বুধ. জুন ৩, ২০২০

আলোকিত টেকনাফ

বিশ্বজুড়ে টেকনাফের প্রতিচ্ছবি

শাহ্‌ মুহাম্মদ রুবেল, আলোকিত টেকনাফ ডটকমঃ-

উখিয়া ও টেকনাফে স্থানীয় জনগোষ্ঠীর তুলনায় রোহিঙ্গাদের জনসংখ্যা এখন দ্বিগুণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। খুব অল্প সময়ের মধ্যে স্রোতের মতো আসা রোহিঙ্গাদের চাপে কৃষি জমি, শ্রম বাজার ও শিক্ষা সহ ওই অঞ্চলের মানুষজনের জীবনের নানা দিক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে স্থানীয় মানুষজন ও উন্নয়ন কর্মীরা জানাচ্ছেন।

এই পরিস্থিতি ঐ অঞ্চলের বহু মানুষের। গত বছরের আগস্টের শেষের দিক থেকে সাড়ে ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থী কক্সবাজারে এসে আশ্রয় নিয়েছেন।

উখিয়া ও টেকনাফের স্থানীয় জনগোষ্ঠী পাঁচ লাখের মতো। কিন্তু আগে আসা রোহিঙ্গা সহ ঐ অঞ্চলে এখন রোহিঙ্গাদের সংখ্যা দশ লাখ ছাড়িয়ে গেছে।

এমতাবস্তায়, বর্তমান সরকার পরিস্তিতি অনুধাবন করে এই অঞ্চলে সাহায্যের পরিমাণ বাড়িয়েছে।ফলে উখিয়া-টেকনাফের অতিদরিদ্র-৪০ হাজার পরিবারের জন্য ১ কোটি ৮০ লক্ষ টাকার চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। যা এতদিন ভিজিএফ ও ভিজিডির কাবিখা,কাবিটার আওতায় বিতরণ করে আসছিলেন বর্তমান সংসদ সদস্য আলহাজ আব্দুর রহমান বদি।

গত ২৫ ই অক্টোবর রিটার্নিং অফিসার বরাবর আবেদন এবং প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নিকট অনুলিপি পাঠান উখিয়া-টেকনাফ (কক্সবাজার-৪) আসনের বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী শাহজাহান চৌধুরী এই মর্মে কক্সবাজার-৪ আসনে বরাদ্দকৃত ভিজিএফ ভিজিডি,কাবিখা,কাবিটা এবং উন্নয়নমূলক সকল কর্মকাণ্ড বন্ধের জন্য যথাযত ব্যবস্থা গ্রহনের।

এতদিন আবেদনটি জনসম্মুখে প্রকাশ না ফেলে ও সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। এই নিয়ে অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়ে বলেন, রাজনীতিবিদরা রাজনীতি করে কাদের জন্য? সাধারণ জনগনের জন্য নাকি ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য?  অথচ যে জনগনের ভোটে জয়ী হয়ে পার্লামেন্টে যায় ,সরকারী সুযোগ সুবিধা ভোগ করে, ২৪ ঘণ্টা পুলিশি নিরাপত্তায় জীবন যাপন করে সে জনগনের খাদ্যের নিরাপত্তা বন্ধ করে এই কেমন রাজনীতি?

আবেদনে মিঃ চৌধুরী উল্লেখ করেন, চাউলের গায়ে প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামীলীগের ছবির চাপ লাগান আছে তাই এটি বিতরণ বন্ধের জন্য যথাযত ব্যবস্থা গ্রহনের।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন হতদরিদ্র পরিবারের কর্তা বলেন, পেঠের ক্ষুধা চিনেনা আওয়ামীলীগ এবং বিএনপি।

আবেদনের বিষয়ে জানতে চাইলে বর্তমান সংসদ সদস্য আলহাজ আব্দুর রহমান বদি বলেন, ভোটের রাজনীতির জন্য গরীব মানুষের প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত রাখার জন্য তিনি নানা কৌশল নিয়েছেন।
ইনশাল্লাহ ৩০ ডিসেম্বর নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে উখিয়া-টেকনাফের গরীব মানুষরা এই কর্মকান্ডের জবাব দিবে।

এই বিষয়ে মিঃ চৌধুরীর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হইনি।

আপনার মন্তব্য দিন
error: বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে এই সাইটের কোন উপাদান ব্যবহার করা সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ এবং কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ।