সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০

আলোকিত টেকনাফ

বিশ্বজুড়ে টেকনাফের প্রতিচ্ছবি

পর্যটকশূন্য কক্সবাজারের প্রকৃতিতে ফিরেছে প্রাণ

১ min read

সময় টিভি

করোনা পরিস্থিতিতে পর্যটন নগরী কক্সবাজার পর্যটকশূন্য থাকায় কমেছে বর্জ্য। প্রাণ ফিরেছে প্রকৃতি ও জীববৈচিত্র্যে। পর্যটননির্ভর এ নগরীর নাগরিক জীবনে কোভিড ১৯ মারাত্মক প্রভাব ফেললেও প্রকৃতির এ ভিন্ন সাজ নতুন করে ঘুরে দাঁড়াতে উৎসাহ জাগিয়েছে অনেককেই।

পরিবেশবিদরা বলছেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেও এ পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য রক্ষায় সতর্ক থাকার বার্তা দিল করোনা মহামারি।

মানুষ নয়, কক্সবাজারে সৈকতের আধিপত্য এখন লাল কাঁকড়ার দখলে। দূষণ, অপরিকল্পিত নগরায়ন আর অনিয়ন্ত্রিত পর্যটনে দীর্ঘ সময় ধরে ধুকতে থাকা কক্সবাজার দু’মাসের লকডাউনে ফিরেছে আপন রূপে।

সৈকতের নানা সৌন্দর্যের পাশাপাশি জীববৈচিত্র্যও যেন নতুন করে প্রাণ পেয়েছে। ৮০ কিলোমিটার মেরিন ড্রাইভ সড়কের এমন সৌন্দর্যও এখন অন্যান্য যেকোনো সময়ের চেয়ে একেবারেই আলাদা।

সৈকতের বালিয়াড়িতে বাসা বাঁধছে ক্ষুদে কাঁকড়ার দল। বালুচরে বল বানিয়ে আলপনার কাজ করছে প্রকৃতি। করোনায় নিজেদের জীবনযাত্রায় মারাত্মক প্রভাব পরলেও প্রকৃতির এ পরিবর্তনকে স্বাগত জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে নিজেদের ভুলত্রুটি শুধরে প্রকৃতির অনুকূলে ব্যবসায় কার্যক্রমের প্রত্যাশা এ ব্যবসায়ী নেতার।

পর্যটন ব্যবসায়ী আবু তাহের বলেন, বর্তমানে খুবই দুরবস্থা যাচ্ছে আমাদের। দ্রুত বর্তমান পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠে সবকিছু স্বাভাবিক হবে বলে আশা করছি।

পরিবেশবিদরা বলছেন, করোনা থেকে শিক্ষা নিয়ে প্রকৃতির প্রতি আরও যত্নবান হতে হবে সবাইকে।

কক্সবাজার বন ও পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি দীপক শর্মা দীপু বলেন, করোনা আমাদের অনেক বড় একটি ম্যাসেজ দিয়ে গেছে। আশা করি এ থেকে শিক্ষা নিয়ে ভবিষ্যতে সকলে যে যার জায়গা থেকে প্রকৃতিকে বাঁচানোর জন্য কাজ করবেন।

করোনার কারণে গত ১৮ মার্চ থেকে এখন পর্যন্ত বন্ধ রয়েছে কক্সবাজারে পর্যটক আগমন।

 

আপনার মন্তব্য দিন
error: বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে এই সাইটের কোন উপাদান ব্যবহার করা সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ এবং কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ।