রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৮:০৭ পূর্বাহ্ন

মাদক সংশ্লিষ্টতা আড়াল করতেই ছাত্রলীগে

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৭১ Time View

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের কয়েকটি ইউনিট কমিটির নেতাদের বিরুদ্ধে মাদক সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ উঠেছে। এসব ইয়াবা কারবারিদের কারণে উপজেলা ছাত্রলীগের ঐতিহ্য ও সুনাম ধ্বংসের ধারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে বলে অভিযোগ করেছেন সংগঠনের কিছু ত্যাগী নেতা। তবে উপজেলা ছাত্রলীগের দায়িত্বশীলদের পক্ষ থেকে এসব অভিযোগের ব্যাপারে মিশ্র বক্তব্য পাওয়া গেছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের আওতাধীন হ্নীলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নূরুল আমিন উরফে ফাহিম ১০ হাজার ইয়াবা ও অস্ত্রসহ গত বছরের শুরুর দিকে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার হাতে আটক হয়েছিলেন। আটক হওয়ার পর জেলা ছাত্রলীগ ওই কমিটি বিলুপ্ত করে। পরবর্তীতে গত বছর ৭ ডিসেম্বর রফিককে সভাপতি ও ফাহাদকে সম্পাদক করে জেলা ছাত্রলীগ কর্তৃক একটি কমিটি অনুমোদন দেয়।

পরবর্তীতে সভাপতি রফিকের বিরুদ্ধে একটি মাদক মামলায় পলাতক আসামি দেখানো হলে চলতি মাসের ৫ অক্টোবর উপজেলা কমিটির বর্ধিত সভায় সর্ব সম্মতিক্রমে হ্নীলা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। যার মামলা নং (১৪- ৫/১০/১৮) । অভিযোগ রয়েছে, বিলুপ্ত করার পরের দিন উপজেলা কমিটির সঙ্গে সমন্বয় না করে ফের জেলা কমিটি হস্তক্ষেপ করে উক্ত কমিটি বহাল রেখেছে।

এ বিষয়ে হ্নীলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি রফিকের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, বিজিবি স্থানীয় কিছু সোর্সদের ইন্ধনে আমাকে শত্রুতামূলকভাবে ওই মামলায় আসামি করা হয়েছে। আমি কখনো মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলাম না। বিষয়টি জেলা ছাত্রলীগ অবগত আছে। তাই তারা অন্যায়ভাবে বিলুপ্ত করা কমিটি পুনর্বহাল রেখেছেন।

অপরদিকে, চলতি বছর ৫ মে উপজেলা কমিটি সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপ ছাত্রলীগের ইউনিট কমিটি গঠন করে।  কমিটি গঠনের পর থেকে সাধারণ নেতা-কর্মীদের মধ্যে ওই কমিটির সাধারণ সম্পাদক শরীফের বিরুদ্ধে মাদক কারবারি বলে অভিযোগের ঝড় উঠে। সর্বশেষ হ্নীলা কমিটি বিলুপ্তির মধ্যদিয়ে শরীফের বিষয়টি নিয়ে নতুন বিতর্কের সৃষ্টি হয়।

নগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি সূত্রে জানায়, ২০১৭ সালের ১০ জানুয়ারি চট্টগ্রাম কোতয়ালী থানাধীন স্টেশন রোডে মেনস সুপার মার্কেটের সামনে থেকে চার হাজার ইয়াবা বহনকালে শরিফসহ চার জনকে আটক হয়েছিল। (যার মামলা নম্বর জি আর ২৫/১৭)। ওই মামলায় শরিফ এক বছরের অধিক সময় কারাবাস শেষে বেরিয়ে আসেন। এরপর তিনি নিজের অপকর্ম ঢাকতে কৌশলে ছাত্রলীগের পদ বাগিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

এ বিষয়ে কথা বলতে শরীফের সঙ্গে মুটোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কল রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এছাড়া রনি নামের আরেক যুবক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে- বাহারছড়া ও সাবরাং ইউনিয়নে মাদক কারবারিদের নিয়ে ছাত্রলীগের কমিটি দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন। বিপরীতে উপজেলা ছাত্রলীগের অধিকাংশ তৃণমূল ও শীর্ষ নেতারা উক্ত রনি মাদকাসক্ত ও  তার  দুই সহোদর তালিকাভুক্ত মাদক কারবারি সেটা আড়াল করতে উপজেলা ছাত্রলীগ নেতাদের নামে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে বলে মন্তব্য করে তার বক্তব্যের বিরোধিতা করেন। উপজেলা ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে বিষোদগার করার পেছনে রনির ব্যক্তিগত ও পারিবারিক স্বার্থ জড়িত রয়েছে এমন একটি বিষয়ের তথ্য উঠে এসেছে।

বিষয়টি নিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, কমিটি দেওয়ার আগে অভিযুক্ত শরীফের ব্যাপারে মাদক সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে জানা ছিল না। সাম্প্রতিক সময়ে বিষয়টি অবগত হয়েছি। শিগগিরই শরীফের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে জেলা  ছাত্রলীগ ক্ষমতা বলে উপজেলা ছাত্রলীগের সিদ্ধান্তের ওপর হস্তক্ষেপ করে হ্নীলার বিলুপ্ত কমিটিকে আবার বহাল রাখার বিষটি নিয়েও অসন্তোষ জানান। তাই বিষয়টি কেন্দ্রীয় কমিটিকে অবগত করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

সুলতান মাহমুদ বলেন, ছাত্রলীগ একটি আদর্শবান ছাত্রদের সু-সংগঠিত সংগঠন। সুতরাং এখানে সংগঠন বিরোধী কর্মকাণ্ড ও মাদক কারবারিদের নেতৃত্বে রাখার কোনো সুযোগ নেই।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Alokito Teknaf
Handicraft By SHAH