1. engg.robel@gmail.com : আলোকিত টেকনাফ : Shah Mohamamd Robel
  2. shahmdrobel@gmail.com : Teknaf.Alokito :
টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স অনিয়ম-দুর্নীতির আঁতুর ঘর - আলোকিত টেকনাফ
সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:২৭ অপরাহ্ন

টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স অনিয়ম-দুর্নীতির আঁতুর ঘর

মিজানুর রহমান, টেকনাফ (কক্সবাজার)
  • Update Time : শুক্রবার, ২১ অক্টোবর, ২০২২
  • ৫৩ Time View

কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স অনিয়ম-দুর্নীতির কলঘরে পরিণত হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠেছে। নিয়মনীতি ছাড়া চলছে হাসপাতালের কার্যক্রম।

আউটডোর-ইনডোরের রোগীরা জানান, দূর-দূরান্ত থেকে সরকারি সেবা পাওয়ার উদ্দেশ্যে হাসপাতলের আউটডোরে এসে যথাসময়ে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসকদের পাওয়া যায় না। দুয়েকজন আসলেও তাদের ইচ্ছা মোতাবেক চেম্বারে বসে কিছু রোগীকে সেবা দিয়ে ১২টার পরপরই চলে যায়। দুপুর ২টার আগেই স্ব-স্ব প্রাইভেট চেম্বারে বসে নগদ টাকার বিনিময়ে রোগী দেখতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। এটাই এখন হাসপাতালের ডাক্তারদের নিত্যদিনের রুটিনে পরিণত হয়েছে।

আউটডোরে যে অবস্থা, জরুরি বিভাগ ও ইনডোরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে বলে সেবা নিতে আসা রোগীরা ক্ষোভের সাথে জানান। জরুরি বিভাগের অবস্থা আরও ভয়ানক! কোনো মুমূর্ষু রোগী জরুরি বিভাগে গেলে সেখানে কর্তব্যরত এম বিবি এস ডাক্তার উপস্থিত থাকে না। তদস্থলে কোনো কোনো সময় উপ-সহকারী মেডিকেল অফিসার নতুবা নার্সরা ডাক্তারের কাজ চালিয়ে যায় বলে জানা গেছে। এদের দিতে হয় মোটা অংকের টাকা। এই নার্সরা মুমূর্ষু রোগীদের সেবা দেওয়ার নামে জল্লাদের মতো ইনজেকশন পুশিং, স্যালাইন, সেলাই ইত্যাদি করে থাকে বলে ভুক্তভোগী রোগীরা জানান।

এমনকি রোগীদের বসার ও শোবার জন্য নির্দিষ্ট স্থান থাকলেও সেখানে না বসিয়ে দাঁড়ানো অবস্থায় সেলাই পুশিং করে থাকে বলে অভিযোগ ওঠেছে। এ বিষয়ে কোনো রোগীর আত্মীয়স্বজন অভিযোগ করলে তাদের গালমন্দ করা হয় বলে জানা গেছে।

সূত্রে জানায়, বদিউল আলম (বদি) ও ফজলুল হক এই দুই নার্স অনেক বছর ধরে টেকনাফ হাসপাতালে কর্মরত থাকার সুবাদে অনিয়ম ও অপরাধের স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেছে হাসপাতালকে। আরেক কর্মচারী অ্যাম্বুলেন্স চালাক স্বপন টেকনাফ হাসপাতালে দীর্ঘ দিন চাকরি করার বিগত ২-৩ বছর আগে চাকরি থেকে অবসর নেন। এরপরেও তিনি সরকারি কোয়াটার এবং সরকারি সুযোগ সুবিধা ভোগ করে যাচ্ছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। তার বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে অ্যাম্বুলেন্সের মাধ্যমে মাদক পাচারসহ বিভিন্ন অনৈতিক কাজ করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। উখিয়ায় গড়েছে বিলাস বহুল বড়ি ও কোটি টাকার সম্পদ। সেই স্বপন এখনো মাদক কারবারে জড়িত আছে বলে জানা গেছে। এই স্বপনের সম্পদের হিসেব টানলেই থলের বিড়াল বের হয়ে আসবে।

প্রাইভেট চেম্বারে বসে চিকিৎসকেরা রোগীদের ব্যবস্থাপত্র দেবার আগেই বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষার কাগজ ধারিয়ে দেয় এবং নির্দিষ্ট করে ল্যাবের নাম বলে দেয় বলেও জানা যায়।

টেকনাফ পৌরসভা থেকে আসা তাসমিন, নজির ও কামাল জানান, তাদের নির্দিষ্ট করে দেয়া ল্যাবে গেলে কমপক্ষে দুই হতে তিন হাজার টাকা ফি নেয়। এতে বিপদের সন্মুখীন হয় হতদরিদ্র রোগীরা। টাকার পরিমাণ এতো বেশি কেন জানতে চাইলে ল্যাবের লোকজন জানান, প্রতিটি পরীক্ষার পেছনে চিকিৎসকদের ৩০% এবং চিকিৎসকদের সহকারীদের ১০% করে দিন শেষে বুঝে দিতে হয়। অথচ প্রতিটি হাসপাতালে রোগীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য সরকারি ল্যাব ও টেকনিশিয়ান রয়েছে। কিন্তু টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত টেকনিশিয়ান বেসরকারি ল্যাবে পার্ট টাইম কাজ করে বলে অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও সরকারি ভাবে বরাদ্দকৃত এক্স-রে ফ্লিম বিক্রি করার অভিযোগ রয়েছে। অন্যান্য সব পরীক্ষা বিনামূল্যে করার নিয়ম থাকলেও টেকনিশিয়ানরা ডায়াবেটিস ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা করে নেয় বলে ভুক্তভোগী রোগীরা জানান।

ইনডোরে থাকা পুরুষ ও মহিলা রোগীরা জানান, সরকারিভাবে বিনামূল্যে সকালে উন্নতমানের নাস্তা, দুবেলা ভাত দেওয়ার নিয়ম থাকলেও দেওয়া হয় নিম্নমানের নাস্তা ও খাবার। মেয়াদ উত্তীর্ণ রুটি, বিস্কুট ও নষ্ট ডিমও সময় দেওয়া হয়। খাবারের মান অত্যন্তনিম্ন। আবার মাঝে মধ্যে খাবার দেওয়া হয় না কিন্তু রোগীদের

মাঝেমধ্যে দেয়া হয় না ,অথচ প্রতিদিন বিভিন্ন সিটে রোগী দেখিয়ে খাবারের টিকাদার ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠেছে। সাম্প্রতিক সময়ে খাবারের টিকাদারের নিয়োগ নিয়ে টেকনাফ উপজেলার প্রতাপশালীদের মধ্যে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছিল।পরবর্তীতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে মোটা অংকের উৎকোচের বিনিময়ে একটি গ্রুপ ওই টিকাদারি ছিনিয়ে নেওয়া।

এদিকে সরকারিভাবে হাসপাতালের দিবারাত্রি নিরাপত্তা কর্মী নিয়োগ থাকলেও তারা কর্মস্থলে সঠিক সময়ে থাকে না। ফলে মাদক সেবনকারী,পাচারকারী ও বাজারজাত করণকারীরা হাসপাতালের অভ্যন্তরে আড্ডাখানয় পরিণত হয়েছে। এদের সাথে জড়িয়ে পড়ছে হাসপাতালে কর্মরত কতিপয় কর্মচারীরাও। গেল ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখে ২০ হাজার ইয়াবাসহ টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত পিয়ন রামু উপজেলার আব্দু রহিমকে আটক করেছিল টেকনাফ থানা পুলিশ। বর্তমানে সে জেল হাজতে রয়েছে। গেল কয়েকদিন আগে ময়ূরী নামের একজন ট্রোইনারও মাদকসহ গ্রেফতার হয়েছে। টেকনাফ হাসপাতালে এই দুই কর্মচারী ইয়াবাসহ গ্রেফতারের খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে নিন্দার ঝড় ওঠে। সচেতন মহলে বলতে শোনা যায়, টেকনাফ হাসপাতাল কি রোগীর সোবার প্রতিষ্ঠান না ইয়াবার করাখানা।

এ বিয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. টিটু চন্দ্র শীল বলেন, ইয়াবাসহ কর্মচারীদের আটকের বিষয়টি সঠিক বলে নিশ্চিত করেন। হাসপাতালের অপরিষ্কার টয়লেটের বিষয়টি টেকনাফ পৌরসভার বলে দাবি করেন। উল্লেখিত অন্যান্য বিষয়গুলো অস্বীকার করে ক্ষোভের স্বরে নিউজ করতে বলে ফোন কেটে দেন।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Theme Customization By NewsSun