দেবো না।’
প্রসঙ্গত, ১৯৬৫ সালে সাগরিকা রেঁস্তোরা চালুর মধ্য দিয়ে কক্সবাজার পর্যটনে শৈবালের যাত্রা শুরু হয়। সেই থেকে আজ অবধি রেস্তোরাটি ভোজন রসিকদের মাঝে ব্যাপক সাড়া পায়। পরে ১৯৮৫ সালে এখানে আবাসিক প্রতিষ্ঠান চালু করা হয়। চড়ায়-উৎরাই পেরিয়ে পর্যটক ও স্থানীয়দের কাছে হোটেল শৈবাল বেশ সুনাম কুঁড়িয়েছে।
আজও হোটেল শৈবাল পর্যটন শিল্প বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। হোটেল শৈবালের মোট জমির পরিমাণ ১৩৫ একর। তার মধ্যে ১৩০ একর জমি পিপিপি প্রকল্পের আওতায় ওরিয়েন গ্রুপের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানা গেছে।
একই সাথে ১৩০ একর জমি ছাড়াও হোটেল শৈবালের অত্যাধুনিক তিন তলা ভবন, সাগরিকা রেস্তোরা ভবন, সুইমিংপুল ভবন, লাইভ ফিস রেস্তোরার দোতলা ভবন, শৈবালের গলফ বার ভবনসহ মোট ১৪০ কোটি টাকার ভবনও হস্তান্তর করা হবে।
পর্যটন এরিয়ার প্রাইম লোকেশনে হোটেল শৈবালের প্রতি শতক জমির মূল্য নূন্যতম ৩৫ লক্ষ টাকা ধরা হলে ১৩০ একর জমির মূল্য প্রায় ৪ হাজার ৫৫০ কোটি টাকা। সুত্রঃ দৈনিক কক্সবাজার

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH