বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:০২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

কক্সবাজারে শিশুদের সহায়তায় জাপানের কাছ থেকে ১ কোটি ৫৭ লাখ ডলার পেল ইউনিসেফ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৯ মে, ২০১৮
  • ২৯১ Time View

প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ-জাপান সরকারের কাছ থেকে পাওয়া ১ কোটি ৫৭ লাখ ডলারের তহবিলের মাধ্যমে বাংলাদেশের কক্সবাজারে শরণার্থী শিশু, নারী এবং একই সঙ্গে তাদের আশ্রয় প্রদানকারী স্থানীয় জনগোষ্ঠী, যারা নিজেরাও ঝুঁকির মুখে রয়েছে, তাদের জন্য মানবিক সহায়তা ও জীবন-রক্ষাকারী কার্যক্রম বাড়াচ্ছে ইউনিসেফ।
এই সংকটের শুরু থেকেই ইউনিসেফ তার স্থানীয় অংশীদারদের সঙ্গে মিলে জরুরি ভিত্তিতে অত্যাবশ্যকীয় জীবন-রক্ষাকারী সহায়তা কার্যক্রম চালু করে এবং এই সংকট মোকাবেলায় অর্থায়নের জন্য বিশ্বের প্রতি এরইমধ্যে আহ্বান জানিয়েছে। আন্তঃখাত সমন্বয় গ্রুপের (ইন্টার-সেক্টর কোঅর্ডিনেশন গ্রুপ) হিসাব অনুযায়ী, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা থেকে বাঁচতে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট থেকে এ পর্যন্ত ৬ লাখ ৭১ হাজারেরও বেশি মানুষ আশ্রয়ের খোঁজে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। তাদের মধ্যে ৩ লাখ ৮৯ হাজারের বেশি শিশু, যা তাদেরকে বিশ্বের অন্যতম বড় বাস্তুচ্যুত শিশুদের দলে পরিণত করেছে।
কক্সবাজারে ব্যাপক জনস্রোতের কারণে শরণার্থী শিশু ও তাদের পরিবার এবং একই সঙ্গে তাদের আশ্রয় প্রদাকারী স্থানীয় জনগোষ্ঠী, যারা ঝুঁকিতে আছে, তাদের অত্যাবশ্যকীয় প্রয়োজনগুলো জাপান সরকার চিহ্নিত করে এই জনগোষ্ঠীকে সহায়তার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
সদ্য-প্রাপ্ত এই অর্থ শরণার্থী শিশু ও নারী এবং তাদের পরিবারগুলোকে শিশু সুরক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, নিরাপদ খাবার পানি ও স্যানিটেশন সুবিধা প্রদান অব্যাহত রাখতে ইউনিসেফ ও তার সহযোগীদের সহায়তা করবে। এটি একই সঙ্গে আশ্রয় প্রদানকারী স্থানীয় কমিউনিটিগুলো থেকে আরও বেশি মানুষকে অন্তর্ভুক্ত করতে ইউনিসেফের সামনে সুযোগ তৈরি করবে এবং শরণার্থী সংকটের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলায় তাদের সক্ষমতা আরও জোরদার করবে।
বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোইয়াসু ইজুমি উল্লেখ করেন, “এই সংকটে ইউনিসেফ খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি ভূমিকা পালন করছে, বিশেষ করে নারী ও শিশুদের সুরক্ষায়। প্রতিটি শিশুরই একটি স্বপ্ন ও প্রত্যাশার অধিকার রয়েছে, এমনকি একটি সংকটময় পরিস্থিতিতে থাকার সময়েও।”
এই সংকটের প্রথম ছয় মাসের মধ্যে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় এই সহায়তাকে স্বাগত জানিয়ে ইউনিসেফ বাংলাদেশের প্রতিনিধি এডুয়ার্ড বেগবেদার বলেন, “অত্যন্ত সংকটময় একটি সময়ে এই সহায়তার জন্য জাপানের সরকার ও জনগণের প্রতি ইউনিসেফ বাংলাদেশ কৃতজ্ঞ। এই নতুন তহবিলের মাধ্যমে আমরা আরও জীবন বাঁচাতে এবং নিরাপদ খাবার পানি ও স্যানিটেশন সুবিধা, শিশু, নবজাতক ও গর্ভবতী মায়েদের স্বাস্থ্যসেবা প্রদানে আমাদের চলমান সেবা অব্যাহত রাখতে এবং ক্ষতিগ্রস্ত স্থানীয় জনগোষ্ঠীর স্বক্ষমতা জোরদারে আমাদের চলমান কার্যক্রমকে বেগবান করতে পারবো।”
২০১৭ সালের ২৫ অগাস্টের পর ব্যাপকহারে শরণার্থীদের আগমনের শুরু থেকেই শরণার্থী ও তাদের আশ্রয় প্রদানকারী স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে জরুরি মানবিক সহায়তা প্রদান এবং তাদের জন্য জীবন রক্ষাকারী কার্যক্রম পরিচালনায় ইউনিসেফকে সহায়তা দিয়ে আসছে জাপান সরকার। জাপান সরকার ও ইউনিসেফের মধ্যে নতুন এই অংশীদারিত্ব শরণার্থী এবং তাদের আশ্রয় প্রদানকারী স্থানীয় জনগোষ্ঠীর জন্য চলমান কর্মসূচিকে জোরদার করবে।
ইউনিসেফ তার সহযোগীদের সঙ্গে নিয়ে এপর্যন্ত তীব্র অপুষ্টিতে আক্রান্ত ১৫ হাজারেরও বেশি শিশুকে চিকিৎসা দিয়েছে; ১ লাখ ৪২ হাজার ৩ শ’র বেশি শিশুকে মানসিক সহায়তা প্রদান করেছে এবং ৩ লাখ ৫৪ হাজার ৯৮২ শিশুকে হাম-রুবেলার টিকা, ৪ লাখ ৩১ হাজার ৪৪৮ জন শিশুকে ডিপথেরিয়া ও ৭ লাখ ৪৮৭ শিশুকে কলেরার টিকা দিয়েছে। ইউনিসেফের সহায়তাপুষ্ট স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে এপর্যন্ত পাঁচ বছরের কমবয়সী ৫৩ হাজারেরও বেশি শিশুকে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করা হয়েছে।
স্থানীয় অংশীদার ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সঙ্গে মিলে ইউনিসেফ এখন পর্যন্ত ২ লাখ ৯১ হাজার ৭০০ মানুষকে নিরাপদ খাবার পানি ও ৩ লাখ ৯২ হাজার ২৫০ জনকে স্যানিটেশন সেবা প্রদান করছে এবং এই সেবা আরও জোরদার করার সংকল্প গ্রহন করেছে। ৪ থেকে ১৪ বছর বয়সী প্রায় ৯০ হাজার শিশু এখন ইউনিসেফের সহায়তাপুষ্ট ৮৬০টি শিক্ষা কেন্দ্রে পড়াশোনা করছে।
কক্সবাজার এলাকায় শরণার্থী সংকট মোকাবেলায় ইউনিসেফ ২০১৮ সালে ১৪ কোটি ৪৬ লাখ ডলার অর্থসহায়তার আবেদন জানিয়েছে। এই আবেদনের বিপরীতে এখন পর্যন্ত মোট আবেদনের ৩০ শতাংশ পেয়েছে ইউনিসেফ। সংকট মোকাবেলায় ও পূর্ণ সেবা নিশ্চিত করতে এখনও আরও ১০ কোটি ৮ লাখ ডলার প্রয়োজন।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH