বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১১:০৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

টেকনাফের পৌর কাউন্সিলর একরামুল হক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হওয়ার পর থমকে গেছে মাদক বিরোধী অভিযান

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৫ জুন, ২০১৮
  • ৪৮৯ Time View

আলোকিত টেকনাফ রিপোর্টঃ-

কক্সবাজারের টেকনাফের পৌর কাউন্সিলর একরামুল হক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হওয়ার ঘটনার অডিও রেকর্ড প্রকাশ হওয়ার পর যেন ছন্দপতন ঘটেছে চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে। চলতি সপ্তাহে কমেছে কথিত বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা। বহুল আলোচিত ওই অডিও ভাইরাল হওয়ার পর গত চারদিনে মাত্র ৭ জন কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। এ নিয়ে গত ২০ দিনের অভিযান পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন স্থানে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১৩১ জন মাদক কারবারি নিহত হয়েছেন বলে পুলিশ ও র‌্যাব সূত্র জানায়।

একই সূত্র মতে, দেশব্যাপী চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে যাতে নিরপরাধ কোনো সাধারণ মানুষ হয়রানির শিকার না হয় সে জন্য মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন ঊর্ধ্বতন পুলিশ ও র‌্যাব কর্মকর্তারা। পাশাপাশি অভিযান চালাতে ও মাদক কারবারিদের তালিকা তৈরি করতে আরো সতর্ক থাকতেও বলা হয়েছে। তবে র‌্যাব ও পুলিশের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের দাবি, টেকনাফের পৌর কাউন্সিলর একরামুল হক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ঘটনার পরিবারের পক্ষ থেকে যে অডিও রেকর্ড প্রকাশ করেছে, তাতে মাদকবিরোধী অভিযানে কোনো ছন্দপতন কিংবা ভাটা লাগেনি। দেশজুড়ে অভিযান চলছে ও চলবে। এজন্য কোনো কিছু থেমে নেই। তবে এটি সত্যি আগের চেয়ে আরো বাড়তি সতর্কতায় এখন অভিযান চলছে। কাউন্সিলর একরামের ঘটনাটি তদন্ত করছে র‌্যাব সদর দফতর।

এদিকে পুলিশ ও র‌্যাব সদর দফতরের তথ্য মতে, চলমান মাদকবিরোধী গত ২০ দিনের অভিযানে এ যাবত প্রায় ১৫ হাজার মাদক কারবারিকে আটক করা হয়েছে। মামলা হয়েছে প্রায় ১০ হাজার। অভিযানে ২০ লাখের অধিক ইয়াবা, ৩২শ’ কেজি গাঁজা, ৯০ হাজার লিটার দেশি মদ ও প্রায় ৩৮ কেজি হেরোইন উদ্ধার করেছেন পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা।

এই অভিযানের ধারবাহিকতায় ২৬ মে রাতে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন টেকনাফ পৌরসভার কাউন্সিলর ও থানা যুবলীগ সাবেক সভাপতি একরামুল হক। ওই ঘটনায় ৪ দিন পর ৩০ মে কক্সবাজার প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে ১৪ মিনিট ২২ সেকেন্ডের ওই অডিও ক্লিপটি প্রকাশ করেন নিহত একরামের স্ত্রী আয়েশা বেগম। এতে তার স্বামীর কথিত বন্দুকযুদ্ধের সময়ের কথোপকথন ফুটে উঠেছে বলে দাবি করেন নিহতের স্ত্রী। পরবর্তী সময়ে ওই অডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে বিপাকে পড়ে র‌্যাব। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানায় র‌্যাব সদর দফতর। এরপর থেকে নিজের স্বামীকে নিরপরাধ দাবি করে আসছেন তার স্ত্রী।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক কর্মকর্তা মনে করেন, একরামের স্ত্রীর ওই অডিও ক্লিপ ছেড়ে দেয়ায় বিপাকে পড়ে র‌্যাব। একই সঙ্গে সারাদেশে জোরালোভাবে চলা মাদকবিরোধী অভিযানেও কিছুটা ছন্দপতন ঘটে। ওই ঘটনার সত্যতা যাচাই করে দেখা হচ্ছে। আর এই ঘটনার মধ্য দিয়ে মাঠ পর্যায়ের পুলিশ ও র‌্যাব কর্মকর্তাদের কাছে সাবধানি বার্তা গেছে। যার ফলে এই অভিযান নিয়ে বাণিজ্য কিংবা হয়রানির মাত্রা অনেকটাই কমবে।

জানতে চাইলে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক ও মুখপাত্র কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান বলেন, কক্সবাজারের টেকনাফের পৌর কাউন্সিলর একরামুল হক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হওয়ার পর স্ত্রীর প্রকাশ করা অডিও রেকর্ডটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পুরো ঘটনাটি তদন্তে কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই র‌্যাব কর্মকর্তা দাবি করেন, ওই ঘটনার ফলে অভিযানে কোনো প্রভাব পড়েনি। ঘটেনি কোনো ছন্দপতন। মাদকবিরোধী সাঁড়াশি অভিযান একইভাবে চালিয়ে যাচ্ছে র‌্যাব। নির্র্মূল না হওয়া পর্যন্ত এ অভিযান চলবে।

এর আগে রোববার রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, টেকনাফের পৌর কাউন্সিলর একরামুল হক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হওয়ার ঘটনার সময়ের অডিও ক্লিপ হাতে পেয়েছি। বহুল আলোচিত ওই অডিও রেকর্ডটি একজন ম্যাজিস্ট্রেট তদন্ত করে দেখছেন বলেও জানান মন্ত্রী।

পুলিশ ও র‌্যাবের একাধিক কর্মকর্তা জানান, বর্তমানে মাদকবিরোধী অভিযানে কৌশলগত কারণেও কিছুটা দৃশ্যমান শিথিলতা এসেছে। বিভিন্ন ধাপে এ অভিযান চলছে। ঈদের পর অভিযান ফের জোরালো করা হবে। কারণ এ অভিযানে সারাদেশের অধিকাংশ মানুষের সমর্থন রয়েছে।

এদিকে রোববার রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, জঙ্গিবাদের মতো মাদকের বিরুদ্ধেও তারা যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন। মাদক ব্যবসায়ীদের বিচারের সম্মুখীন হতে হবে। যারা মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ত, তাদের একচুলও ছাড় দেয়া হবে না। মাদক ব্যবসায়ী সে যে-ই হোক না কেন, তাকে ছাড় দেয়া হবে না।

চলমান মাদকবিরোধী অভিযান প্রসঙ্গে পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পিআর) সহেলী ফেরদৌস বলেন, প্রথম থেকেই যথেষ্ট সতর্কতার সঙ্গে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। সাধারণ মানুষকে হয়রানির অভিযোগ পেলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এক প্রশ্নের জবাবে সহেলী বলেন, একরামের অভিযানটি চালিয়েছে র‌্যাব। সেটি তারাই খতিয়ে দেখছেন। এর ফলে অভিযানে ছন্দপতন বা কোনো কিছু থেমে থাকছে না। নিজস্ব কৌশলে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH