বাড়িআলোকিত টেকনাফজমে উঠেছে সাবরাং সিকদার পাড়া বাজারের হাট,দেশি গরুর দখলে

জমে উঠেছে সাবরাং সিকদার পাড়া বাজারের হাট,দেশি গরুর দখলে

||| ছৈয়দ হোছাইন মামুন, সাবরাং সিকদার পাড়া পশুর হাট থেকে ফিরে  |||

ঈদুল আজহার আর মাত্র পাঁচ দিন বাকি। ইতিমধ্যে জমে উঠেছে সাবরাং সিকদার পাড়া বাজারের পশুর হাট। এ বছর দেশি গরু দখল করে নিয়েছে কোরবানির পশুর হাটগুলো।

এদিকে ক্রেতারা জানান, হাটে কোরবানির পশু পর্যাপ্ত বলে মনে হচ্ছে না। তবে দাম নিয়ে রয়েছে ভিন্নমত। ঈদের বাকি আর মাত্র পাঁচ দিন। এখনো  বিভিন্ন স্থান থেকে কোরবানির পশু নিয়ে সাবরাং সিকদার পাড়া বাজারের পশুর  হাটে আসছেন বিক্রেতারা। আজ শুক্রবার সকাল থেকে জমে উঠতে শুরু করে সাবরাং সিকদার পাড়া বাজারের পশুর হাট।

ছবিঃ ছৈয়দ হোছাইন মামুন

বিক্রেতারা আশা করছেন, আজ ও কাল কোরবানির হাটের পশু বিক্রি আরো বাড়বে। ঈদের আগের দুই দিন ক্রেতা উপস্থিতি সবচেয়ে বেশি হবে বলে আশাবাদ বিক্রেতাদের। এদিকে ক্রেতারাও চাইছেন, শেষ সময়ে এসে সাধ্যের মধ্যে ভালো পশুটা কিনতে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, বিদেশি গরুও বাজারে রয়েছে। তবে সংখ্যায় এখনো কম। শেষ মুহূর্তে ভারতের গরু বাজারে ঢুকে গেলে তাদের পানির দরে গরু বিক্রি করতে হবে। ব্যবসায়ীদের দাবি, ভারতের গরু যেন কোনো অবস্থাতেই বাজারে না আসে।

সকাল থেকেই ক্রেতাসমাগম কিছুটা কম দেখা গেলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তা বাড়তে থাকে। ধীরে ধীরে হাট আরো সরগরম হয়ে উঠবে বলে প্রত্যাশা বিক্রেতাদের।

হাট ঘুরে দেখা গেছে, দাম কম-বেশি নিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতাদের মধ্যে অভিযোগ-অনুযোগ থাকলেও দাম একেবারে খুব বেশি এমনটা এখনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। ক্রেতার উপস্থিতি কম, তবে যারাই আসছেন তার মধ্যে অনেকেই গরু কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।

ছবিঃ ছৈয়দ হোছাইন মামুন

সাবরাং খেলার মাঠে স্থাপিত বাজারে গরু নিয়ে এসেছেন মনজুর নামের এক ব্যাপারী। তিনি বলেন, এ পর্যন্ত তিনটি গরু বিক্রি করেছেন তিনি। তার দাবি, ক্রেতারা যে দাম হাঁকাচ্ছেন তাতে কেনা দামও আসছে না। এমনটি হলে লোকসান গুনতে হতে পারে।

শাকের নামের এক ক্রেতা বলেন, সাড়ে চার মণ ওজনের একটি গরুর জন্য এক লাখ দশ হাজার টাকা চাইছেন এক বিক্রেতা। এটা স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক বেশি।

হাটের অন্যান্য ইজারাদাররা জানান,  ঈদ ঘনিয়ে আসায় শেষ দিন থেকে বেচা-বিক্রির ধুম পড়বে।

তারা জানান, দাম স্বাভাবিক আছে। বাজারে চার মণ ওজনের একটি গরু ৬০ থেকে ৬৫ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে পেশাদার গরু ব্যবসায়ী শফিউদ্দিনের মতে, শেষ দুই দিনে গরুর সংখ্যাই দাম নির্ধারণ করে দেয়। যত স্বাভাবিক থাকুক না কেন- কোনো কারণে গরুর ঘাটতি হলে দাম লাফিয়ে বাড়বে। আর বেশি গরু থাকলে লোকসান গুনতে হবে বিক্রেতাদের।

RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments