আলোকিত টেকনাফ ডেস্ক।

কক্সবাজারে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের নিরাপত্তা বিষয়ে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার (১৯ ডিসেম্বর) এ বিষয়ে মত বিনিময় সভা আয়োজন করে টুরিস্ট পুলিশ। এ সময় বিদেশি পর্যটকের ব্যাপারে অত্যধিক সতর্কতা ও গুরুত্ব সহকারে দায়িত্ব পালনের সিদ্ধান্ত নেয়। এ সভায় পর্যটন ব্যবসায়ীরা প্রশাসনকে সহযোগিতার আশ্বাসও দেন।

সভায় উপস্থিত ছিলেন- হোটেল, মোটেল, গেস্ট হাউজ, ট্যুর অপারেটর মালিক ও প্রতিনিধিরা। পর্যটকদের নিরাপত্তা বিষয়ক ইস্যু নিয়ে তারা অভিমত তুলে ধরেন। কোনো বিদেশি পর্যটক হোটেল অথবা কটেজে অবস্থান নিলে তা পুলিশকে জানানো হবে বলে ব্যবসায়ীরা পুলিশকে আশ্বাস দেয়।

সভায় কটেজ ও হোটেল ব্যবসায়ীরা জানান, অস্ট্রেলিয়ান তরুণীকে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনায় পর্যটন ব্যবসায়ে প্রভাব পড়েছে। অথচ ঘটনাস্থল ‘গুড ভিবে’ কটেজটির কোনো ধরনের অনুমোদন ছিল না। এ ঘটনায় বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে। ইতিমধ্যে মেরিন ড্রাইভ সড়কে অনেক কটেজ গড়ে উঠেছে। যেগুলোর দিকে ইতিবাচক নজরদারির দাবি জানান ব্যবসায়ীরা। অবৈধ কটেজ নির্মাণের বিষয়ে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (কউক) ভূমিকা নিয়ে সমালোচনা করেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা।

মত বিনিময় সভায় টুরিস্ট পুলিশের সুপার (এসপি) জিল্লুর রহমান বলেন, ‘কক্সবাজার সৈকত এলাকাকে চারটি অঞ্চলে ভাগ করা হবে। জোরদার করা হবে পুলিশি ব্যবস্থা। যাতে পর্যটকদের বিশেষ করে বিদেশিদের বিচরণস্থল যেন সুরক্ষিত থাকে। এ জন্য পুলিশের পাশাপাশি পর্যটন ব্যবসায়ীদেরও এগিয়ে আসতে হবে।’

সাগর পাড়ের লাবণী পয়েন্ট সৈকত সংলগ্ন টুরিস্ট পুলিশ কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত মত বিনিময় সভায় গেস্ট হাউজ মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কাশেম সিকদার, মারমেইড ইকো রিসোর্টের ব্যবস্থাপক মাহফুজ আলমসহ পর্যটন ব্যবসা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ বক্তব্য রাখেন।