আজিম নিহাদ ও আরফাতুল মজিদ, কক্সবাজার |

দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন পর্যটকদের পছন্দের শীর্ষে। পর্যটন মৌসুমে এই দ্বীপে পর্যটকের ঢল নামে। কখনো কখনো দ্বীপে অবস্থিত হোটেল ও কটেজে ঠাঁই না পেয়ে বালুচরে ক্যাম্প করে রাতযাপন করে পর্যটকেরা।

জাহাজা চলাচল, আবাসিক হোটেল ব্যবসা, রেস্টুরেন্টসহ বিভিন্ন খাতে সেন্টমার্টিন দ্বীপকেন্দ্রীক প্রতি বছর শত শত কোটি টাকা আয় হলেও কার্যত দ্বীপবাসী এর সুফল পাচ্ছে না। অর্থনৈতিক সুফল বঞ্চিত হওয়ায় অপার সৌন্দর্যের এই দ্বীপের মানুষ থেকে যাচ্ছে অবহেলিত, উন্নয়ন বঞ্চিত।

অভাব-অনটন আর রূঢ় বাস্তবতার কারণে সেন্টমার্টিনবাসীর কাছে দ্বীপটির সৌন্দর্য এক রকমের নিরর্থকই। অন্ধকারেই পড়ে আছেন এখানকার বাসিন্দারা। পর্যটকদের জন্য নানা সুযোগ-সুবিধা থাকলেও স্থানীয়রা একেবারেই সুবিধাবঞ্চিত।

জাহাজ থেকে নেমে সেন্টমার্টিনে পা রাখতেই পর্যটকদের ঘিরে ধরে একদল শিশু। সামান্য টাকায় পর্যটকদের ব্যাগ-লাগেজ বহনের কাজ করে তারা। জীর্ণ-শীর্ণ শরীর, পরনে নেই ভালো কাপড়, স্বাস্থ্যের অবস্থা করুণ।

স্থানীয় মানুষের চোখেমুখে অভাবের ছাপ। বাড়িঘরের অবস্থাও একেবারে নাজুক। বেশিরভাগের ঘরবাড়িই ছনপাতা-পলিথিন দিয়ে তৈরি।
স্থানীয়রা কি তাহলে একেবারেই পর্যটন-অর্থনীতির সুবিধাভোগী নয়?

সেন্টমার্টিন দ্বীপের চেয়ারম্যান নুর আহমদ বলেন, পর্যটকরা সেন্টমার্টিনে ঘুরতে গেলে যে আয় হয়, তা স্থানীয়দের পকেটে যায় না। যারা ওইসব রেস্টুরেন্ট-হোটেলের মালিক, তারাই সব সুবিধা নিয়ে নেয়। এখানকার ব্যবসায়ীদের বেশিভাগই বহিরাগত। মুষ্টিমেয় লোকের হাতে পর্যটন অর্থনীতি জিম্মি হয়ে আছে। তাই অধিবাসীরা এর সুযোগ-সুবিধা থেকে অনেকটাই বঞ্চিত। তবে পর্যটক আসলে ছোটখাট আয় হয় এখানকার মানুষের। তা দিয়ে কোন রকম অন্নের সংস্থান করে অনেকে।

স্থানীয়রা জানান, পর্যটন সমৃদ্ধ হলেও যোগাযোগ, চিকিৎসা, শিক্ষা, নিরাপত্তাসহ মৌলিক অনেক সমস্যা রয়েছে তাদের।

হোটেল-কটেজে রাতের বেলায় জেনারেটরের সাহায্যে আলো জ্বললেও স্থানীয়দের ঘরবাড়ি থাকে অন্ধকারে। দ্বীপে এক সময় সরকারি উদ্যোগে একটি অস্থায়ী বিদ্যুৎ উৎপাদনকেন্দ্র থাকলেও ১৯৯৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে তা বিকল হয়ে যায়। তখন থেকেই বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ। এখন বেশিরভাগ সরকারি অফিস চলে সৌরবিদ্যুতে। কিছু অফিসে নিজস্ব জেনারেটর রয়েছে। বিদ্যুৎ না থাকায় আধুনিক প্রযুক্তি থেকেও বঞ্চিত এখানকার মানুষ।

এমনকি মোবাইল চার্জ দেওয়া নিয়েও তাদের পড়তে হয় মারাত্মক সমস্যায়। সেন্টমার্টিনের তথ্য সেবাকেন্দ্রে দুই টাকার ফটোকপি করতে গুনতে হয় ৫০ টাকা। জন্ম নিবন্ধনসহ নানা সমস্যায় পড়ছেন এখানকার মানুষ।

দ্বীপের ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নেমে যাচ্ছে গত দু’বছর ধরে। শুকিয়ে যাচ্ছে পুকুর, অগভীর নলকূপের পানি। দ্বীপের অধিকাংশ নলকূপ অকেজো হয়ে পড়ে আছে। অধিবাসীরা পুকুরের পানি ফিটকিরি দিয়ে ব্যবহার করছেন।

