বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৯:৫২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে ৮-এপিবিএন এর হটলাইন চমেক শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান হলেন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম অবশেষে শুরু হচ্ছে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের নির্মাণ কাজ উখিয়া ক্যাম্পে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ ছয় রোহিঙ্গা গ্রেফতার বঙ্গোপসাগরে ভাসমান স্বর্ণ: বদলে দিতে পারে দেশের ভাগ্য! টেকনাফে পাহাড় থেকে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা ডাকাত গ্রেফতার অপহৃত মিয়ানমারের দুই শিক্ষক বিজিপির নিকট হস্তান্তর উখিয়া রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গুলিতে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী নিহত মিয়ানমার থেকে পাচারকালে ১কেজি আইসসহ পাচারকারী গ্রেফতার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‍‍‌‌‌‌‌‍’বাড়ি চলো’ ক্যাম্পেইন চলছে

বন্ধুত্বের জয়গান ও সিলেটে এক টুকরো সমাজতত্ত্ব!

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৭ আগস্ট, ২০১৮
  • ৪৯৯ Time View

।।  আলোকিত নিউজ ডেস্ক ।।

ভ্রমণ আনন্দের। ভ্রমন সম্পর্ক গঠনের। বন্ধ হতে যাওয়া যোগাযোগ আগের মতন সুদৃঢ় করতে ভ্রমনের জুড়ি নাই।চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজতত্ত্ব ৪০তম ব্যাচ গত আগস্ট মাসের ২ থেকে ৪ তারিখ পর্যন্ত অপরুপ সুন্দরের লীলাভূমি সিলেট ভ্রমণ করে। পেশাগত ভিন্ন অবস্থানের কারণে কেউ চট্টগ্রাম,কেউবা ঢাকা থেকেই তাদের যাত্রা শুরু করে,কেউ আবার দেশের সর্বশেষ সীমান্ত টেকনাফ থেকেই ছুটে চলে আসে। সিলেটে পৌঁছানোর আগে থেকেই আনন্দের শুরু। একে অপরকে আলিঙ্গন, পরিবারের সবার খোঁজ-খবর নেওয়া থেকে শুরু করে ফেলে আসা শিক্ষা জীবনের স্মৃতিচারন এবং তার প্রস্থচ্ছেদ।কারো চোখে ঘুম নেই, এ যেন ক্লান্তিকে ছুটি দিয়ে সুখের বহুব্রীহি কাছে টেনে নেওয়া। প্রতিটি সেকেন্ড অসম্ভব মূল্যবান।”কেমন আছিস, কিভাবে আছিস, বউ আসলো না কেন, স্বামী কিভাবে ম্যানেজ করলি, ছেলে মেয়েরা কি করছে, ঠিকমতো খায় নাকি বেশি দুষ্টামি করে” এসব গল্প করতে করতেই আর কার্ড খেলতে খেলতেই নির্ঘুম একটি রাত কিভাবে কেটে গেল কেউ বুঝতেই পারলাম না।

সিলেটের প্রাণকেন্দ্র জেল রোডের কাছেই হোটেল পানশি ইন। দল বেধে উঠে পড়লাম। ভ্রমনের অন্যতম আয়োজক বন্ধু তরুণ অভ্যর্থনা কক্ষে হাজির সবাইকে স্বাগত জানাবার জন্য। নিজ নিজ রুমে চলে গেলাম সবাই। নাস্তাও করে ফেললাম জম্পেশ। দীর্ঘ ভ্রমনের কথা ভেবে দুপুরের আগ পর্যন্ত কোন পরিকল্পনা রাখিনাই। তাতে কি? সিলেটে এসেছি, আর হজরত শাহ্‌ জালাল, শাহ্‌ পরান এর মত পুণ্যবান মানুষের কবর জিয়ারত করার সুযোগ কেইবা হাতছাড়া করবে? জুম্মার নামাজটাও সেখানেই পড়ে ফেললো অনেকেই। বৃষ্টিতে ভিজে হোটেলে ফিরে আসা। তারপর দুপুরের খাবার (স্বাদ এর কথা নাই বা বললাম) । খাওয়া শেষে চলে গেলাম লাক্কাতুরা চা বাগানে। সবাই মিলে ছবি তোলার পাশাপাশি নানারকম গেমস সবার মাঝে বাড়তি আনন্দের খোরাক জুগিয়েছিল নিঃসন্দেহে। সন্ধ্যায় ফিরে এলাম হোটেলে। ৭.০০ টায় উপস্থিত হতে হবে আমাদের ব্যাচের গড়ে তোলা ফোরটি ফেলজ নামক সংগঠনের প্রথম বার্ষিক সাধারন সভায়। সভায় ছিল সকলের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহন। গত এক বছরের অর্জন, আগামীর পরিকল্পনা সবই সভায় আলোচনা করা হয়। এরপরেই শুরু হয় সবচেয়ে আকর্ষণীয় র‍্যাফল ড্র। টান টান উত্তেজনা, কে পাবে আকর্ষণীয় পুরস্কার? অবশেষে সব উত্তেজনার অবসান ঘটিয়ে বিজয়ীর বেশে হাজির হন সাংবাদিক ফারুখের গুণবতী স্ত্রী আমাদের খুবই আদরের ছোট বোনইসরাত। মুহুর্মুহু করতালির মধ্য দিয়ে প্রথম দিনের শেষ আয়োজন রাতের খাবারের জন্য সবাইকে আমন্ত্রন জানিয়ে বার্ষিক সাধারন সভা এবং র‍্যাফল ড্র এর সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

রাতের খাবার শেষে নিজ নিজ রুমে অবস্থানের কথা থাকলেও একটি দুটি রুমের ভিতরেই জটলা বাঁধে সবাই। বন্ধু শাহিন এর চোখ ধাঁধানো নাচ সেই জটলাকে দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর করে। আর সেই নাচ গোপনে ভিডিও করে গ্রুপ এ ছেড়ে দিয়ে ভাইরাল করার দায়ে দণ্ডিত হয় আইনের রক্ষক বন্ধু তপন। অন্য রুমগুলোরও একই অবস্থা। সোহেল, মহি, প্রিন্স, সায়মন, জিল্লু মগ্নচিত্তে কার্ড খেলে যাচ্ছে আরে স্মৃতির পাতায় ঝড়ে পড়া দিনগুলোর বুলি আওড়াচ্ছে। মেয়েগুলোর সভাব এখনো বদলালোনা। ফিস ফিস করে না ঘুমিয়ে কত গভীর রাত পর্যন্ত যে আড্ডা দিয়েছে, একমাত্র ওরাই ভালো বলতে পারবে। এসব করেই সবাই আনন্দে মশগুল বললে কিছু বন্ধুর প্রতি ভীষণ অবিচার হবে। বিশেষ করে সৌভিক আর সোহাগ। ওরা যখনই পেরেছে, যেখানেই পেরেছে, যেভাবেই পেরেছে আনন্দ করেছে। আর ওদের আনন্দের একমাত্র উপাদান ছিল ঘুম। ঘুম আর ঘুম। যেন বাড়িতে ওদের ঘুমালেই শাস্তি দেওয়া হত।

দ্বিতীয় দিন শুরু হল জাফলং এর উদ্দেশ্যে। সাম্প্রতিক সময়ের ছাত্র আন্দোলন, পরিবহন শ্রমিকদের আন্দোলন কোনকিছুই আমাদের যাত্রাকে আটকে রাখতে পারেনি। তবে বিলম্বিত করেছিলো। যাবার পথে বেশকটি ব্যারিকেড আমাদের মাঝে আশঙ্কার উদ্রেগ ঘটিয়েছিল বইকি, কিন্তু যেখানে প্রশাসনিক বন্ধু তপন, কায়সার, বারেক, বারেকের স্ত্রী, সর্বোপরি ক্যারিশম্যাটিক যেখানে প্রিন্স আছে, সেখানে কিসের ভয়? সে তো জাদুঘরে বন্ধি আলিবাবার কাল্পনিক দৈত্য দেখতে পাওয়ার মতই। যাইহোক, ভাঙ্গা রাস্তার তীব্র ঝাকুনিকে চুলকানি মনে করে পৌঁছে গেলাম জাফলং। বেশকিছু সময় ওখানটাই থেকে ফিরছিলাম নাজিমগর রিসোর্টে। দুপুরের খাবার শেষ করে উঠে পরলাম নৌকায়। অসম্ভব গরম ছিল সারাটা দিন। মোক্ষম সুযোগ। হাতছাড়া করাটাই বোকামি।উচ্ছৃঙ্খল প্রিন্স কাপড় চোপড় খুলে মাঝ নদীতেই ঝপাস করে দিল ঝাপ। বয়স হয়েছে। কিছুক্ষন সাঁতার কাটার পর আর পারছেনা। শেষ মেশ বন্ধুরা টেনে তুলে দিল বকা। তাতে গণ্ডারটার কিছু আসলো বা গেল বলে কিছু মনেই হলনা। পরে অবশ্য অনেকেই ঘাটে এসে হিম শীতল পানিতে নিজের শরীরটাকে সপে দিয়েছিল। মন না চাইলেও ফিরতে হবে। তরুনের করা নির্দেশ নৌকা থেকে নেমেই গাড়িতে ওঠ। বেকে বসল ফয়জুন। চা না খেয়ে উঠবোইনা। নাছরবান্দার জেদ শেষমেশ সবাইকে এক কাপ গরম চা খাওয়ার সুযোগ করে দিল।

এবার ফিরতেই হবে। কিছুটা ক্লান্তি, কিছুটা আরও কিছু দেখতে না পাওয়ার অপ্রাপ্তি, ফিরে যাবার সময় ঘনিয়ে আসা- সবকিছু মিলে আধো ঘুম, আধো জাগ্রত মনেই সবাই ফিরে এলাম। এখন গোছাতে হবে। তবেগুছানোর আগেও ক্লিকবাজ মারুফকে বার বার তার ক্যামেরায় ক্লিক করতে ছাড়ছেনা কেউ। সুবোধ ছেলের মত সবার ছবিও তুলে দিল। দেখার বিষয় যতগুলো ছবি ও তুলেছে, তার কতটুকু শেয়ার করেছে।

রাতের খাবার একটু আগে শেষ করতে হল, কেননা ট্রেন ছাড়বে ৯.২০ মিনিটে। কতগুলো ছাড়া ছাড়া সুতো দুইদিনের জন্য এক হয়েছিলাম। এই দুইদিনে সূতোর গিট কেউ ছিঁড়তে পারেনি, সম্ভবত ছিঁড়তে চায়নি। বাস্তবতার নির্মম গ্যাড়াকলে আমরা সবাই পিষ্ট। কর্মক্ষেত্রে ফিরতে হবে। দুই আঁখি নিশ্চয় পরীক্ষার খাতা দেখা বাকি রেখেই চলে এসেছিলো। বাঁধন, পিংকি ওরাও নিশ্চয় ফিরতে চায়না। সাত্তার আর খালেদের হানিমুন তো হয়েই গেল। মহি, সোহেল, সৌভিক, মামুন আশা করছি পরের যাত্রায় হানিমুন সেরে নিবে। তৌহিদ ছিল আমাদের কনভেইনার। কিন্তু ওর খবর কে কনভেইন করবে? শুধু এতটুকু অনুমতি না নিয়েই সবাইকে বলে শেষ করতে চাই- আগামী মাসের শেষ সপ্তাহের শুক্রবার সবাই ফ্রি থাকিস।

জয় হোক বন্ধুত্বের,জয় হোক মানবিকতার।

লেখকঃ মনজুরুল আলম প্রিন্স,৪০ তম ব্যাচ,সমাজতত্ত্ব বিভাগ,চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

 

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH