সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৬:৫৬ পূর্বাহ্ন

টেকনাফের কোরবানির পশুর হাটে স্থানীয় পশুর পাশাপাশি মিয়ানমারের গরুর আধিপত্য

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৮
  • ৪৬৪ Time View

মিজানুর রহমান মিজান, স্পেশাল করস্পন্ডেন্টঃ–

দুয়ারে কড়া নাড়ছে কোরবানের ঈদ। এরইমধ্যে টেকনাফের প্রায় পশুর বাজার শুরু হয়ে গেছে। গরু-মহিষে বাজার জমজমাট হলেও এখনো দেখাদেখি চলছে। বিক্রি তেমন জমে উঠেনি।

টেকনাফের সবচেয়ে বড় কোরবানির পশুর হাট টেকনাফ পাইলট হাইস্কুলের মাঠ। গতকাল এই বাজারটিও শুরু হয়েছে। এই বাজারে স্থানীয় পশুর পাশাপাশি মিয়ানমারের গরুর আধিপত্য বেশি দেখা যাচ্ছে।

টেকনাফের পশু ব্যবসায়ী নুরুল কবির জানান, শুরুতে থেকেই জমজমাট বাজার। ক্রেতার সমাগম বেশি হলেও এখনো তেমন বিক্রি হচ্ছে না। আশাকরি আগামী রোববার থেকে বিক্রির ধুম পড়বে।

টেকনাফ পৌরসভার বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম বলেন, টেকনাফের মানুষ সবচেয়ে বড় পশু (গরু ও মহিষ) কোরবানি দেয়। সেই অনুযায়ী ব্যবসায়ীরাও বাজারে বড় গরু-মহিষ বেশি তুলে। এখন থেকেই কম-বেশি পশু কেনা শুরু করে দিয়েছে লোকজন।

জেলা প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এবার জেলায় কোরবানিযোগ্য পশুর চাহিদা রয়েছে ৮৪ হাজার। প্রায় ২ হাজার ১৪ জন খামারী বাজারে কোরবানি পশু তুলবে। এবার পশু সংকট পড়ার কোন আশঙ্কা নেই। এরফলে মিয়ানমার থেকে আমদানী পশুর প্রতি নির্ভরতা কমে যাবে।

সূত্র আরও জানায়, কক্সবাজার জেলার আট উপজেলায় স্থায়ী-অস্থায়ী মিলিয়ে ৫৩টি কোরবানির পশুর হাট নির্ধারণ করা হয়েছে। এরমধ্যে সদর উপজেলায় ৭টি, রামুতে ৬টি, চকরিয়ায় ১১ টি, পেকুয়ায় ৪টি, উখিয়ায় ৬টি টেকনাফে ৭টি, মহেশখালীতে ৯টি ও কুতুবদিয়ায় ৭টি।

জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, বাজারে কোরবানি পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার জন্য ২০ টি মেডিকেল টিম ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে। এছাড়া কোরবানির বাজার গুলো পুলিশের পক্ষ থেকে জালনোট সনাক্ত করতে মেশিন বসানো হয়েছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মাহিদুর রহমান বলেন, পশু বাজার গুলোতে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে। ক্রেতা-বিক্রেতারা নিরাপদে পশু বেচা-কেনা করতে পারবেন।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH