ভাগবাটোয়ারা কমিটির অবমূল্যায়নে’ অসন্তোষ কুতুবদিয়া উপজেলা ছাত্রদলে

কুতুবদিয়া প্রতিনিধিঃ

ত্যাগী নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন, অযোগ্য, বহিরাগত, নেতাদের আত্বীয়দের নিয়ে কমিটি গঠনের অভিযোগে কক্সবাজারে কুতুবদিয়া উপজেলা ছাত্রদলের নতুন কমিটি নিয়ে তৃণমূলে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে উপজেলা ছাত্রদলসহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। অনেকেই এই কমিটিকে হাস্যকর বলে মন্তব্য করেছেন। অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে এই কমিটিকে পকেট কমিটি হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন। নিজ নিজ ফেসবুক আইডি থেকে পদত্যাগের ঘোষনা দিয়েছেন ঘোষিত আহবায়ক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক আবুল কাশেম,রিয়াদ মাহামুদ তানভীর,জামশেদ আলী, সদস্য জিয়াউল হক,জাহাঙ্গীর আলমসহ অনেকে।

ছাত্রদলের ত্যাগী নেতাকর্মী দাবিদাররা অবিলম্বে এই পকেট কমিটি বাতিল করে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন করে কমিটি গঠনের দাবি জানান।

তৃণম‚লের নেতাকর্মীদের অভিযোগ, উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত হলেও সদ্য ঘোষিত কমিটিতে একটি ইউনিয়নকে প্রধান্য দেয়া হয়েছে। ২১ সদস্য বিশিষ্টি আহবায়ক কমিটিতে সদস্য সচিব, ৯ জন যুগ্ম আহবায়কের মধ্যে ৪ জন, ২১ সদস্যের কমিটির অধিকাংশেরই বাড়ি উপজেলার বড়ঘোপ ইউনিয়নে। আর বাকি ৫টি ইউনিয়ন মিলে হাতে গোনা কয়েকটি পদ দেওয়া হয়েছে। এ ভাগবাটোয়ারা কমিটির পদ ভাগিয়ে নিয়েছেন উপজেলার অনেক সিনিয়র নেতা। দেওয়া হয়েছে তাদের ভাগীনা,ভাই,নাতি,ভাতিজা,সন্তান, এমন কি বউয়ের বোনরে ছেলেরাও পদ পেয়েছেন।

তারা বলেন, সদ্য সাবেক উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, জেলা বিএনপির  এক নেতার যোগসাজশে তাদের আত্মীয়-স্বজন ও অযোগ্যদের দিয়ে কুতুবদিয়া উপজেলার পকেট কমিটি গঠন করা হয়েছে। যা নিয়ে ইতোমধ্যেই সমালোচনার ঝড় উঠেছে। এই কমিটি দ্রæত বাতিল না করা হলে কমিটিকে অবাঞ্চিত ঘোষনা করা হবে এবং অনেকে পদত্যাগও করেছেন।

সূত্রে জানা গেছে, কুতুবদিয়া উপজেলা ছাত্রদলের ঘোষিত কমিটির আহবায়ক মৌলভী মুকারমের বাড়ি উপজেলার উত্তর ধূরুং ইউনিয়নের পোড়ার পাড়া গ্রামে, তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক। কুতুবদিয়া উপজেলার একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্যারা শিক্ষক হিসেবে কর্মরত থাকা অবস্থায় ছাত্রীর সাথে নৈতিক সম্পর্কের অভিযোগে চাকরিচ্যূত করা হয়। তিনি উপজেলা বিএনপির একনেতার ভাগীনা হওয়ার শোবাদে আহবায়ক হয়েছেন। একজন কলংঙ্কিত, বহিরাগত, অছাত্রকে ছাত্রদলের আহবায়ক করায় তৃণমূলে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। সদস্য সচিব আবদুল মান্নান একজন চাকরিজীবী তিনি একটি ঔষুধ কোম্পানিতে এসআর হিসেবে কর্মরত তিনি এক সিনিয়র নেতার ভাই বলে জানা গেছে। যুগ্ম আহবায়ক তাওহিদুল ইসলাম তিনি চট্টগ্রাম একটি ঔষুধ কোম্পনীতে কর্মরত তিনি কুতুবদিয়া এক দিনের জন্য সভা সমাবেশে দেখা যায়নি। অনেকে নেতাদের আত্বীয় ও কুতুবদিয়া থাকে না। এমন কি চট্টগ্রাম শহরের দোকানদার ,প্রাণ কোম্পনীর এসআর এ কমিটিতে স্থান পেয়েছেন। নেতাদের আত্বীয় না হওয়ায় কমিটি থেকে বাদ পড়েছে অনেক ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতার নাম।

ছাত্রনেতা কায়কোবাদ সিকদার বলেন, যাদের ইউনিয়ন-ওয়ার্ড পর্যায়ে নেতৃত্ব দেওয়ার যোগ্যতা নেই, তাদের উপজেলা কমিটিতে গুরুত্বপ‚র্ণ পদ দেওয়া হয়েছে। যারা কুতুবদিয়া উপজেলায় এক দিনের জন্য রাজনীতি করে নাই তারা নেতাদের আত্বীয় হওয়া কমিটিেিত স্থান পেছে । আমরা এ পকেট কমিটি মানিনা। সদ্য ঘোষিত কমিটির অনেকের বাবাসহ পরিবারের সদস্যরা ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।
সদ্যঘোষিত কমিটির যুগ্ম আহবায়ক রিয়াদ মাহামুদ তানভীর বলেন, ‘ছাত্রদলের রাজনীতি করতে গিয়ে অনেক নির্যাতনের শিকার হয়েছি। নিজের ও পরিবারের অর্থিক ক্ষতি করেছি। দলীয় সভা-সমাবেশে নিয়মিত উপস্থিত ছিলাম। অথচ আমাদের মূল্যায়ন করা হলো না। কুতুবদিয়া উপজেলায় যে কমিটি করা হয়েছে, তাতে অনেক যুগ্ম আহবায়ক আছেন, সদস্য আছেন, যারা জীবনে কখনো বিএনপি-ছাত্রদলের সভা সমাবেশে যাননি। এমনকি চেনেনও না। তারা কিভাবে এত বড় পদ পায় তা বোধ্যগম্য নয়।’ তাই আমি এ পকেট কমিটি থেকে পদত্যাগ করিলাম।

সদ্য গঠিত কুতুবদিয়া উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক মৌলভী মুকারম এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ও বিভাগীয় টিমের প্রধান কেএসএম মুসাব্বির সাফি বলেন, জেলা ছাত্রদল থেকে যে কমিটি দেওয়া হয়েছে আমরা সেই কমিটি অনুমোদনের জন্য কেন্দ্র বরাবর পাঠিয়েছি, কেন্দ্র সেই কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। তৃণমূলের ক্ষোভের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন লিখিত অভিযোগ পেলেই তদন্তের মাধ্যমে প্রমাণিত হলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।