পেকুয়া (কক্সবাজার)প্রতিনিধিঃ

কক্সবাজারের পেকুয়ায় আদালতের ১৪৪ ধারা নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বিরোধীয় জায়গায় দখল চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে।  
ঘটনাটি ঘটেছে পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের সিকদার পাড়া এলাকায়।  

স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন, মৃত আনোয়ার হোসেনের পুত্র দিদারুল ইসলাম গং ও একই এলাকার  সামশুল ইসলামের পুত্র তারেকুল ইসলাম ও বজলুল করিমের পুত্র আতাউর রহমান গংদের মধ্যে  জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল।  এ বিরোধ নিয়ে বর্তমানে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত কক্সবাজার এ দিদার গং মামলা করে। মামলা এখনো চলমান।

মামলার বাদী দিদার অভিযোগ করে বলেন ওই এলাকার জমির রায়ত মালিক আনোয়ার  হোসেন ও নবী উদ্দীন। তাহাদের নামে পেকুয়া মৌজার বি এস খতিয়ান ৭৯৯ ও সৃজিত ১৬৮৭ নং খতিয়ানে চুড়ান্ত ভাবে প্রচারিত আছে। যার বি এস দাগ ৩০৩৯, ৩০১৮ এর আন্দর ০.১৬২৫ একর জমি। আনোয়ার হোসেন মরণে  পুত্র ও কন্যার মধ্যে হারাহারি ও পারিবারিক হিস্যাংশা মতে ভোগ দখলে রয়েছে। কিন্তু জায়গার দাম দিন দিন  বৃদ্ধি পাওয়ায় সম্প্রতি একই এলাকার  সামশুল ইসলামের পুত্র তারেকুল ইসলাম ও বজলুল করিমের পুত্র আতাউর রহমান গংদের লুলুপ দৃষ্টি দেয় ওই জায়গার উপর । এরই মধ্যে একই এলাকার মরহুম আবুল কাসেম মাষ্টারের পুত্র শওকতুল ইসলাম মুন্সি হতে আমার জমির পাশ্ববর্তি দাগ দিয়ে ৪ শতক জমি ক্রয় করছে বলে প্রচার করে আমার পৈত্রিক জায়গাসহ দখল করার চেষ্টা করলে আমি বাদী হয়ে

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত কক্সবাজার এ তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করি। মামলা এখনো চলমান। তারপরও মামলা কোন নিষ্পত্তি না হলে বিবাদীরা লোকজন নিয়ে দখল করার চেষ্টা করলে আমি উক্ত জায়গায় উপর ১৪৪ ধারা নিষেধাজ্ঞা চেয়ে
অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত কক্সবাজার বরাবর আবেদন করলে আদালত আবেদন আমলে নিয়ে উক্ত জায়গায় ১৪৪ ধারা জারি করে পেকুয়া থানাকে শান্তি শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে নিদের্শ দেন। এই আইন অমান্য করে ২৩ মে সকালে লোকজন নিয়ে অস্ত্রস্বস্ত্র সজ্জিত হয়ে জায়গায় কাজ শুরু করে এতে বাধা দিলে প্রাণে হত্যা সহ নানা ধরনের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে।  বিষয়টি পেকুয়া থানার ওসি তদন্ত কানন সরকার কে জানানো হলে তিনি এ এস আই আলামিন কে দায়িত্ব দেন।  

তারেকুল ইসলামের ব্যবহৃত মুঠোফোনে সংযোগ পায়নি বলে বক্তব্য নিতে পারিনি।

এ ব্যাপারে পেকুয়া থানার এ এস আই আলামিন জানান আমি উভয় পক্ষ কে বিরোধিয় জায়গা কাজ না করতে নিদের্শ দিয়েছি। তারপরও যদি অমান্য করে কাজ করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।