সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৬:৫৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
কক্সবাজারে পুলিশের উপিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে ৭ কোটি টাকার আইস ও ইয়াবা উদ্ধার, আটক ১ টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে কর/শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পাচারকালে ৭২লাখ টাকার অবৈধ মালামাল জব্দ- গ্রেফতার ৩ উখিয়ায় ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার : এক রোহিঙ্গাসহ তিন জন গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার

টেকনাফে কাউন্সিলর একরাম নিহতের ঘটনায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৯ মে, ২০১৮
  • ৬০৩ Time View

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

২৭ মে দিবাগত রাতে টেকনাফের নোয়াখালীয়া পাড়ায় র‌্যাবের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন টেকনাফ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর একরামুল হক। এসময় তার কাছ থেকে ১০ হাজার ইয়াবা ও দুটি অস্ত্র পাওয়া যায় বলে দাবী করে র‌্যাব।
র‌্যাব-৭ কক্সবাজার ক্যা¤েপর কো¤পানী কমান্ডার মেজর মো. রুহুল আমিন বলেন, একরাম স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী। ইয়াবা পাচারের খবর পেয়ে তাকে গ্রেপ্তার করতে গেলে র‌্যাবকে উদ্দেশ্যে করে একরাম গুলি ছুড়ে। এতে আত্মরক্ষার্থে র‌্যাব গুলি ছুড়লে নিহত হন একরাম।

টেকনাফ পৌরসভার কায়ুকখালীয়া পাড়ার মৃত আব্দুস সাত্তারের চতুর্থ ছেলে মো.একরামুল হক। তিনি জমিদার পরিবারে সন্তান হলেও বাবা মারার যাওয়ার পর পাঁচ ভাই, চার বোনের মধ্যে সেছিল অমায়িক। বাবার মৃত্যুর পর অপর ভাইয়েরা পৃথক হয়ে পড়লে আর্থিক টানাপোরনে পরে। বোন ও ভগ্নিপতিদের সহযোগিতায় তিনি কোনো রকমে সংসার চালাতেন। এলাকায় তিনি একরাম খুলু নামে পরিচিত। তিনি লেখাপাড়া করেছেন দশম শ্রেণি পর্যন্ত। বর্তমানে তার দুটি মেয়ে সন্তান রয়েছেন। বড় মেয়ে তাহিয়াত হক অষ্টম ও নাহিয়ান হক ষষ্ঠ শ্রেনিতে টেকনাফ বর্ডার গার্ড পাবলিক স্কুলে লেখাপড়া করছে । পৈত্রিক সম্পত্তির একটি কক্ষে তার স্ত্রী ও দুই মেয়েকে নিয়ে গাদাগাদি করে বসবাস করতেন। তার সম্পত্তি বলতে ছিল শুধুমাত্র একটি মোটর সাইকেল এবং একটি কালো চশমা। ওই মোটর সাইকেল নিয়ে দুই মেয়েকে প্রতিদিন স্কুলে পৌছে দিতেন আর নিয়ে আসতেন।

টেকনাফ পৌরসভার কাউন্সিলর একরামুল হক আসলে কি ইয়াবা ব্যবসায়ী? এমন প্রশ্ন এক সবার মাঝে। যদি তিনি ইয়াবা ব্যসার করে থাকেন তাহলে তার বাড়ি, গাড়ি, জমি-জমা ও ব্যাংক ব্যান্সেল কোথায়? কেননা সীমান্তে ইয়াবা ব্যবসা সঙ্গে জড়িত রয়েছে তাদের রয়েছে নামে বেনামে বাড়ি, গাড়ি, জমি-জমা ও ব্যাংক ব্যান্সেল।

সীমান্তের লোকজন জানায়, একরাম পরপর তিন বার কাউন্সলির নির্বাচিত হলেও তার থাকার মত একটি বাড়ী নেই। পৈত্রিক বাড়ীর একটি শুধু মাত্র একটি কক্ষে কোন মতে গাঁদাগাদি করে সন্তানদের নিয়ে। তার সন্তানদের লেখা-পড়া খরচ যোগাতে তার কষ্ট হয়ে যায়। সে কিভাবে ইয়াবা ব্যবসায়ী হয়। এমনকি তার বাড়ি বিদুৎ বিল ও খবারের খরচ মিতাতে তার হিমশিম খেতে হতো।

জানা গেছে, একরাম নির্লোভী এবং তুমুল জনপ্রিয় একজন রাজনৈতিক ও জনপ্রতিনিধি। একারণে টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের টানা ১২ বছর সভাপতি এবং টেকনাফ পৌরসভার পর পর তিনবার নির্বাচিত কাউন্সিলর হওয়ার পরও লোভ তাকে বিন্দু পরিমাণ টানতে পারেনি। তাই সন্তানদের পড়াশোনা এবং সংসার চালানোর জন্য আত্মীয়-স্বজন এবং বন্ধুদের দ্বারস্থ হতে হতো তাকে।

১৯৯৫ সালের ৫ সেপ্টেম্বর টেকনাফ-মিয়ানমার সীমান্ত বাণিজ্য চালু হলে তিনি সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। একই সঙ্গে টেকনাফ বাসষ্টেশন এলাকায় রেস্টুরেন্ট (হোটেল তাইপিং) নামে একটি খাবার হোটেল ব্যবসা জড়িত ছিলেন। তিনি আওয়ামীলীগ দলীয় পরিবারের সন্তান ছিলেন। যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে র্দীঘ সময় জড়িত ছিলেন।

পরিবারিক সূত্র জানায়, তার পরিবারটির সঙ্গে স্থানীয় সাংসদ আব্দুর রহমান বদির পরিবারের সঙ্গে র্দীঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল এবং রাজনৈতিক প্রতিপক্ষও যুক্ত হয়। ২০০০ সালে টেকনাফ পৌরসভা প্রতিষ্ঠার পর তিনি প্রথম পৌরসভা যুবলীগের সহ-সভাপতি ছিলেন। ২০০২ সালের ২ এপ্রিল টেকনাফ পৌরসভার ৩ নাম্বার ওয়ার্ড থেকে তিনি প্রথম বার পৌর কাউন্সিল নিবাচিত হন। এরপর তিনি টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের র্দীঘ ১২ বছর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। একই সঙ্গে তিনবারে পৌর কাউন্সিলর নিবার্চিত হয় এবং ২০১৪ সালে টেকনাফ বাসষ্টেশন বণিক সমবায় সমিতির সভাপতি হন। তিনি টেকনাফ বার্মিজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি সভাপতিও।
পরিবারের দাবী, কয়েক বছর আগে একটি বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল (তালাশ) নামক একটি প্রতিবেদনে ইকরামুল হককে জড়িত বলে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল। ওই প্রতিবেদনে তাকে ইয়াবার বড় গডফাডার হিসেবে চিহ্নিত করে। তার সঙ্গে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষও যুক্ত হয়। তখন থেকে স্বরাস্ট্র মন্ত্রণালয় ও মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মাদক তালিকায় তার নাম অন্তভূক্ত করা হয়েছে। জীবনে শখ ছিল কালো চশমা ও মোটরসাইকেল। এছাড়া তার কোনো স¤পদ নেই। এমন কি সাত বছর ধরে একটি নির্মিত দালান ঘর করতে গিয়ে এখন পর্যন্ত পিলার ছাড়া আর কিছুই করতে পারেনি সে। সে দালানটিও টাকার অভাবে ঝোপ-জঙ্গলে পরিণত হয়ে রয়েছে। গত রবিবার রাত ১০টায় টেকনাফ পৌরসভার ঈদগাহ মাঠে জানাজার নামাজ অনুষ্টিত হওয়ার কথা থাকলেও লোক সমাগম বেড়ে যাওয়ায় টেকনাফ পাইলট উচচ বিদ্যালয়ের বিশাল মাঠে অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র (ভারপ্রাপ্ত) ও জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ স¤পাদক মাহবুবুর রহমান চৌধুরী গতকাল রোববার প্রধানমন্ত্রী বরাবরে একটি খোলা চিঠি প্রেরণ করেছেন। ওই খোলা চিঠি গণমাধ্যমেও এসেছে। সেখানে মাহবুবুর রহমান উল্লেখ করেন, সারা দেশব্যাপী মাদক বিরোধী অভিযানকে যখন দেশের আবাল বৃদ্ধ বনিতা স্বাগত জানিয়েছেন, ঠিক তখনই আপনার (প্রধানমন্ত্রী) এই সিদ্ধান্তকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে উঠে পড়ে লেগেছে প্রশাসনের ভেতর ঘাপটি মেরে থাকা একাত্তরের দোসররা। তারা ইয়াবা বিরোধী অভিযানের দোহাই দিয়ে আপনার সন্তানকে হত্যা করেছে। ২৭ মে গভীররাতে টেকনাফে এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে। প্রশাসনকে ভুল তথ্য দিয়ে আজন্ম আওয়ামী লীগ পরিবারের অহংকার টেকনাফ যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও পর পর তিন তিন বার নির্বাচিত কাউন্সিলর একরামকে হত্যা করা হয়েছে। মাগো এমনভাবে চলতে থাকলে আওয়ামী লীগ তথা বাংলাদেশ নিঃশেষ হতে খুব বেশী সময় লাগবে না।
এদিকে পরিবারের দাবী একরাম কোন দিনও মরণনেশা ইয়াবার সাথে স¤পৃক্ত ছিলেন না। তাঁকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যার তারা বিচার চায়।
জানা গেছে, টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে টানা ১২ বছর এই দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এছাড়াও ২০০২ সালে প্রথমবারের নির্বাচনে তিনি বিপুল ভোটে পৌর কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। এরপর থেকে এখন পর্যন্ত তিনবারের নির্বাচিত কাউন্সিলর। এসব ক্ষমতা নিজের স্বার্থের জন্য বিন্দু পরিমাণ ব্যবহার করেননি একরাম।
সবার সহযোগীতায় ২০০৭ সালে কাইয়ুকখালীয়া পাড়ায় পৈত্রিকভাবে পাওয়া জমিতে একটি ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করেন তিনি। কিন্তু ভবন বলতে সেখানে দৃশ্যমান করতে পেরেছেন শুধুমাত্র কয়েকটি পিলার। টাকার অভাবে ছাদ করতে না পারায় সেই পিলার গুলো ঝোপ জঙ্গলে পরিণত হয়েছে।
জানা গেছে, প্রাণের সংগঠন যুবলীগ এবং সাধারণ মানুষের তুমুল জনপ্রিয় ছিলেন একরাম। তার বিরুদ্ধে বিচার শালিস অথবা ক্ষমতার প্রভাব কাটিয়ে কোন কিছু আদায় করেছেন এমন কোন অভিযোগ নেই। মানুষের ভালবাসার প্রতিদান দেওয়ার জন্য তিনি প্রতিনিয়ত ছুটতেন নিঃস্বার্থভাবে।
পরিবার সূত্রে জানা গেছে, সাংসদ আব্দুর রহমান বদির সাথে পারিবারিক বিরোধ ছিল একরামের। কয়েক বছর আগে বেসরকারি টেলিভিশন ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনে এর তালাশ প্রোগ্রামে একরামকে মাদকের শীর্ষ ব্যবসায়ী হিসেবে দেখানো হয়েছিল। পরে সঙ্গে সঙ্গে কক্সবাজার প্রেসক্লাবে তিনি সংবাদ সম্মেলন করে নিজের অবস্থান পরিস্কার করেন এবং মিথ্যা সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানান। কিন্তু ওই সংবাদের পর ষড়যন্ত্রকারিরা তাকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণলয়ের ইয়াবা ব্যবসায়ীর তালিকায় তালিকাভুক্ত করেন। শেষ পর্যন্ত ওই মিথ্যা অপবাদ নিয়ে তাকে প্রাণ দিতে হলো।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH