বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০১:৩৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
নববধূ সেজে ঢাকা থেকে ইয়াবা কিনতে এসে পুলিশের হাতে ধরা উখিয়া ক্যাম্পে অস্ত্র ও ইয়াবাসহ দুই রোহিঙ্গা গ্রেফতার কক্সবাজারে পুলিশের উপিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার

টেকনাফে অবৈধ কাঠ দিয়ে নৌকা ও বোট তৈরীর হিড়িক : কর্তৃপক্ষ নির্বিকার

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৬ মে, ২০১৮
  • ৪৩২ Time View

আনোয়ার হোছেন, টেকনাফ থেকে :

টেকনাফ বাহারছড়া শামলাপুর নতুন পাড়া, পুরান পাড়া ও উখিয়া থানার জালিয়া পালং ইউনিয়ন মনখালী, ছেপট খালীতে অবৈধ কাঠ দিয়ে দেদারছে তৈরি হচ্ছে নৌকা ও বোট । প্রতি মাসে ১০ থেকে ২০টি অবৈধ নৌকা, মাঝারী ধরনের বোট তৈরী করে বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করে যাচ্ছে।

অভিযোগে জানা গেছে, বাহারছড়া শামলাপুর কেন্দ্রিক রয়েছে বিশাল সিন্ডিকেট। এদের মধ্যে শামলাপুরে নুরুল ইসলাম, নুরুল আবছার, হানিফ, পুরান পাড়ার গাছ কালু ও নুরুল বসর। এরা শামলাপুর ছাড়াও মনখালী,ছেপটখালীর নৌকার তৈরীর মালিক বলে জানা গেছে।

বনবিভাগের দাবী তাদের কঠোর নজরদারী রয়েছে, তবে স্থানীয় বনবিটের কর্মীরা প্রতি মাসে নৌকা প্রতি মাসোহারা পায় ১৫ হাজার টাকা। নৌকা তৈরির মেস্ত্রি মান্নান,হান্নান,আমিনুল সহ আরও অনেকে রয়েছে।

তারা জানান, অবৈধ তক্তা সহ নৌকা তৈরির অন্যান্য কাঠে সরবরাহ বন্দরের অনুমোদন থাকলেও অন্যান্য কাঠের অনুমোদন নেই।
বাহারছড়ার পুর্বে রয়েছে কিছু বড়বড় মাদার গর্জন সহ অন্যান্য প্রজাতির গাছ। ওই সরকারী বনাঞ্চল থেকে সংগ্রহ করে বাঁহা, গোছা ও অন্যান্য উপকরনের জন্য দরকার কচিগাছ আর সাটের জন্য ব্যবহার করছে ঝাউগাছ।
পশ্চিমে রয়েছে বিশাল ঝাউবাগান । একটা ঝাউগাছ কাটা হলে দুইটা নৌকা তৈরী করা যায় বলে নৌকার মালিকরা জানান।

শামলাপুরে বনবিটে কোন কর্মকর্তা না থাকায়, সহজেই ফরেস্টগার্ডরা ৫০০ টাকা দিয়ে একটি গাছ বিক্রি করে দিচ্ছে। মকবুল হোসেন নামের একজন পাহারাদার রয়েছে, তার নামে বন মামলা রয়েছে ২টি। সেও ঝাউগাছ বিক্রি করছে। এছাড়াও নিধনকৃত গাছও আত্মসাতের ঘটনা ঘটছে।

মনখালী বিট কর্মকর্তা মনজুরুল আলম গত ৭ মে বিকাল ৩ টায় প্রায় ১০ টুকরা ঝাউগাছ জব্দ করেন। বিকেল ৫টায় জানান, কোন গাছ জব্দ করা হয়নি।

এইভাবে চলতে থাকলে উজাড় হয়ে যাবে আমাদের স্বপ্নের প্রাকৃতিক ঝাউবাগান। বনবিটের এক কিলোমিটারের মধ্যে এসব অপরাধ হলেও বনকর্মীরা নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে।

এছাড়া বাহারছড়ায় রয়েছে অনেক করাতকল। অবৈধ করাতকলে নিয়মিত ঝাউগাছ চিরাই করা হয়।
অভিযোগ রয়েছে, মনখালী বনবিটে নতুন যোগদানকারী কর্মকর্তা শুরুতে করাতকলের মালিকদের সাথে দফারফা করেছে।

একটি সুত্র জানায়, প্রতিমাসে একটা করাতকল থেকে দশ হাজার টাকা করে মাসোহারা পেয়ে থাকে। ছেপটখালীতে একটা আর শামলাপুরে দুইটা, ‘পুরান পাড়াতে ১টি করাতকল নিয়মিত অবৈধ গাছ চিরাই হয়ে আসছে। কিন্তু বনবিভাগের দৃষ্টি না থাকায় বনাঞ্চল ও ঝাউবাগান নিধন হয়ে যাচ্ছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, করাতকল গুলোতে যেভাবে অবৈধ গাছ চিরাই করা হচ্ছে, তাতে উপকুলে সবুজ গাছ বলতে কিছু থাকবে না। এব্যাপারে এখনি পদক্ষেপ নেওয়ার দাবী জানান এলাকাবাসি।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH