বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:৫০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের প্রতি আকুল আবেদন-টেকনাফের প্রতি দৃষ্টি রাখুন,সাধারণ মানুষকে বাঁচান

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৮ জুলাই, ২০১৮
  • ৩৬৩ Time View

এ্যাডভোকেট ইছা রুহুল্লা :

টেকনাফ উপজেলার সদর ইউনিয়নের নাজিরপাড়া ০৮নং ওয়ার্ডে কিছু নামকরা ইয়াবা ইযাবা গডফাদার ও  ব্যবসায়ীরা বলে পুলিশ আমাদের পকেটে রাখি এবং আমাদের টাকা নিয়ে চলে! ইয়াবা ব্যবসায়ীরা এসব কিভাবে বলে, এসব বলার সাহস কোথায় থেকে পায়। দেশের প্রশাসনকে এভাবে বললে নিজেরও খারাপ লাগে। সরকার প্রশাসনের বেতন,ভাতা দ্বিগুণ বাড়িয়েছে। এরপর ও পুলিশ প্রশাসনকে কেন ইয়াবা ব্যবসায়ীরা বলবে আমাদের টাকা নিয়ে চলে। এধরনের কথা নিয়ে পুলিশ প্রশাসনের ভাবমূর্তিও ক্ষুন্ন হচ্ছে।

প্রশাসনের বেতন জনগণের ট্যাক্স এবং ভ্যাট দিয়ে চলে এবং জনগণের সেবক হিসেবে পরিচিত আজকে সে প্রশাসনকে নাজির পাড়ার কিছু ইয়াবা ব্যবসায়ীরা বলে আমাদের টাকা নিয়ে পুলিশ চলে এবং আমাদের পকেটে রাখি পুলিশকে। এখন অনেকে ইয়াবা ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও লেখালেখির কারণে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা সাংবাদিক এবং সাধারণ জনগণকে ঘরছাড়া, বাড়ী ছাড়া করছে এসবের দায়িত্ব এবং জীবনের নিরাপত্তা দেওয়া প্রশাসনের কাজ নয় কি। আজকে প্রশাসনের কাজ থেকে সাধারণ জনগণ এসব নিরাপত্তা পাচ্ছে না। আমরা এতে অনেক অসহায়।

যার কারনে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের ভয়ে প্রতিমুহুর্তে আতঙ্কে আছে সাধারণ জনগণ। নাজিরপাড়ার ইয়াবা ব্যবসায়ীদের একেক জনের ১০/১৫টি মামলার আসামী। এরা অপরাধ করে না, এমন কিছুই নাই। নাজির পাড়ার এলাকাবাসীরা কিছু চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ীদের কাছে জিম্মি । সাধারণ জনগণ কোন ধরনের প্রতিবাদ করতে পারছে না। সাধারণ মানুষ যখন প্রতিবাদ করে তখন তাদের উপর হামলা চালানো হয়। কেউ থানায় অভিযোগ করে আর কেউ মামলা করে এভাবে কিছু ইয়াবা ব্যবসায়ীদের ভয়ে সাধারণ মানুষের বসবাস।  আরো বলে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা পুলিশকে বিচার দিয়ে কি করবি।

