বাড়িআলোকিত টেকনাফকোরবানি পশুর হাট, কক্সবাজারে চলছে দেখাদেখি, জমে উঠেনি বিক্রি

কোরবানি পশুর হাট, কক্সবাজারে চলছে দেখাদেখি, জমে উঠেনি বিক্রি

কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ-

দুয়ারে কড়া নাড়ছে কোরবানের ঈদ। এরইমধ্যে কক্সবাজারের প্রায় পশুর বাজার শুরু হয়ে গেছে। গরু-মহিষে বাজার জমজমাট হলেও এখনো দেখাদেখি চলছে। বিক্রি তেমন জমে উঠেনি।

জানা গেছে, কক্সবাজার জেলার আট উপজেলায় স্থায়ী-অস্থায়ী মিলিয়ে ৫৩ টি কোরবানি পশুর বাজার নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে প্রায় সব বাজার চালু হয়ে গেছে। তবে এখনো বিক্রি জমে উঠেনি। আগামী রোববার থেকে পশুর বাজার জমজমাট হবে বলে আশাবাদী ব্যবসায়ীরা।

কক্সবাজার সদর উপজেলার সবচেয়ে বড় পশুর হাট ঝিলংজার খরুলিয়া বাজার। গতকাল বৃহস্পতিবার (১৬ আগষ্ট) এই বাজারটি শুরু হয়েছে। খরুলিয়া বাজারের ব্যবসায়ী মো. তারেক জানান, বাজারে পর্যাপ্ত পরিমাণ পশু উঠলেও এখনো বিক্রি কম। ক্রেতারা ঘুরে ঘুরে বাজার পরিস্থিতি দেখছেন। কেউ কেউ আবার দর-দামও কষাকষি করছেন।

শুক্রবার (১৭ আগষ্ট) রামুর কলঘরবাজার পশুর হাটে গরু কিনতে যান শহরের টেকপাড়া এলাকার বাসিন্দা মোহাম্মদ রুবেল। তিনি বলেন, এবারের বাজারে বড় গরুর সংখ্যা বেশি। ছোট গরু তেমন নেই। উঠলেও দাম বেশি। এখনো শুরুর দিকে, তাই ব্যবসায়ীরা দাম হাকিয়ে বসে আছেন। আশাকরি ২/১ দিনের মধ্যে দাম স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

টেকনাফের সবচেয়ে বড় কোরবানির পশুর হাট টেকনাফ পাইলট হাইস্কুলের মাঠ। গতকাল এই বাজারটিও শুরু হয়েছে। এই বাজারে স্থানীয় পশুর পাশাপাশি মিয়ানমারের গরুর আধিপত্য বেশি দেখা যাচ্ছে।

টেকনাফের পশু ব্যবসায়ী নুরুল কবির জানান, শুরুতে থেকেই জমজমাট বাজার। ক্রেতার সমাগম বেশি হলেও এখনো তেমন বিক্রি হচ্ছে না। আশাকরি আগামী রোববার থেকে বিক্রির ধুম পড়বে।

টেকনাফ পৌরসভার বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম বলেন, টেকনাফের মানুষ সবচেয়ে বড় পশু (গরু ও মহিষ) কোরবানি দেয়। সেই অনুযায়ী ব্যবসায়ীরাও বাজারে বড় গরু-মহিষ বেশি তুলে। এখন থেকেই কম-বেশি পশু কেনা শুরু করে দিয়েছে লোকজন।

জেলা প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এবার জেলায় কোরবানিযোগ্য পশুর চাহিদা রয়েছে ৮৪ হাজার। প্রায় ২ হাজার ১৪ জন খামারী বাজারে কোরবানি পশু তুলবে। এবার পশু সংকট পড়ার কোন আশঙ্কা নেই। এরফলে মিয়ানমার থেকে আমদানী পশুর প্রতি নির্ভরতা কমে যাবে।

সূত্র আরও জানায়, কক্সবাজার জেলার আট উপজেলায় স্থায়ী-অস্থায়ী মিলিয়ে ৫৩টি কোরবানির পশুর হাট নির্ধারণ করা হয়েছে। এরমধ্যে সদর উপজেলায় ৭টি, রামুতে ৬টি, চকরিয়ায় ১১ টি, পেকুয়ায় ৪টি, উখিয়ায় ৬টি টেকনাফে ৭টি, মহেশখালীতে ৯টি ও কুতুবদিয়ায় ৭টি।

জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, বাজারে কোরবানি পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার জন্য ২০ টি মেডিকেল টিম ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে। এছাড়া কোরবানির বাজার গুলো পুলিশের পক্ষ থেকে জালনোট সনাক্ত করতে মেশিন বসানো হয়েছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মাহিদুর রহমান বলেন, পশু বাজার গুলোতে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে। ক্রেতা-বিক্রেতারা নিরাপদে পশু বেচা-কেনা করতে পারবেন।

RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments