এম. সালাহ উদ্দিন আকাশ, উখিয়া :
 
কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সভাপতি ভলকান ভজকি। এ সময় তিনি রোহিঙ্গাদের সাথে খোলামেলা আলোচনা করেন। রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারের নাগরিকত্ব এবং স্বদেশে প্রত্যাবাসনে জাতিসংঘ জোরালো ভূমিকা পালন করে যাবে। এ ব্যাপারে মিয়ানমার সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি অব্যাহত থাকবে। জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে রোহিঙ্গাদের অধিকার নিয়ে আলোচনাও অব্যাহত রাখবে।
বুধবার (২৬ মে) সকালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৫তম অধিবেশনের সভাপতি ভলকান ভজকি রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনকালে রোহিঙ্গাদের সাথে মতবিনিময় কালে এ মন্তব্য করেছেন।
কক্সবাজার শরনার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কার্যালয়ের অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ সামশু দ্দৌজা এই তথ্য জানান।
এর আগে তিনি আকাশ পথে কক্সবাজারে আসেন তারপর উখিয়ায় কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প-৪ এ যান। সেখানে তিনি রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠকে মিলিত হন।
এসময় তিনি বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের নানা সমস্যার কথা শুনেন রোহিঙ্গারা নিজ দেশে ফিরে যেতে জাতিসংঘের সহযোগীতা কামনা করেন বলে বৈঠকে উপস্থিত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ রেজওয়ান হায়াত জানান।
এ সময় ভজকির রোহিঙ্গাদের সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন পরে তিনি উখিয়ার বালুখালী ৮ ডব্লিউ ক্যাম্পের ওয়াচ টাউয়ার থেকে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত ক্যাম্প পর্যবেক্ষণ করেন।
এরপর বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প-৯ এ অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত তুর্কি হাসপাতাল পরিদর্শনে যান। সেখানে পুনঃনির্মিত হাসপাতালের বিভিন্ন দিক ঘুরে দেখেন পরিদর্শনকালে তিনি রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তার জন্যে বাংলাদেশের সরকার ও জনগনের ভূয়সী প্রশংসা করেন বলে জানান বাংলাদেশের কর্মকর্তারা।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব শাব্বির আহমেদ চৌধুরী, বাংলাদেশে নিযুক্ত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত মোস্তফা ওসমান তুরান, শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ রেজওয়ান হায়াত, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিজাম উদ্দীন আহমেদ।
উল্লেখ্য, মিয়ানমারে নির্যাতনের শিকার হয়ে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট পরবর্তী উখিয়া ও টেকনাফে ৩৪ টি ক্যাম্পে সাড়ে ১১ লাখের অধিক রোহিঙ্গা বসবাস করছে।