শাহ মুহাম্মদ রুবেল, কক্সবাজার।

বিশ্ব মহামারী করোনা ভাইরাসে বিপর্যস্ত দেশের খাদ্য সংকট মেটাতে বোরো ধানের জুড়ি নেই। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কড়াল গ্রাসে দেশ আজ অবরুদ্ধ থাকায় শ্রমিক সংকটে কৃষকেরা পড়েছেন চরম বিপাকে। ধান কাটার মজুর না পাওয়ায় বিপাকে আছে কৃষকেরা।

এমতাবস্থায়, ‘কৃষক বাঁচলে বাঁচবে দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’ – এই স্লোগানকে হৃদয়ে ধারণ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন সোনার ফসল ফলানো কৃষকের ক্রান্তিকালে তাদের পাশে দাঁড়াতে।

তারই ধারাবাহিকতায় ছাত্রলীগের সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যের নির্দেশনায় এবং কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোছাইনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে  মহেশখালী উপজেলা ছাত্রলীগের একঝাঁক নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা খোরশেদুল আলম রিয়াদের নেতৃত্বে কৃষকের ধান কেটে বাড়িতে পৌছে দিয়েছে।

শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) মহেশখালী কুতুবজুম ইউনিয়নের কুতুবজুম বটতলা বাড়ির কৃষক শফিউল আলমের ১বিঘা জমির ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দেন। এতে কৃষক শফিউল আলম খুশি হয়ে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোছাইন ও মহেশখালী উপজেলা ছাত্রলীগ পরিবারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

ছাত্রলীগ নেতা খোরশেদুল আলম রিয়াদ বলেন, ‘কৃষক বাঁচলে বাঁচবে দেশ বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই শ্লোগানকে সামনে রেখে এবং তারই নির্দেশে এই ধানকাটা কর্মসূচি। ইতিমধ্যে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য কৃষকদের পাকা ধান কাটা এবং বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার কর্মসূচি পালন করেন। পাশাপাশি ছাত্রলীগের সকল ইউনিটকে কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর নির্দেশনা প্রদান করেন। তারই ধারাবাহিকতায় কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোছাইনের নেতৃত্বে জেলা ছাত্রলীগ ধান কাটা কর্মসূচি পালন করে এবং কক্সবাজার জেলার অন্তর্গত প্রত্যকটি ইউনিটকে শ্রমিক সংকটে থাকা কৃষকদের ধান কেটে দেওয়ার নির্দেশ দেয়। জেলা ছাত্রলীগ সভাপতির এই নির্দেশনায় আজ গরিব কৃষকের এক বিঘা জমির ধান কেটে বাড়ীতে পৌছে দিই। যদি পরিস্থিতি এমনই থাকে তাহলে আগামীতেও আমরা এভাবেই কৃষকের পাশে থাকবো ইনশাআল্লাহ।’