এম.জুবাইদ, পেকুয়া(কক্সবাজার)  

কক্সবাজারের পেকুয়ার আইনশৃংখলা পরিস্থতির অবনতি হয়েছে। বেড়েছে খুন খারাপী। দিন দিন আরো ভয়বাহ পরিস্থিতির আশংকা করা যাচ্ছে। পর্যালোচনায় দেখা যায় গত মাসের ১২ এপ্রিল থেকে ৬রা মে এ ২৪ দিনে সন্ত্রাসীর ছুড়া গুলিতে প্রাণ গেল গৃহবধূসহ ৩টি প্রাণ।    
এখনো অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের গুলি ও দারালো কিরিচের ভয়ে আতংকিত জনগণ। কিন্তু এ নিয়ে পুলিশ প্রশাসনের কোন ধরনের উদ্যেগ দেখা যাচ্ছে না। ফলে একের পর এক হত্যা কান্ড ও খুন খারাপী করতে দিদাবোধ করছে না সন্ত্রাসীরা। এ নিয়ে পরিবার পরিজনে উন্ঠা বিরাজ করছে।  প্রতিনিয়ত অবৈধ অস্ত্রের ঝনঝনানি দিয়ে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে চলছে সন্ত্রাসীরা।  পুলিশ ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী আটক না করায় এ পরিস্থিতি হচ্ছে বলে ধারনা করছে সচেতনমহল।  

উল্লেখ্য যে, গত ১২ এপ্রিল একই ইউনিয়নের বুধামাঝির ঘোনা গ্রামে মধ্যরাতে জমির বিরোধে এবং গরু চুরি করার ঘটনায় মধ্যরাতে গৃহবধু সেলিনা আক্তারকে (৩৭) গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত হয়েছে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র।

গত ২৪ এপ্রিল রাতে বারবাকিয়া ইউনিয়নের ভারুয়াখালী গ্রামে টাকার ভাগভাটোয়ারা বিরোধে নেজাম উদ্দিন (৩৫) নামের এক যুবককে গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।

২ মে রবিবার পেকুয়া উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের ফুলতলা স্টেশনের একটি দোকানে  সন্ধ্যায় চা-নাস্তা খেতে বসে সন্ত্রাসীদের গুলি এবং কিরিচের কোপে মারা যান ব্যবসায়ী জয়নাল আবেদীন (৩৮)।

টাকার ভাগ ভাটোয়ারা, জমির বিরোধ, তুচ্ছ ঘটনা ও পূর্ব শত্রুতার জেরে সংঘটিত হয় পৃথক এ তিনটি ঘটনা। এছাড়া প্রতিদিন ঘটছে রক্তপাতের ঘটনা। ধারলো অস্ত্রের আঘাতে মৃত্যু সন্ধিক্ষনে দিন কাটাচ্ছে অহরহ নারী পুরুষ। বাদ যায়নি স্কুল, কলেজপড়ুয়া শিক্ষার্থী। আক্রান্তের শিকার হয়েছেন শিশু কিশোরও। নারী নির্যাতনও লেগেই আছে।

এনিয়ে চরম উদ্বেগ উৎকণ্ঠা প্রকাশ করছেন উপজেলার সচেতন মহল। অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিরূপ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। পেকুয়া থানা পুলিশের ব্যর্থতা নিয়ে তুলেছেন প্রশ্ন।

অনেকেই দাবী তুলেছেন পেকুয়া থানার ওসিকে অপসারণের। ২৪ দিনের মাথায় তিন খুনের ঘটনা এখন টক অব দ্যা পেকুয়া। ভাবিয়ে তুলেছেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসনকে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ তিনটি ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে এখনো চিকিৎসাধীন আছেন আরো চার নারী-পুরুষ। কিন্তু উদ্ধার হয়নি এসব হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত কোন অস্ত্র। আটক হয়নি হত্যাকারীরা।

পেকুয়া উপজেলার সচেতন ব্যক্তিরা বলেন, থানার ওসি সাইফুর রহমান মজুমদার যোগদানের পর থেকে উপজেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটেছে। গত সাত মাসে নানা বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। প্রশ্রয় পেয়ে অপরাধীরা এখন লাগামছাড়া।

পেকুয়ার আনাচেকানাচে বেড়েছে অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার। বেড়েছে চুরি, ছিনতাই ও মাদকের বিকিকিনি। বেড়েছে কিশোর গ্যাংদের অপরাধ তৎপরতা। থানায় পুলিশের সদস্যদের সেবা প্রদানে ধীরগতি, অসদাচরণ, ঘুষ লেনদেন ও পক্ষাবলম্বন বেড়েছে। এতে নাগরিক সেবা বিঘ্নিত হচ্ছে।

এসব ভুরি ভুরি অভিযোগ তুলেছেন সাধারন জনগন। আশংকাজনক হারে বেড়ে গেছে ইয়াবা বিকিকিনি। ওসি সাইফুর রহমান মজুমদার যোগদানের পর থেকে অদ্যাবধি একটা ইয়াবাও উদ্ধার করতে পারেনি। গ্রেপ্তার করতে ব্যর্থ হয়েছেন ইয়াবাকারবারী।

অথচ মাদকের থাবায় গ্রাস করেছে পেকুয়া। অভিযোগ উঠেছে ইয়াবাকারবারী ও অস্ত্রব্যবসায়ীদের সাথে রয়েছে গুটিকয়েক পুলিশ কর্মকর্তার গভীর সখ্যতা। উপকুলের শীর্ষ সন্ত্রাসী, পলাতক আসামীদের সাথে একসাথে বসে দাওয়াতও খান কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা। দুষ্টের দমন আর শৃষ্টের পালন এ নীতি যেন ভুলে গেছেন পেকুয়ার প্রশাসন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ক্ষমতাসীন দলের কয়েকজন নেতা জানায়, পেকুয়ায় থানা পুলিশের নিষ্ক্রিয়তার কারণে হু হু করে বেড়েছে অপরাধ কর্মকাণ্ড। খুন, চুরি-ডাকাতি, মাদক ব্যবসা ও মিথ্যা মামলার প্রকোপ বেড়েছে পুরো পেকুয়া উপজেলায়। তাই আমরা উপজেলার তিন লক্ষাধিক মানুষের জানমাল হেফাজত ও নানা অপরাধ কর্মকাণ্ড কমাতে পেকুয়া থানা পুলিশকে ঢেলে সাজানোর দাবী জানাচ্ছি জেলা পুলিশের কাছে।

মগনামা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি খাইরুল এনাম ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হাসেম বলেন, মগনামায় বিএনপি জামায়াতের রাজনৈতিক নেতারা খোলস পাল্টে আওয়ামীলীগের লেবাসে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে মেতেছে। তাঁরা থানা পুলিশকে বগলদাবা করে রেখে সাধারণ মানুষজনদের নানাভাবে নির্যাতন করছে। পুলিশ চাইলে অল্পসময়ের মধ্যে মগনামাকে অবৈধ অস্ত্র ও সন্ত্রাস মুক্ত করতে পারে। কিন্তু তা কেন হচ্ছে না, তা আমাদের বোধগম্য নয়।

পেকুয়া উপজেলা শ্রমিকলীগ নেতা শাহাদাত হোসেন বলেন, এ দায় প্রশাসন কোনভাবেই এড়াতে পারে না। এমতাবস্থায় প্রশাসনের উচিত ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত করে সাঁড়াশি অভিযান পরিচালনা করা। সন্ত্রাসী যেই হোক, তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে গণমানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত গৃহবধু সেলিনা আক্তারের স্বামী ফরিদুল আলম বলেন, আমার স্ত্রী সেলিনাকে হত্যার পরদিন আমি বাদী হয়ে পেকুয়া থানায় ২২ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করি। সেসময় থেকে আজ পর্যন্ত কোন আসামী গ্রেফতার করেনি পুলিশ। তবে, ঘটনার পরপর আমার স্বজনের হামলায় জড়িত দুইজনকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছিল জনতা।

তবে থানা পুলিশের দাবী পেকুয়ায় হঠাৎ খুনের ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় পুরো প্রশাসনকে ভাবিয়ে তুলছে। এসব খুনের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশ মাঠে রয়েছে। অপরাধীদের ধরতে পুলিশ সদা তৎপর। কাউকে কোন ছাড় দেয়া হবে না। আইন নিজের গতিতে চলবে।।