মঙ্গল. আগ ৪, ২০২০

আলোকিত টেকনাফ

বিশ্বজুড়ে টেকনাফের প্রতিচ্ছবি

কার্ডিফ কাব্যের দেড় যুগ: ক্রিকেট নাকি রূপকথা?

১ min read

স্পোর্টস ডেস্ক

ঘটনা আজ থেকে ঠিক দেড় দশক আগে, ২০০৫ সালে। ইংল্যান্ডের মাটিতে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলতে গিয়েছিল বাংলাদেশ। সেই টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ম্যাচটি ছিল ১৮ জুন, প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া, ভেন্যু ছিল কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেন। তখনও পর্যন্ত প্রায় ১৯ বছরের ওয়ানডে যাত্রায় বাংলাদেশ জিতেছিল ৯টি মাত্র ম্যাচ। ফলে মহাপরাক্রমশালী অস্ট্রেলিয়ার কাছে পরাজয়ই যেন ছিল স্বাভাবিক ফলাফল। কিন্তু সেদিন অস্বাভাবিক ঘটনারই জন্ম দিয়েছিল হাবিবুল বাশারের দল। বল হাতে মাশরাফি বিন মর্তুজা, মোহাম্মদ রফিক, তাপস বৈশ্যদের পর ব্যাট হাতে মোহাম্মদ আশরাফুলের অবিস্মরণীয় সেঞ্চুরির সঙ্গে অধিনায়ক বাশারের কার্যকরী ইনিংসে জয় পায় বাংলাদেশ। যা এখনও পর্যন্ত ওয়ানডে ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের একমাত্র জয়।

ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসের ২২৫০ তম ম্যাচ সেটি। প্রতাপশালী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলতে নামছে হাবিবুল বাশার এর বাংলাদেশ দল। অস্ট্রেলিয়ার সেই দলের স্কোয়াডটি মনে করিয়ে দেয়া প্রয়োজন। দুই দলের যোজন যোজন ব্যবধানটা ফুটে উঠবে এতে। গিলক্রিস্ট হেইডেন এর বিখ্যাত ওপেনিং জুটি। সাথে রিকি পন্টিং ডেমিয়েন মার্টিন এবং মাইকেল ক্লার্ক। এর সাথে মিস্টার ক্রিকেট মাইক হাসি এবং সাইমন ক্যাটিচ। বোলিং আক্রমনে সেদিন ছিলেন বোলিং লিজেন্ড গ্লেন ম্যাকগ্রা সাথে ছিলেন জ্যাসন গিলেস্পি,মাইকেল ক্যাচপ্রোইজ,এবং ব্র্যাড হগ।

২০০৫ সালের ১৮ জুন,কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেন এ টস জিতে ব্যাটিং এর সিদ্ধান্ত নেয় অস্ট্রেলিয়া। মাশরাফির হাতে নতুন বল তুলে দেন ক্যাপ্টেন বাশার। ইনিংস এর প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলে শূন্য হাতে ০ রানেই ফিরিয়ে দেন গিলক্রিস্টকে। এরপর ক্রিজে আসলেন তৎকালীন নাম্বার ওয়ান ব্যাটসম্যান রিকি পন্টিং। এবার শিকারীর ভূমিকায় তাপস বৈশ্য। অবশ্য তাতে অস্ট্রেলিয়ার কি এসে যায়। লম্বা ব্যাটিং লাইনআপ তাদের। এরপর ডেমিয়েন মার্টিনের ৭৭ মাইকেল ক্লার্ক এর ৫৪ এবং শেষ দিকে মাইক হাসি ও ক্যাটিচ এর ঝড়ো ব্যাটিং এ অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ দাঁড়ায় ৫০ ওভারে ২৪৯ । মাশরাফি সেই ম্যাচে ১০ ওভারে ৩৩ রান দিয়েছিলেন মাত্র।

অবশ্য ২০০৫ সালে ওয়ানডে ক্রিকেটে ২৫০ রান অনেক। আর বাংলাদেশ তো তখন পুঁচকে এক দল! লড়াই করতে পারাটাই যেন বিজয়ের সমান। হয়ত তাই দলের মান বাঁচাতেই ব্যাটিং এর হালখাতা খুলতে ক্রিজে এসেছিলেন জাবেদ ওমর বেলিম এবং নাফিস ইকবাল। বেলিম সেদিন খেলছিলেন তাঁর স্বভাবসুলভ ধীরগির ভঙ্গিতে। ৫১ বলে তাঁর অর্জন ১৯ রান। এর আগেই অবশ্য নাফিস ইকবাল আউট হন ২১ বলে ৮ রান করে। তুষার ইমরান ওয়ানডাউনে খেলতে এসে কিছুটা চেষ্টা করেছিলেন বটে। ৩৫ বলে ২৪ রান করে তিনিও আউট হয়ে যান।

৭২ রানেই তিন উইকেট নেই বাংলাদেশের। অর্ধেক ইনিংস মানে ২৫ ওভার শেষে স্কোর মাত্র ৮১ রান। ২৫০ রানের লক্ষ্যকে তখন পাহাড়সমই মনে হচ্ছিলো বাংলাদেশী ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছে। কারন তাঁরা হয়ত ঘুণাক্ষরেও ভাবতে পারেননি কি অকল্পনীয় একটি মুহুর্ত উপহার দিতে চলেছেন টাইগার বাহিনী। আরো আলাদা করে বললে বলতে হয় মোহাম্মদ আশরাফুল। তুষার ইমরানের বিদায়ের পরে হাবিবুল বাশার এবং আশরাফুল মিলে গড়লেন ১৩০ রানের বিশাল জুটি।

বাশার ৪৭ এ রান আউটে কাঁটা পড়লেও মোহাম্মদ আশরাফুল খেললেন এক মহাকাব্যিক ইনিংস। স্বভাবের বাইরে গিয়ে মাথা গরম করে অকাতরে উইকেট বিলিয়ে আসা আশরাফুলকে দেখা গেলো অন্য এক রুপে। পুল শট অথবা হুক শটে অজি বোলারদের নাস্তানাবুদ করে ঠিক ১০০ বলে করলেন ১০০ রান। তরুণ আশরাফুলের দিকে সেদিন মুগ্ধ হয়ে তাকিয়ে থাকা বাদে কিছুই করার ছিলনা ওয়ানডে ইতিহাসের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক রিকি পন্টিংয়ের।

অবশ্য তখনও জয়ের বাকি ছিল বেশ খানিকটা পথ। আশরাফুল তুলে নেন ক্যারিয়ারের প্রথম ও বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের মাত্র দ্বিতীয় ওয়ানডে সেঞ্চুরি। তবে শতক পূরণ করার পরের বলেই তিনি আউট হয়ে যান। তার ১১ চারে সাজানো ১০০ রানের ইনিংসটিই হয়ে থাকে বাংলাদেশের জয়ের ভিত। আশরাফুল আউট হওয়ার সময় বাংলাদেশের দরকার ১৭ বলে ২৩ রান।

সেটাও রীতিমত অসম্ভব ছিল টাইগারদের পক্ষে। তবে ক্রিকেট বিধাতা নিজ হাতে সেদিন রূপকথা লিখেছিলেন। যেখানে শেষের নায়ক আফতাব আহমেদ। ১৩ বলে ২১ রানের এক বিধ্বংসী ইনিংসের কল্যাণে টাইগারদের লক্ষ্য নেমে আসে শেষ ওভারে ৬ বলে ৭ রানে। গিলেস্পির করা সেই ওভারের প্রথম বলেই লং অন আর মিড উইকেটের মাঝামাখি জায়গা দিয়ে ছক্কা হাঁকান আফতাব আহমেদ। পরের বলেই সিঙ্গেল নিয়ে নিশ্চিত করেন অবিস্মরণীয় এক জয়।

আপনার মন্তব্য দিন
error: বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে এই সাইটের কোন উপাদান ব্যবহার করা সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ এবং কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ।