বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:৪৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

নয়াপাড়া বাজারের করুন দৃশ্য দেখেন না জনপ্রতিনিধি ও বাজার কমিটি

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২০ মে, ২০১৮
  • ৪৫৯ Time View

আলোকিত টেকনাফ ডেস্কঃ-

নিউজ কক্সবাজার রিপোর্টঃ-

টেকনাফের নয়াপাড়ার বড় বড় সব জনপ্রতিনিধি  চেয়ারম্যান, মেম্বার এবং বাজার কমিটির চোখে পড়েনা বৃহত্তর নয়াপাড়া বাজারের যাতায়তের পথের করুণ দৃশ্যটি।

৪ নং সাবরাং ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃনজরুল ইসলাম তার ফেসবুক ওয়ালে আক্ষেপ করে এমন একটি পোষ্ট দিয়েছেন। পোষ্ট নিয়ে অনেকে কমেন্স ও শেয়ার এবং লাইক দিয়েছেন।

পাঠকের জন্য নিম্নে তা তুলে ধরা হলো।

সাবরাং ইউনিয়নের অন্যতম স্থান বৃহত্তর নয়া পাড়া।এই বাজরে প্রতি দিন সকাল আর বিকালে হাজার হাজার মানুষের সমাগম হয়।এই বাজার বৃহত্তর নয়াপাড়ার যেমন,হারিয়াখালী, কচুবনিয়া,কাটাবিয়া, লাফার ঘোনা,ঘোলার পাড়া,নয়াপাড়া, পুরান পাড়া,,ঝিনাপাড়া,ডেইল পাড়া,ডেগিল্লার বিল আছার বনিয়া,আদর্শ গ্রাম ও কোয়াইং ছড়ি পাড়া সহ সকল গ্রামের মানুষের প্রয়োজনীয় জিনিষ পত্র ক্রয় বিক্রয় এর একমাত্র স্থান।

এ বাজার টি সরকারিভাবে ১৫০০০০ (একলক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকাই ডাক দিলেও সেটি নয়াপড়া আলহাজ্ব নবী হোসাইন উচ্চ বিদ্যালয়ের মাধ্যমে ডাক এনে স্থানীয় ভাবে প্রায় ২০০০০০০(বিশ লক্ষ) টাকায় ডাক দেই।যে টাকা নয়াপাড়া আলহাজ্ব নবী হোসাইন উচ্চ বিদ্যালয় সহ প্রতিবেশী মসজিদ ও স্কুল গুলো ভোগ করে থাকে।
এই বাজের চায়ের দোকান, হোটেল,মুদির দোকান জেনারেল স্টোর ও অন্যান্য দোকান সহ প্রায় ৩৫০ (তিনশত পঞ্চাশ)টি দোকান রয়েছে।এই বাজারে ২৫০(দুইশত পঞ্চাশ)সদস্য বিশিষ্ট একটি ব্যবসায়ী কল্যাণ সমবায়সমিতি রয়েছে।
এই বাজারে তরকারি বিক্রয় করার জন্য নির্দিষ্ট একটি স্থান রয়েছে।যেখানে সকাল বিকাল খুচরা ও পাইকারি মুল্যে তরকারি ক্রয় বিক্রয় হয়ে থাকে।মাছ বাজারের জন্য ও একটি নির্দিষ্ট স্থান রয়েছে।দুঃখ্যের বিষয় হলে ও সত্য যে এই মাছ বাজার টি ব্যবসায়ীদের বসবাস এর উপযুক্ত নই।এই বাজারে মাছ ব্যবসায়ীরা নাফ নদি,বঙ্গোপসাগর খাল, বিল ও পুকুরের মাছ এনে বিক্রি করে থাকে।
এখন বিষয় হচ্ছে যে বাজার থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় হয় সে বাজারের ক্রেতা বা ব্যবসায়ীদের জন্য ভাল পরিবেশ কি প্রয়োজন পড়ে না।নিচে যে ছবি গুলো দেওয়া হয়েছে তা বর্তমান নয়াপাড়া মাছ বাজারের ছবি।যা রাতে ক্লিক করা হয়েছে।এই স্থানটির এমন অবস্থা বৃষ্টি হলে ক্রয় বিক্রয় ত দুরের কথা মানুষের চলাচলের পর্যন্ত উপযুক্ত থাকেনা।বিশেষ করে রমযান মাসে অনেক কষ্টে দিন পার করতেছে ভুক্তভোগী মাছ ব্যবসায়ী ও এলাকার মানুষ।দুরগন্ধের কারনে রমযানে মানুষের কেনাকাটা করতে অনেক কষ্ট হচ্ছে।এদের দেখারমত কেহ নেই।
আমি আমার খেটে খাওয়া গরিব মাছ ব্যবসায়ীদের পক্ষ হয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও আমার আস্থাবান সাবরাং ইউনিয়ন এর প্রিয় চেয়ারম্যান জনাব নুর হোসাইন ভাই এর প্রতি বিনীত অনুরুধ করব যত তাড়াতাড়ি সম্ভব যেন ঐতিহ্যবাহী এই মাছ বাজার টি সংস্কার করা হয়।

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH