শাহ্‌ মুহাম্মদ রুবেল
সম্পাদক
আলোকিত টেকনাফ ডটকম 

কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপের কৃতি সন্তান সোহাম খান গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছেন। রাজধানী ঢাকার নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যাচেলর অব বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশন (বিবিএ) বিষয়ে পড়াশুনা শেষ করে তিনি এ ডিগ্রী অর্জন  করেন।  

গেল ১৪ অগাস্ট (শনিবার) বিশ্ববিদ্যালয়র সমাবর্তন অনুষ্টানে তাকে সনদ তুলে দেয়া হয়। 

উল্লেখ্য, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের বেসরকারি পর্যায়ের একটি উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত এই বিশ্ববিদ্যালয়টি দেশের প্রথম সরকার অনুমোদিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। এটি ঢাকা শহরের বারিধারাস্থ বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় অবস্থিত। 

দুবাইতে জন্ম ও বেড়ে ওঠা।  তার বাবা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী,সমাজ সেবক, আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ ইসমাইল সিআইপি। 

সোহাম খান দুবাইতে মাধ্যমিক ও উচ মাধ্যমিক শেষ করে ২০১৬ সালের দিকে বাংলাদেশে আসেন। ছোটবেলা থেকেই ইচ্ছে ছিলো নিজেকে টেলিভিশনের পর্দায় দেখার। সেই ইচ্ছেকে পূর্ণতা দিতে বিভিন্ন এজেন্সি থেকে শুরু করে পরিচিতজনদের মাধ্যমে মিডিয়াতে যোগাযোগ রাখতে শুরু করেন তিনি। অডিশনের জন্য বিভিন্ন জায়গায় গিয়েছেন, অডিশন দিয়েছেন। প্রতিবারই রিজেক্ট হয়েছেন। তারপরও আশা ছাড়েননি এই তরুণ।

৪০ বার অডিশন দেওয়ার পর একটি বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবে সিলেক্ট হন সোহাম। ২০১৭ সালে এয়ারটেলের বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রথম ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান তিনি। এটি নির্মাণ করেছিলেন শংখ দাশ গুপ্ত। প্রথম বিজ্ঞাপনেই ভালো সাড়া পান। এরপর একাধারে কাজ করেন বহু বিজ্ঞাপনে। মডেল হয়েছেন ৫০টিরও বেশি বিজ্ঞাপনে। সেইসাথে কাজ করেছেন নাটক ও মিউজিক ভিডিওতেও। তার বিজ্ঞাপনগুলোর মধ্যে রয়েছে- এয়ারটেল, রবি, বাংলালিংক, গ্রামীণফোন, সেন্টার ফ্রুট, সিঙ্গার, কোকাকোলা, বিএসআরএম, বার্গার কিং, শার্প, দারাজ, প্রাণ আর এফ এল, বঙ্গ বাবা, ইভ্যালি, টিপ চার্জার, কুড়কুড়ে, নিহার আমলা, ফ্রেশ টিস্যু ইত্যাদি। নাটকের মধ্যে রয়েছে ‘অভিশাপ’, যেটি বানিয়েছেন শুভ্র খান ও শ্রাবণী ফেরদৌস এবং রিফাত আদনান পাপনের ‘প্রিয়তমা’। এছাড়াও ওয়েব সিরিজ ‘জিরো এক্সকিউস’। সেইসাথে প্রস্তাব পেয়েছিলেন সিনেমারও। ২০১৯ সালে শাকিব খান প্রযোজিত ‘পাসওয়ার্ড’ সিনেমায় শাকিবের ভাইয়ের চরিত্রে অভিনয়ের প্রস্তাবও পান তিনি। কিন্তু সেটি ফিরিয়ে দেন সোহাম।

সম্প্রতি প্রকাশ পেয়েছে তার নতুন মিউজিক ভিডিও। গ্রামীণফোন প্রযোজিত এ গানের শিরোনাম ‘ভাবনাপুর’। অটোমনাল মুনের কথায় গানের সুর ও সঙ্গীতায়োজন করেছেন ফুয়াদ আল মুক্তাদির। গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন ‘নতুন গানের খোঁজে’র ৩য় বিজয়ী সৈয়দ তাহসিন আনজুম তুর্য। ফুয়াদ নাসেরের ভিডিও পরিচালনায় সোহাম খানের সঙ্গে মডেল হয়েছেন সাদিয়া আয়মান। গান ভিডিওটি থেকে বেশ ভালো সাড়া পাচ্ছেন বলেই জানান তিনি।

সোহাম খান বলেন, এটি আমার দ্বিতীয় মিউজিক ভিডিও। এর আগে প্রিয়তমা শিরোনামে একটি গানে কাজ করেছিলাম। সত্যি বলতে কাজটি আমার ভীষণ পছন্দের। প্রচারে আসার পর থেকে কাজটির জন্য ভালো রেসপন্স পাচ্ছি। আমার যারা পরিচিত আছেন, সবাই বেশ প্রশংসা করছেন।

তরুণ এই মডেলের স্বপ্ন বহুদূর যাওয়ার। শুরুটা সহজভাবে না হলেও নিজের আত্মবিশ্বাসের কারণে এখনো কাজ করে যাচ্ছেন আপন মনে। তিনি বলেন, আমার ছোটবেলা থেকেই শখ ছিলো নিজেকে টিভি পর্দায় দেখার। যার কারণে দেশে এসে বিভিন্ন মাধ্যমে যোগাযোগ করতে থাকি। ৪০টির মতো অডিশন দেওয়ার পর আমি সুযোগ পেয়েছি কাজ করার জন্য। প্রথম দিকে খারাপ লাগতো। একটা সময় মনে হয়েছিলো যে, আমাকে দিয়ে হয়তো কিছু হবে না। তারপরও হাল ছাড়ি নি। তারপর আলহামদুলিল্লাহ, অনেক কাজের সুযোগ পেয়েছি। নিজের যোগ্যতা কিছুটা হলেও হয়তো প্রমাণ করতে পেরেছি।

প্রথম বিজ্ঞাপনটি থেকেই বেশ ভালো সাড়া পাই আমি। এরপর ২০১৯ সালে ‘সিঙ্গার’ এর বিজ্ঞাপনটি ছিলো আমার জন্য ব্রেক থ্রু। এটি দিয়ে দর্শকদের অনেক কাছে চলে আসি। আমাকে একটু একটু করে চিনতে শুরু করে। এরপর থেকে বহু কাজের প্রস্তাব পেতে শুরু করি। এতটুকু সময়ের মধ্যে যে ভালোবাসা পেয়েছি, এতেই আলহামদুলিল্লাহ। 

‘সিঙ্গার’ এবং ফ্রেশ টিস্যু বিজ্ঞাপন দুটি আন্তর্জাতিক অ্যাওয়ার্ডও লাভ করে। ‘সিঙ্গার’ এর বিজ্ঞাপনটি ব্যাপক সাড়া পাওয়ার পর শাকিব খান প্রযোজিত ‘পাসওয়ার্ড’ সিনেমায় তার ভাইয়ের চরিত্রে অভিনয়ের প্রস্তাব পাই আমি। আমার কাছে সিনেমার জন্য এটা সঠিক সময় মনে হয়নি তাই কাজটি ফিরিয়ে দিয়েছি, পরে সেটি মামনুন ইমন ভাইয়া করেন। সিনেমার জন্য আলাদা প্রস্ততি এবং সময়ের ব্যাপার রয়েছে। যার কারণে কাজটি করা হয়নি আমার।

সোহামের ইচ্ছে বিভিন্ন ফিকশন এবং ওয়েব কন্টেন্টে কাজ করার। এছাড়াও এখন ওটিটিতে অনেক ভালো কাজ হচ্ছে বলে বিশ্বাস করেন তিনি। নিজেকে সেসব কাজের সঙ্গে যুক্ত করতে চান। তিনি বলেন, ওয়েব সিরিজ বা ওয়েব কন্টেন্ট এখন বেশ ভালো হচ্ছে। সেগুলোতে কাজ করার ইচ্ছে আছে।

পরাশুনা, অভিনয়ের পাশাপাশি খেলাধুলায় ও সমান পারদর্শী সোহাম খান। দুবাইতে স্ট্রেট ভলিবল প্লেয়ার ছিলেন। ২০১৪ সালে সেখানে স্টেট ভলিবল প্লেয়ার অফ দ্যা ইয়ার এর সম্মাননা পাই। ইন্ডিয়াসহ বেশ কিছু যায়গায় ভলিবল টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করেছিলেন তিনি।

ক্যামেরার সামনে আসার আগ্রহ কিভাবে জন্ম নেয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, নাটক বা বিজ্ঞাপন করার স্বপ্ন আমার ছোটবেলা থেকেই ছিল। আমি যখন ক্লাস ৭ এ পড়ি ঈদ এ নানু দুবাই এসেছিলো। তখন আমি নানুকে টিভিতে বিভিন্ন বিজ্ঞাপন দেখিয়ে বলতাম আমিও একদিন টিভি তে আসবো। তখন নানু বলতো ইনশাআল্লাহ তোমার স্বপ্ন পূরণ হবে। এর পর আমি বাংলাদেশে এসেই কাজ শুরু করেছি। প্রথমে একটু কষ্ট হয়েছিল, কারণ আমি মিডিয়ার কাউকে চিনতাম না। তবে আস্তে আস্তে ব্যাপার গুলো সহজ হয়ে গিয়েছে।

অডিশন দেওয়ার পর অনেক বার রিজেক্ট হয়েছি তবে পরে আবার কাজ পেয়েছি। আমি জীবনে কখনো হার মানি নাই । আমি কাজ করেই যাচ্ছি। নিজের যোগ্যতায় এখন পর্যন্ত ৫০ টা টিভিসি করেছি। আসলে আল্লাহর দোয়া এবং মানুষের ভালোবাসায় এতদূর পর্যন্ত আসতে পড়েছি।

আমি অনেক বেছে বেছে কাজ করি। আমি অডিয়েন্স কে ভালো কাজ দেখাতে চাই। আমি অডিয়েন্স কে ভালো কাজের মাধ্যমে বিনোদন দিতে চাই। এমন না যে আমি শুধু কাজ করতে থাকবো আর সবাই বলবে যে ও তো সব ধরনের কাজ করে।এইটা আমি চাইনা।

অভিনয় করবেন বলে ঠিক করার পর পরিবার কেমন সাপোর্ট করে আপনাকে জানতে চাইলে উত্তরে সোহাম খান বলেন, আমার পরিবারের কেউ মিডিয়ার না। প্রথম যখন কাজ করতাম তখন অনেকেই বলতো এত কষ্ট করে কেন এইগুলো করতেসি। এইগুলো করা লাগবেনা। তখন আমি বলতাম যে আমার নিজের একটা পরিচয় বানানোর জন্য আমি করবো। আমার যতই কষ্ট হোক, আমি করবো। আমি ক্যামেরার সামনে কাজ করে নিজের পরিচয় বানাবো। তখন ২০১৬ সাল থেকেই আমি এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম।

১/২ টা কাজ করেছি তখন পরিবার তেমন একটা গুরুত্ব দেয়নাই যখন তারা বুঝতে পেরেছে আমি এই কাজে অনেক খুশি তখন আমাকে অনেক সাপোর্ট করেছে। আমার আব্বু আম্মু আমাকে সবসময় সাপোর্ট করেছে। যখন আমি ২০১৭ সাল থেকে একক কাজ শুরু করেছি তখন তারা খুব গর্ব করতো। আমার কাজ দেখতেন এবং শেয়ার করতেন সবাইকে।

এদিকে সন্তানের এমন সাফল্যে উচ্ছ্বসিত পিতা মোহাম্মদ ইসমাইল সিআইপি বলেন, সন্তান আল্লাহ প্রদত্ত নেয়ামত। সন্তানকে সুশিক্ষার পথ দেখানো এবং সুপথে গাইড করা প্রত্যেক মা বাবার নৈতিক কর্তব্য। আল্লাহ আমার সন্তানকে পড়াশুনা করিয়ে উচ্চ শিক্ষা অর্জনের সুযোগ দেয়ায় আমি মহান রবের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি এবং আমার সন্তান যাতে আরো উচ্চ শিক্ষিত হয়ে দেশের মানুষের সেবা করতে পারে সে প্রার্থনা করছি।