সেন্টমার্টিনবাসীর অন্যতম প্রধান সমস্যা যোগাযোগ। দ্বীপের প্রধান সড়কটি খুবই সরু। একসঙ্গে দুটি গাড়ি চলাচল করা বেশ কঠিন। আবার টেকনাফের জেটি থেকে জাহাজে চড়ে দ্বীপে যেতে সময় লাগে তিন ঘণ্টা। আর কাঠের নৌকা হলে চার ঘণ্টা পেরিয়ে যায়। সেন্টমার্টিন দ্বীপে সব পণ্যই আনা হয় টেকনাফ থেকে। প্রথমে ট্রাক-পিকআপে করে দমদমিয়া ঘাটে। তারপর ট্রলারে করে সেন্টমার্টিন ঘাটে আনতে হয়। সেখান থেকে ভ্যানে করে দোকানে। এভাবেই নিত্যপণ্যসহ নানা ধরনের প্রয়োজনীয় বাজার-সদায় করতে হচ্ছে।

শফিকুল ইসলাম নামে এক দোকানি জানান, টেকনাফ থেকে একটি বস্তা সেন্টমার্টিন আনার ক্ষেত্রে নানা জায়গায় টাকা দিতে হয়। স্পিডবোট থাকলেও শুষ্ক মৌসুম ছাড়া তা চলাচল অত্যন্ত ঝুঁকপূর্ণ। জাহাজে করে পণ্য আনা-নেওয়া করলেও মোটা অঙ্কের টাকা গুনতে হয়। তার সঙ্গে রয়েছে ঘাটে চাঁদাবাজদের দৌরাত্মসহ অতিরিক্ত টোল আদায়। এতে প্রতিটি পণ্যে অনেক খরচ পড়ে যাওয়ায় বেশি দামে বিক্রি করতে হয়, যার প্রভাব পড়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের ওপর। আয়-রোজগারের ব্যবস্থা না থাকলেও পণ্য কিনতে হয় বেশি দামে।

২০০৮ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি প্রায় ছয় কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেন্টমার্টিনে উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রটিকে ১০ শয্যার হাসপাতালে উন্নীত করা হয়। কিন্তু এখনো অনেক ধরণের চিকিৎসা সুবিধা চালু করা সম্ভব হয়নি হাসপাতালটিতে।

দ্বীপে মাদ্রাসা শিক্ষার প্রভাবই বেশি। ছোট মেয়েশিশুরা হিজাব আর বড়রা বোরকা পরে বের হন বাড়ি থেকে। পুরুষরাও বেশ ধর্মপ্রাণ। প্রায় ১০ হাজার মানুষের এই দ্বীপে প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয় মিলিয়ে চারটি বিদ্যালয় থাকলেও সেখানে রয়েছে শিক্ষক সংকট। লেখাপড়ার উপযোগী চার হাজার শিশু-কিশোরের মাঝে মাত্র এক হাজার শিশু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যায়।

২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর ঘূর্ণিঝড় সিডরের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত সেন্টমার্টিনের জেটির তিনটি গার্ডার ও রেলিং এখনও সংস্কার হয়নি। এতে দ্বীপটিতে বেড়াতে আসা পর্যটকদের ঝুঁকি নিয়ে জাহাজে ওঠানামা করতে হয়।

ইউপি চেয়ারম্যান নুর আহমদ বলেন, সেন্টমার্টিনকে ঘিরে সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব আয় করছে। কিন্তু দ্বীপের উন্নয়নে কোনো উদ্যোগ নেই। এর চারদিকে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ, হাসপাতালে জনবল ও আসন সংখ্যা বৃদ্ধি, নৌ অ্যাম্বুলেন্স চালু, বাতিঘরের সংস্কার ও উন্নয়ন, আরেকটি জেটি নির্মাণ, দ্বীপের প্রধান সড়কসহ রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শূন্য পদে শিক্ষক নিয়োগ, জেনারেটরের মাধ্যমে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সরবরাহ এবং সেন্টমার্টিন বাজারে ব্যাংক স্থাপনের দাবি জানান তিনি।

এদিকে দেশের একমাত্র কোরাল দ্বীপ রক্ষার স্বার্থে সরকারের পক্ষ থেকে সেন্টমার্টিন দ্বীপে পর্যটক যাতায়াতে নিয়ন্ত্রণ ও রাতযাপন নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় ক্ষেপেছে দ্বীপবাসী। সঙ্গে অবশ্য যোগ দিয়েছেন সেন্টমার্টিন সংশ্লিষ্ট ফায়দা লোটা বিভিন্ন ব্যবসায়ীরাও।

দ্বীপের মানুষের দাবী, দ্বীপটি পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে চালু হওয়ায় এখানকার মানুষের কিছুটা হলেও ভাগ্যের চাকা ঘুরেছে। যদিও মূল খাতে দ্বীপের কোন মানুষই জড়িত নেই। জমি বিক্রি ও পর্যটন সংশ্লিষ্ট নিন্মমানের বিভিন্ন কাজের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে যা আয় হয়, তা দিয়ে তাদের সন্তানেরা উচ্চ শিক্ষিত হচ্ছে বলে দাবি করেন দ্বীপের মানুষ। তাই রাতযাপনে নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত পাল্টানোর দাবি তাদের।