বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:১১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

কক্সবাজারে থেমে থেমে ভূমিধস নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছে অর্ধশত পরিবার

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৯ জুলাই, ২০১৮
  • ২৯৪ Time View

আলোকিত টেকনাফ ডেস্কঃ-

কক্সবাজারের ঝিলংজা ইউনিয়নের বিসিক শিল্প নগরী এলাকার মুহুরী পাড়ার সেই বিশাল পাহাড়টির মাটি থেমে থেমে ধসে পড়ছে। আজ শনিবার সকালেও পাহাড়ের বড় অংশ ধসে পড়েছে। সকাল বেলার পাহাড়ের মাটি ধসে ২টি দোকান ও ৪টি বসতবাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। পাহাড় ধসের ঝুঁকিতে রয়েছে আরো শতাধিক পরিবার।

ইতিমধ্যে অর্ধশতাধিক পরিবারকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। পাহাড় ধসের ঝুঁকিতে থাকা লোকজনদের সরিয়ে নিতে গতকাল সকাল থেকে জেলা প্রশাসন, পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, পরিবেশ অধিদপ্তর ও রেডক্রিসেন্টের স্বেচ্ছাসেবকরা অংশ নিয়েছেন।

এলাকার লোকজন জানিয়েছেন, অব্যাহত বৃষ্টিপাতের কারণে থেমে থেমে ধসে পড়ছে পাহাড়টির মাটি। শুক্রবার বিকাল থেকেই সুউচ্চ এই পাহাড়টির পশ্চিম পাশের কিছু অংশ ধসে পড়ে। এ সময় পাহাড়ের পূর্ব পাশে ও মাঝখানে বড় ধরনের ফাটল ধরে যায়। শুক্রবার বিকালে সেই ফাটল ধরা পাহাড়ের কিছু অংশ তাৎক্ষণিক ধসে পড়ে।

কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হাবিবুল হাসান জানান, পাহাড়টিতে ফাটল ধরার পর মাটি ধসের পর পরই লোকজনকে আগে ভাগে সরিয়ে ফেলার কারণে জানমালের ক্ষতি হয়নি। তিনি জানান, তবে যেকোনো জরুরি পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় উপকরণ ও অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

কক্সবাজারের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক কাজী মো. আবদুর রহমানের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীসহ অন্যান্য উদ্ধারকর্মীদের নিয়ে গতকাল সকাল থেকে উদ্ধার অভিযান শুরু করা হয়। ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক জানান-‘ সুউচ্চ পাহাড়টিতে শুক্রবার বিকালে আকস্মিক মাঝখান দিয়ে ফাটল সৃষ্টি হয়। ফাটলের পর পরই পাহাড়ের বেশ কিছু অংশ ধসে পড়ে। এ সময় পাহাড়ের পার্শ্ববর্তী এলাকার লোকজন ভূকম্পনও অনুভব করেছেন।’

ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক বলেন, ভাগ্যিস শুক্রবার পাহাড়টিতে ফাটল ধরে ধস শুরু হবার সময় বর্ষণ ছিল না। এ সময় ভারি বর্ষণ হলে পরিস্থিতি বেশ মারাত্মক হতে পারত। তবে আজ শনিবার মাঝে মাঝে বর্ষণ হওয়ায় পাহাড়ের মাটি ধস অব্যাহত রয়েছে। তিনি জানান, পাহাড়টির পার্শ্বে ঝুঁকির মুখে থাকা শতাধিক বসতবাড়ি তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। এসব তালিকাভুক্ত ৫০টিরও বেশি পরিবারকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। বাকি সবগুলো পরিবারকে নিরাপদ স্থানে না নেয়া পর্যন্ত এই প্রক্রিয়া চলবে।

ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক আরো জানান, কক্সবাজার পৌর এলাকার মহাজের পাড়া, ঘোনার পাড়া, বৈদ্যঘোনা, বাদশাহ ঘোনা, বাচামিয়ার ঘোনা, লাইট হাউজ পাহাড়, কলাতলি, সাহিত্যিকা পলি­ সহ বিভিন্ন এলাকার পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসে রয়েছে কমপক্ষে অর্ধ লক্ষাধিক বাসিন্দা। প্রবল বর্ষণ শুরু হবার পর গত তিন দিনে প্রশাসন পাহাড়ে পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে ঝুঁকিতে থাকা কয়েক হাজার লোককে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়েছে। তিনি দুঃখের সঙ্গে জানান, টানা ভারি বর্ষণের সময় পাহাড় ধসের চরম ঝুঁকির সময়েও লোকজনকে সরানো যায় না।

কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা মো. আলী কবির জানান, টানা বৃষ্টি ও অতিরিক্ত বৃষ্টির কারণে পাহাড়ের মাটি নরম হয়ে পড়েছে। তাই পাহাড়গুলো একে একে ধসে পড়ছে। এর আগে অতিরিক্ত বৃষ্টির কারণে গত বুধবার কক্সবাজার সদর এবং রামু উপজেলায় পৃথক ভূমিধসের ঘটনায় একই পরিবারের চারজনসহ পাঁচজন নিহত ও চারজন আহত হন।

এদিকে কক্সবাজার পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র মুজিবুর রহমান গতকাল বিসিক শিল্প এলাকা সংলগ্ন পাহাড়ধস এলাকা পরিদর্শন করেছেন। তিনি সেখানকার ঝুঁকিতে বসবাসরত লোকজনকে স্বেচ্ছায় নিরাপদ এলাকায় আশ্রয় নিতে অনুরোধ জানান।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে কক্সবাজারের বিসিক শিল্প এলাকার দক্ষিণ পার্শ্বে প্রায় ১২০-১৫০ ফুট উঁচু একটি পাহাড়ে আকস্মিক ফাটল ধরার পর মাটি ধস শুরু হয়। এতে তাৎক্ষণিক দুটি দোকান ও চারটি বসতবাড়ির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। এরপরই পাহাড়ে বসবাসকারীদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH