শাহজাহান চৌধুরী শাহীন।

কক্সবাজারের টেকনাফ বাহারছড়া ইউনিয়নের উত্তর শীলখালী গ্রামে দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের উপর ন্যাক্কার জনক হামলার রেশ না কাটতেই ঘটনায় জড়িত মামলার এজাহার নামীয় আসামীরা নতুন ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। জনগণের চলাচলের রাস্তা কেটে দিয়ে এবং আরো বহুমাত্রিক উদ্ভট ঘটনার নাটক সাজিয়ে আক্রান্ত পরিবারকে ফাঁসাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে আসামীরা। এ অভিযোগ আহত পরিবারের। এমনকি মামলা তুলে না নিলে প্রকাশ্যে হত্যা ও মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর অব্যাহত হুমকিতে বাদী সলিম উল্লাহ ও তার পরিবার চরম নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়েছে বলে জানা গেছে।

আসামীরা এলাকা প্রভাশালী ও আত্মস্বীকৃত ইয়াবা কারবারী হওয়ায় তাদের পক্ষে যে কোন ধরনে অপ্রত্যাশীত ঘটনা সংগঠিত করা এবং মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর আশংকাকেও উড়িয়ে দিচ্ছেন না এলাকাবাসী।

অভিযোগে জানা গেছে, গত ৭ মে বৃহস্পতিবার মাগরিবের নামাজের পর বাহারছড়া উত্তর শীল খালী এলাকার মৃত জাফর আলমের দুই ছেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সলিম উল্লাহ ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আজিজ উল্লাহ পাশ্ববর্তী মসজিদে মাগরিবের নামাজ শেষ করে বের হন। মসজিদ থেকে বের হওয়ায় সাথে সাথেই স্থানীয় ইয়াবা ডন খ্যাত সোনা আলী মেম্বারের নেতৃত্বে আনোয়ারা বেগমের নির্দেশ হেলাল, মো.আলম, বাঘ সামশু সহ ১০/১২ জন দুবৃত্ত তাদেরকে চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে এবং এলোপাতাড়ি মারধর ও কুপিয়ে গুরুতর আহত করেন। এসময় তাদের কাছ থেকে নগদ ১৫ হাজার টাকা ও ৩২ হাজার টাকা দামের একটি মোবাইল সেটও লুট করা হয়।

সোনা আলী মেম্বার হচ্ছে আত্মস্বীকৃত ও আত্মসমর্পনকারী ইয়াবা ব্যবসায়ী মো. আবু ছৈয়দ এর বাবা এবং সামশুদ্দীন আহমেদ প্রকাশ বাঘ সামশু মানবপাচার সহ বিভিন্ন মামলার আসামী। স্থানীয় লোকজন আহত দুই সহোদরকে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়। পরে তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

এঘটনায় আহত সলিম উল্লাহ বাদী হয়ে উত্তর শীলখালী এলাকার ইয়াবা ডন সোনা আলী মেম্বার ও মানবপাচারকারী সামশুদ্দীন আহমেদ বাঘ সামশুসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন। এতে সামশুদ্দীন প্রকাশ বাঘ সামসুর ছেলে হেলাল উদ্দিনকে প্রধান আসামী করে ১১ জনের নাম উল্লেখ করে আরো অজ্ঞাত নামা ৩/৪ জনকে আসামী করা হয়। টেকনাফ থানার মামলা নং-২২, জিআর মামলা নং-৪০৩। তাং-৭/৫/২০২০ইং।
এদিকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে হামলাকারী ও মামলার আসামী উত্তর শীলখালী এলাকার সামশুদ্দীন আহমদ প্রকাশ বাঘ সামশুর ছেলে হেলাল উদ্দিন,মো.আলম ও মো.ইসাকে গ্রেফতার করেন। গ্রেফতারকৃত তিন আসামী বর্তমানে কক্সবাজার জেলা কারাগারে আছেন।

মামলার এজাহার নামীয় আসামী সোনা আলীর ছেলে ফায়সাল, ছেলে হেলাল উদ্দিন, আবুল হোসনের ছেলে রহিম উল্লাহ, মৃত আবু বক্করের ছেলে সামশুদ্দীন আহমেদ প্রকাশ বাঘ সামশু, সামশুদ্দীন আহমেদ প্রকাশ বাঘ সামশুর স্ত্রী আনোয়ারা বেগম মেম্বার, মো.হাশীমের ছেলে আবদুর রহমান, আবুল হোসনের ছেলে লুৎফুর রহমান, আবুল হোসনের ছেলে মো.সোনা আলী মেম্বার গ্রেফতার হয়নি। আসামীরা গ্রেফতার না হওয়ায় শংকিত অবস্থায় রয়েছে আহতের পরিবার।

অভিযোগ পাওয়া গেছে, মামলার আসামীরা জোটবদ্ধ হয়ে যে কোন ভাবে আহত সলিম উল্লাহর পরিবারদের ফাঁসাতে ব্যাপক তৎপরতা শুরু করেছে। ইতোমধ্যে সোনা আলী ও বাঘ সামশু ও তার স্ত্রী আনোয়ারা বেগম উত্তর শীলখালী গ্রামে জনগণের চলাচলের রাস্তা কেটে দিয়ে মামলার বাদী ও তার পরিবারের সদস্যদের ফাঁসানোর জন্য মহাপরিকল্পনা নিয়েছে বলে সুত্রে প্রকাশ।

আহত আজিজ উল্লাহ ও রহিম উল্লাহ জানান, গত ৫ মাস আগে ইউপি সদস্য সোনা আলী ও সদস্যা আনোয়ারা বেগমের তত্বাবধানে কাজের বিনিময়ে টাকা (কাবিটা) প্রকল্পের আওতায় তাদের মালিকানাধীন জমির উপর জোর করে রাস্তা নির্মাণ করেন। কিন্তু তাদের জমির উপর নির্মিত এলজিইডি সড়ক থেকে মেরিন ড্রাইভ সড়ক পর্যন্ত শতশত মানুষের চলাচল করছে। এরপরে জনগণের সুবিধার কথা চিন্তা করে শত হুমকির মাঝে নিরবে সহ্য করে আসছি আমরা। আমরা আহত অবস্থায় বাড়িতেই চিকিৎসাধীন আছি। কিন্তু আসামীরা পরস্পর যোগসাজশে সরকারী রাস্তা কেটে দিয়ে আমাদেরকে ফাঁসাতে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

আহত আজিজ উল্লাহ জানান,পড়ালেখা পাশাপাশি আমি একজন সংবাদ কর্মীও। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে এলাকার গরীর লোকজনের জন্য সরকারী ভাবে ১০ টাকা দামের ওএমএসএর চালসহ সরকারী বিভিন্ন সহায়তা দেন। কিন্তু ১,২,৩ ওয়ার্ডের মহিলা ইউপি সদস্য আনোয়ারা বেগম ও সদস্য সোনা আলী সিংহ ভাগ আত্মসাত করেন। এবিষয়ে আমি কয়েকটি অনলাইন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করায় তারা ক্ষুদ্ধ হয়ে পড়েন। এরই ধারাবাহিকতায় নগ্ন হামলার ঘটনা ঘটান।

মামলার বাদী সলিম উল্লাহ বলেন, আসামী সোনা আলী মেম্বারের ছেলে আত্মস্বীকৃত ও আত্মসম্পর্নকারী ইয়াবা ব্যবসায়ী মো. আবু ছৈয়দ কারাগারে আছেন। আর পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়া হেলাল উদ্দিনসহ তিনজনও কারাগারে গিয়ে ইয়াবা ব্যবসায়ী মো. আবু ছৈয়দের সাথে এক হয়েছে। তারা কারাগার থেকে বিভিন্ন জনের মোবাইলে আমাদেরকে হত্যা হুমকি পাঠাচ্ছে। খেয়ে দেয়ে মৃত্যুর পরোয়ানা নিয়ে অপেক্ষা বলছে। কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি হলে তাদের পুরো পরিবারকে হত্যা হুমকি দেওয়ায় চরম উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে তারা পুরো পরিবার। এছাড়াও সোনা আলী, বাঘ সামশু ও আনোয়ারা বেগম মামলা হতে জামিনের পর তাদের পরিবারের বিরুদ্ধে পরবর্তীতে যে কোন কিছুর বিনিময়ে ব্যবস্থা নিবেন বলেও প্রকাশ্যে হুমকি দিচ্ছে। যে কোন সময় জীবন বিপন্ন করার আশংকায় তারা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।