পুলিশ আমাদের পকেটের টাকা নিয়ে চলে। যখন ক্রস ফায়ার চলছিল তখন ইয়াবা ব্যবসায়ীরা পলাতক ছিল। এবং সাধারণ জনগণ শান্তিতে বসবাস করছিল, স্বস্তিতে নি:শ্বাস ফেলেছিল। এখন দিন দিন ইয়াবা ব্যবসায়ীদের তান্ডব বেড়িয়ে যাচ্ছে। ইয়াবা ব্যবসায়ীদের পক্ষে যদি কথা বলে তাহলেই ভাল। আর যদি তাদের বিরুদ্ধে কথা বলে তাহলে দিন দুপুরে গুলি করে হত্যা করে। আবার গুলি করে কিরিচ দিয়ে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে। এধরনের ঘটনার অসংখ্য নজির রয়েছে, টেকনাফবাসি এর স্বাক্ষী। অনেকে পঙ্গু অবস্থায় বসবাস করে আসছেন। আবার,নাজির পাড়ার ইয়াবা ব্যবসায়ীরা প্রশাসনের হাত থেকে বাঁচার জন্য লম্বা, লম্বা দাঁড়ি রাখে। দেখলে বুঝা যায় ও কোন মাদ্রাসার ছাত্র এবং শিক্ষক। আসলে সে সুরা ফাতিহা পযর্ন্ত শুদ্ধভাবে পড়তে পারে না।

আমার জানা মতে,  নাজিরপাড়ার শতকরা ১০০ থেকে ৯০%  মানুষ কোন না কোনভাবে ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ইয়াবার সাথে সংশ্লিষ্ট। এসব ইয়াবা ব্যবসায়ীরা এখন কোটি কোটি টাকার মালিক এবং জায়গা জমি ও ফ্ল্যাট, বাড়ী-ঘরে মালিক। দৃস্টিনন্দন এসব বাড়ি টেকনাফে চোখে পড়ার মতো। এরা সবাই একসময় কেউ রিক্সার ড্রাইভার আর কেউ দোকানের কারিগর এবং কর্মচারী ছিল। আজকে তাদের কাছে  সাধারণ এলাকাবাসী জিম্মি। এলাকাবাসী এসব ইয়াবা ব্যবসায়ী থেকে বাঁচতে চাই।

আবার…

নাজিরপাড়ার ইয়াবা ব্যবসায়ীদেরকে ‘ইয়াবা ব্যবসায়ী’ বলা যায় না। কারণ ওদের লজ্জা লাগে, সম্মান নষ্ট হয়!  তাহলে ইয়াবা টাকা দিয়ে এত বড় বড় আলিশান ঘরবাড়ী,আবার জায়গাজমির মালিক হতে লজ্জা লাগেনি।        ইয়াবার টাকায় কেউ কেউ চার,পাঁচটা বাড়ীর মালিক, তাকে নাকি ইয়াবা ব্যবসায়ী বলা যায় না।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের প্রতি আবার আকুল আবেদন জানাচ্ছি যে, আপনি সরাসরি নাজিরপাড়ার ইয়াবা ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান। তারা কিভাবে বলতে পারে পুলিশকে আমরা আমাদের পকেটে রাখি। এবং আমাদের টাকা নিয়ে চলে। এসব ইয়াবা ব্যবসায়ী যারা প্রকাশ্যে বলে বেড়ায়, তাদের ডকুমেন্ট থেকে শুরু করে সবকিছু আমাদের কাছে আছে। আপনি ইয়াবা ব্যবসায়ীদের ছাড় দিবেন না। টেকনাফ উপজেলার প্রতি দৃষ্টি রাখুন। এসব ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করুন, তাদের অভেধ সম্পদ বায়েজাপ্ত করার ব্যবস্থা করুন। আপনার কাছে আমাদের অনুরোধ। আপনার কাছে সাধারণ জনগণের এমনটাই আশা রইল।

আপনি ইয়াবা ব্যবসায়ী থেকে সাধারণ জনগণকে রক্ষা করুন। আপনার কাছে সাধারন জনগনের পক্ষে স্মারকলিপি দেওয়া হবে। সেখানে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের মামলা নাম্বার থেকে শুরু করে তাদের নাম ঠিকানা উল্লেখ থাকবে।

আপনার প্রতি আমাদের আকুল আবেদন ‘মাদক মুক্ত সমাজ ও টেকনাফ জেলা চাই। আপনি চাইলে অবশ্যই পারবেন।

লেখক-

এড.ইছা রুহুল্লা,

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালত,

কক্সবাজার।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH