ফারহানা ইয়াসমিন।

সারাবিশ্বে বর্তমান সময়ে সবচেয়ে আলোচিত ও আলোড়িত বিষয়বস্তু হলো করোনা ভাইরাস।গত একমাস আগেও যার প্রভাব বাংলাদেশে খুবই নগন্য ছিলো। আর বর্তমানে তার প্রভাব এতটায় প্রবল হয়েছে যে লোকজন অপেক্ষা করে কখন জানতে পারবে আজ করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা কত,কত জন মারা গিছে,কাল কত ছিল,পরশু কত হবে। এভাবে প্রত্যেকদিনের সংখ্যা জানার জন্য সবাই ব্যাকুল। অথচ আমরা যদি এসব জানার জন্য ব্যাকুল না হয়ে সরকার ঘোষিত নিয়ম-কানুন মেনে চলার চেষ্টা করি তাহলে হয়ত এই মরণ ব্যাধি মোকাবিলা করতে পারবো।

বর্তমানে দেশ লকডাউনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। সেটা কে না জানে? এবং কেন লকডাউন হচ্ছে তার কারণও জানি আমরা। এগুলো জানার পরেও আমরা কি পারি না দেশের লকডাউন কে লকডাউনের মত করে দেখা। ২-৪ মাস আত্মীয় স্বজনের বাসায় বেড়াতে না গিয়েও বেঁচে থাকা যায়। তারপরে কেন আমরা নানান অজুহাত দিয়ে বাইরে বের হচ্ছি?

সরকারের কোটি কোটি টাকা লোকসান হচ্ছে,দেশের অর্থনীতির ক্ষতি হচ্ছে । তা সত্ত্বেও সরকারই দেশের জনগনের কথা চিন্তা করে লকডাউন করেছে। কিন্তু বর্তমানে দেখা যাচ্ছে কিছু সংখ্যক লোকজন সরকারের এসব সিদ্ধান্তের ভ্রুক্ষেপ না করে সরকারের সমালোচনা করায় ব্যস্ত। তারা বলছে সরকার যে কি একটা ঝামেলা ফেললো জনগনকে। বাইরে বের হতে দিচ্ছে না,যানবাহন বন্ধ করে রেখেছে,চায়ের দোকান, খেয়াঘাট সহ সব অচল করে রেখেছে।

আর এই লকডাউনে কিছু সংখ্যক ব্যক্তি রাতারাতি চাল,ডাল,তেলের গুদাম বানিয়ে ফেলছে। অথচ এই সংকটকালীন সময়ে গরিবের ত্রান আত্মসাৎ করে গুদামে না ভরে তাদের পাশে দাড়ানোর কথা ছিল।

ইতিমধ্যে দেখা যাচ্ছে শহরমুখী লোকজন গ্রামে আসা -যাওয়া শুরু করেছে। এবং তারা ১৪দিন হোম কোয়ারান্টাইনে থাকা তো দূরের কথা ইচ্ছা মত চলাফেরা করছে।যশোরের কেশবপুরে এমনটা দেখা যাচ্ছে।

সর্বোপরি,এসময় অধৈর্য না হয়ে ঘরে থেকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে এবং আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করতে হবে আমাদের স্বাভাবিক জীবন পুনরায় ফিরে পাওয়ার জন্য।

লেখকঃ- ফারহানা ইয়াসমিন, শিক্ষার্থী,সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়।